kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বিশেষ মর্যাদা বাতিলে কাশ্মীরিদের সমর্থন আছে : দোভাল

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিশেষ মর্যাদা বাতিলে কাশ্মীরিদের সমর্থন আছে : দোভাল

জম্মু-কাশ্মীরে নিরাপত্তা বাহিনীর সার্বক্ষণিক নজরদারির অংশ হিসেবে শ্রীনগরে গতকাল এক মোটরসাইকেল আরোহীর দেহ তল্লাশি করেন এক প্যারামিলিটারি সদস্য। ছবি : এএফপি

কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নিয়ে সেখানে কেন্দ্রের শাসন জারির প্রতি বেশির ভাগ কাশ্মীরির সমর্থন আছে বলে বিশ্বাস করেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল। গতকাল শনিবার সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ অভিমত তুলে ধরেন।

ভারত গত ৫ আগস্ট সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করে কাশ্মীরে কেন্দ্রের শাসন জারি করে। এ নিয়ে কাশ্মীরিদের বিক্ষোভ ঠেকাতে সেখানে কারফিউ জারি করা হয়, সব ধরনের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয় এবং ব্যাপক ধরপাকড় চালানো হয়। এর পরও ছোট-বড় বিক্ষোভ অব্যাহত আছে।

এর মধ্যে গতকাল ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা দোভাল দাবি করেছেন, সরকারের কাশ্মীরবিষয়ক পদক্ষেপে উপত্যকাবাসীর সমর্থন আছে। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আমি পুরোপুরি বিশ্বাস করি, ৩৭০ ধারা বাতিলের প্রতি বেশির ভাগ কাশ্মীরির সমর্থন আছে।’ তাঁর দাবি, এ ঘটনাকে কাশ্মীরিরা ‘ব্যাপকতর সুযোগ, উন্নততর ভবিষ্যৎ ও যুবসমাজের জন্য আরো কর্মসংস্থান’ হিসেবে দেখছে। তিনি বলেন, ‘(৩৭০ ধারা বাতিলের) এর বিরুদ্ধে যারা সরব হয়েছে, তারা সংখ্যালঘু। তাদের ওই বিরোধিতাকে লোকে জনগণের কণ্ঠ বলে ধরে নিয়েছে। এটাকে সত্য বলে মনে করার কোনো কারণ নেই।’

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দোভালের অভিযোগ, কাশ্মীরে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির জন্য পাকিস্তান সব সময় মুখিয়ে থাকে। কাশ্মীর ইস্যুকে ভারতবিরোধী প্রচারণায় কাজে লাগাতে চায় পাকিস্তান। আর এ লক্ষ্যে তারা কাশ্মীরকে সব সময় অস্থিতিশীল রাখতে বহু সন্ত্রাসী পাঠিয়েছে।

দোভালের দাবি, ‘জম্মু ও কাশ্মীরে স্বাভাবিকতা ফিরিয়ে আনতে কেউ যদি আগ্রহী হয়ে থাকে, তবে সেটা হলো ভারত। আমরা জনগণকে কিছুতেই পাকিস্তানের ষড়যন্ত্র আর তাদের পাঠানো বুলেটের বলি হতে দেব না। জনগণের সুরক্ষার স্বার্থে আমরা ক্ষমতার সর্বোচ্চ ব্যবহার করব।’

কাশ্মীরে সেনাবাহিনীর মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ নিয়ে সাংবাদিকরা প্রশ্ন তুললে জবাবে দোভাল যুক্তি দেখান, ওই উপত্যকায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার স্বার্থে স্থানীয় পুলিশের পাশাপাশি কেবল কেন্দ্রীয় প্যারামিলিটারি বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। সুতরাং সেনাবাহিনীর মানবাধিকার লঙ্ঘনের কোনো প্রশ্নই নেই বলে তাঁর দাবি। তিনি আরো বলেন, সেনাবাহিনীর কাজ শুধু সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করা। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।

 

পাকিস্তানে আকাশসীমা ব্যবহারের অনুমতি পেলেন না ভারতের প্রেসিডেন্ট

ভারতের প্রেসিডেন্ট রামনাথ কোবিন্দকে বহনকারী বিমানকে নিজেদের আকাশসীমা ব্যবহার করতে দেবে না পাকিস্তান। ফলে ঘুরপথেই তাঁকে ইউরোপে যেতে হবে।

আইসল্যান্ড, সুইজারল্যান্ড ও স্লোভেনিয়া সফরে যাবেন ভারতের রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ। আগামী সোমবার এয়ার ইন্ডিয়ার বোয়িং ৭৪৭ বিমানে চড়ে তাঁর রওনা হওয়ার কথা। কিন্তু প্রচলিত রুট ব্যবহার করতে পারবেন না তিনি। কারণ তাঁকে বহনকারী বিমানকে পাকিস্তানের আকাশসীমা ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া হয়নি। ফলে যাওয়ার সময় তো বটেই, ফিরতি পথেও তাঁকে দূরপাল্লার রুট ব্যবহার করতে হবে। গতকাল শনিবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশি সংবাদমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন, স্বয়ং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এ সিদ্ধান্তে অনুমোদন দিয়েছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা