kalerkantho

পরমাণু অস্ত্র নিষিদ্ধের আহ্বান হিরোশিমাবাসীর

পরমাণু বোমা হামলার ৭৪ বছর

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পরমাণু অস্ত্র নিষিদ্ধের আহ্বান হিরোশিমাবাসীর

গতকাল ভোরে হিরোশিমা পিস মেমোরিয়াল পার্কে পরমাণু বোমায় হতাহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান স্থানীয়রা। ছবি : এএফপি

হিরোশিমায় পরমাণু বোমা হামলায় নিহতদের শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় স্মরণ করল জাপান। হামলার ৭৪ বছর পূর্ণ হওয়ার দিনে গতকাল হিরোশিমার শোকাভিভূত বাসিন্দারা জাপান সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে, সরকার যেন জাতিসংঘের পরমাণু চুক্তিতে স্বাক্ষর করে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে ১৯৪৫ সালের ৬ আগস্ট জাপানের হিরোশিমায় পারমাণবিক বোমা ফেলে যুক্তরাষ্ট্র। ভয়াবহ সেই বিস্ফোরণে এবং ওই বছর শেষ হওয়ার আগেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে এক লাখ ৪০ হাজার মানুষ। শুধু হিরোশিমায় নয়, একই বছরের ৯ আগস্ট জাপানের নাগাসাকিতে আরেকটি পরমাণু বোমা ফেলে মার্কিন বোমারুরা। তিন দিনের ব্যবধানে দুটি পরমাণু বোমা হামলায় বিপর্যস্ত জাপান এক সপ্তাহের মধ্যে আত্মসমর্পণ করে। ফলে ত্বরান্বিত হয় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অবসান।

ওই দুটি হামলায় যারা বেঁচে গেছে, তাদের স্থানীয় ভাষায় হাইবাকুশা বলে অভিহিত করা হয়। এ বছর মার্চ পর্যন্ত বেঁচে থাকা হাইবাকুশার সংখ্যা এক লাখ ৪৫ হাজার ৮৪৪। তাদের গড় বয়স এখন ৮২.৬৫ বছর।

পরমাণু হামলার সময়ের সঙ্গে মিলিয়ে হিরোশিমার স্থানীয় সময় গতকাল ঠিক সোয়া ৮টায় কিছুক্ষণ নীরবতা পালন করা হয়। হিরোশিমার পিস মেমোরিয়াল পার্কে আয়োজিত বার্ষিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে এটা করা হয়। এই আয়োজনে বক্তব্য দানকালে মেয়র কাজুমি মাতসুই বলেন, ‘পরমাণু বিপর্যয়ের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন একমাত্র সরকারের প্রতি আমি আহ্বান জানাচ্ছি, হাইবাকুশাদের অনুরোধ রক্ষা করে সরকার যেন টিপিএনডাব্লিউতে স্বাক্ষর ও অনুসমর্থন দেয়। ২০১৭ সালে ৭০টি দেশের স্বাক্ষরিত ট্রিটি অন দ্য প্রহিবিশন অব নিউক্লিয়ার ওয়েপনস তথা টিপিএনডাব্লিউ শীর্ষক চুক্তির প্রতি এরই মধ্যে ১২২ দেশের সমর্থন আছে। কিন্তু চুক্তি কার্যকর করার জন্য ৫০টি দেশের অনুসমর্থন প্রয়োজন। এই অনুসমর্থন নিশ্চিত করতে জাপান যেন নেতার ভূমিকা পালন করে, সেই আহ্বান জানান হিরোশিমার মেয়র কাজুমি। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।

মন্তব্য