kalerkantho

কাশ্মীরের ব্যারিকেড উঠেছে, ফোন সচল

সব সরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৬ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শুক্রবার জাতিসংঘের সামরিক পর্যবেক্ষকদের অফিস পর্যন্ত মিছিলের ডাক দিয়েছিলেন কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতারা। এর জেরে শ্রীনগরে ফের কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছিল। রাজ্যের প্রশাসন জানিয়েছে, সেখানকার অধিকাংশ এলাকায়ই গতকাল রবিবার রাস্তা থেকে ব্যারিকেড সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ফলে যাতায়াত করতে পারছে মানুষ। এ ছাড়া টেলিফোনের ল্যান্ডলাইনও সচল করা হয়েছে।

কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিষয়ে ৩৭০ ধারা বাতিল হওয়ার পর এই প্রথম কাশ্মীরের সরকারি অফিসগুলো থেকে পুরোপুরি সরিয়ে দেওয়া হলো জম্মু-কাশ্মীরের নিজস্ব পতাকা। আর সেই জায়গায় উড়তে শুরু করেছে ভারতের জাতীয় পতাকা। জম্মু-কাশ্মীরের প্রশাসন সূত্রে জানানো হয়েছে, এবার থেকে কাশ্মীরের সরকারি ভবনগুলোতে ভারতের জাতীয় পতাকাই দেখা যাবে।

কাশ্মীরের কর্মকর্তারা জানান, গতকাল উপত্যকার কোথাও বিক্ষোভ বা অপ্রীতিকর কোনো ঘটনা ঘটেনি। এলাকার পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ার কারণেই যোগাযোগব্যবস্থা সহজ করে দেওয়া হচ্ছে। যেসব জায়গায় এখনো টেলিফোন লাইন চালু হয়নি শিগগিরই তা চালু হয়ে যাবে বলেও জানায় প্রশাসন।

৩৭০ ধারা বাতিল হওয়ার পরও বেশ কিছুদিন কাশ্মীরে সরকারি ভবনগুলোতে তাদের নিজস্ব পতাকা লাগানো ছিল। গত সপ্তাহ থেকেই সেগুলো আস্তে আস্তে সরিয়ে দেওয়া হতে থাকে। অবশেষে গতকাল সব পতাকা সরে গিয়ে সেই জায়গায় উড়তে শুরু করল তেরঙা পতাকা।

এত দিন জম্মু-কাশ্মীরের নিজস্ব পতাকা ভারতের জাতীয় পতাকার সমমর্যাদা পেত। ১৯৫২ সাল থেকে জম্মু-কাশ্মীর সরকার আলাদা পতাকার অধিকারী হয়েছিল। অন্তর্ভুক্তি চুক্তির সঙ্গেই কাশ্মীরের তরফে পৃথক পতাকা রাখার বিষয়টিও স্থান পায়। কিন্তু ৩৭০ ধারা রদ হওয়ার পর থেকে আর সেই বিষয়টির কোনো জায়গা নেই। সূত্র : এনডিটিভি।

মন্তব্য