kalerkantho

আকাশছোঁয়া ভবনে উঠে শান্তির আহ্বান ফরাসি স্পাইডারম্যানের

হংকংয়ে বিক্ষোভকারীদের ফের সমাবেশের পরিকল্পনা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আকাশছোঁয়া ভবনে উঠে শান্তির আহ্বান ফরাসি স্পাইডারম্যানের

শান্তির বার্তা নিয়ে বহুতল ভবনে ফরাসি স্পাইডারম্যান অ্যালেইন রবার্ট। ছবি : এএফপি

ফ্রান্সের স্পাইডারম্যান হিসেবে পরিচিত অ্যালেইন রবার্ট রাজনৈতিকভাবে অস্থিতিশীল হয়ে পড়া হংকংয়ে শান্তির আহ্বান জানিয়েছেন। গতকাল শুক্রবার সকালে তিনি হংকং ও চীনের পতাকার পাশাপাশি একটি ব্যানারে হ্যান্ডশেকের ছবি নিয়ে হংকংয়ের আকাশছোঁয়া এক ভবনে তা টাঙিয়ে দেন। দুই দেশের পতাকা ও ব্যানারের মাধ্যমে তিনি হংকংয়ে শান্তির আহ্বান জানিয়েছেন। এক বিবৃতিতে অ্যালেইন রবার্ট বলেন, ‘সম্ভবত আমি এই পরিস্থিতির মধ্যে উত্তেজনা একটু কমাতে পারি। একটু হাসি ফোটাতে পারি। আর এটাই আমার আশা।’

অপরাধীদের চীনে হস্তান্তরের সুযোগ রেখে আনা বিলকে কেন্দ্র করে হংকংয়ে গত জুন মাসে শুরু হওয়া বিক্ষোভ এখনো চলছে। বিক্ষোভকারীরা এখন দেশটির প্রধান নির্বাহী ক্যারি লামের পদত্যাগ এবং গণতন্ত্র পুনর্গঠনের দাবি তুলেছে। বিক্ষোভের সময় কোনো কোনো ক্ষেত্রে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ছে বিক্ষোভকারীরা। পুলিশের লাঠিচার্জে যেমন বিক্ষোভকারীরা আহত হচ্ছে, তেমনি তারা গ্রেপ্তারের শিকার হচ্ছে। এ ছাড়া বিক্ষোভকারীদের ডাকা ধর্মঘটে লাখ লাখ কর্মজীবী মানুষ দুর্ভোগে পড়ছে। এমন পরিস্থিতিতে বিক্ষোভকারীরা আরো বড় আন্দোলনের ডাক দিয়েছে।

এদিকে হংকংয়ের বিক্ষোভ দমনে চীন শক্তি প্রয়োগের কথা চিন্তা-ভাবনা করছে। শেনঝেন প্রদেশে সামরিক বাহিনীর সদস্য এবং সশস্ত্র গাড়ি যাচ্ছে চীনের রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত সংবাদমাধ্যমে এমন ছবি ছেপেছে। তবে শক্তি প্রয়োগের বিষয়ে যুক্তরাস্ট্র বেইজিংকে সতর্ক করে দিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মানবিকভাবে পরিস্থিতি মোকাবেলার পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিংকে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে আলোচনা পরামর্শ দিয়েছেন। ট্রাম্প বলেন, ‘চিনপিং যদি বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে আলোচনায় বসে তাহলে আমি বাজি ধরে বলতে পারি ১৫ মিনিটের মধ্যে সমাধান বের হয়ে আসবে।’

 

৫৭ বছর বয়সী রবার্ট বিশ্বব্যাপী উঁচু সব ভবনে ওঠার জন্য পরিচিত এক মুখ। অন্য সব সময়ের মতো এবারও তিনি ভবনে ওঠার জন্য কোনো দড়ি বা সরঞ্জাম ব্যবহার করেননি। রবার্ট সাধারণত পূর্ব ঘোষণা এবং অনুমতি ছাড়াই এ ধরনের কসরত করে থাকেন। এর আগে চেউং কং ভবনসহ হংকংয়ের বেশ কয়েকটি ভবনে উঠেছেন তিনি। রবার্ট বলেন, ‘আমার এই কসরত শান্তির জন্য জরুরি আহ্বান।’ ৬৮ তলাবিশিষ্ট চেউং কং ভবনে উঠে রবার্ট তাঁর বিবৃতি জানান, শান্তির জন্য এবং হংকংয়ের নাগরিক ও তাদের সরকারের মধ্যে আলোচনার জন্য এটি তাঁর জরুরি আহ্বান।

হংকংয়ের উঁচু ভবনে চড়ার বিষয়ে রবার্টের ওপর গত আগস্টে দেশটির আদালত এক বছরের নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিলেন। আদালতের নিষেধাজ্ঞা থেকে তিনি মুক্তি পেয়েছেন কি না, তা এখনো পরিষ্কার নয়। এ বছরের শুরুতে ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলায় ৪৭ তলা উঁচু ভবনে চড়ার দায়ে তাঁকে আটক করা হয়েছিল।

এদিকে রবার্টের এই কসরতকে ঘিরে হংকংয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। অস্ট্রেলিয়াভিত্তিক চীনের ভিন্নমতাবলম্বী চিত্রকর বাদিউকাও টুইটারে জিজ্ঞাসা করেছেন, ‘তুমি কি সত্যিই কসাই ও স্বৈরশাসকের সঙ্গে হাত মেলাতে চাও?’

এদিকে চেউং কং ভবনের মালিক লি কা শিং এশিয়ার সেরা ধনীদের একজন তিনি। গতকাল হংকংয়ের বিভিন্ন সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন দিয়ে কয়েক সপ্তাহ ধরে চলা এই সংঘর্ষের সমাপ্তির আহ্বান জানিয়েছেন। সূত্র : এএফপি ও সিএনএন।

মন্তব্য