kalerkantho

ট্রাম্পের আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করায় ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ওপর নিষেধাজ্ঞা!

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৫ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ট্রাম্পের আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করায় ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ওপর নিষেধাজ্ঞা!

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে সাক্ষাতের আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করার কারণেই ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফের ওপর ওয়াশিংটন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে বলে দাবি করেছে ইরান। গত রবিবার ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র এ কথা জানিয়ে বলেন, জারিফের ওপর নিষেধাজ্ঞা শুধুই একটি ব্যক্তিগত আক্রোশ।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের দ্য নিউ ইয়র্কার ম্যাগাজিন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, গত ১৫ জুলাই নিউ ইয়র্ক সফরকালে ট্রাম্পের পক্ষ থেকে জারিফকে হোয়াইট হাউসে যাওয়ার আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন সিনেটর রান্ড পল। কিন্তু বিষয়টি তাঁর সরকারের ওপর নির্ভর করে বলে তিনি আমন্ত্রণ এড়িয়ে যান।

ইসনা নিউজ এজেন্সি জানায়, ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আলি রুবেই বলেছেন, ট্রাম্প প্রশাসনের প্রতি অবজ্ঞা প্রদর্শন করা হয়েছে—এ ক্ষোভ থেকেই জারিফের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। তিনি বলেন, একজন সিনেটরের সঙ্গে বৈঠকের সময় তাঁকে (জারিফ) আমন্ত্রণ জানানো হয়। এর পরই জারিফের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।

এ প্রসঙ্গে ইরানের সর্বোচ্চ জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের সচিব রিয়ার অ্যাডমিরাল আলি শামখানি বলেন, বৈঠকের আমন্ত্রণ আর নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের কূটনৈতিক ব্যর্থতাই তুলে ধরছে।

কেন ট্রাম্পের কাছে যাননি জারিফ : গত শুক্রবার দ্য নিউ ইয়র্কার ম্যাগাজিনের প্রতিবেদনে বলা হয়, নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের একটি সভায় গিয়েছিলেন ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জারিফ। এক ফাঁকে ১৫ জুলাই তাঁর সঙ্গে বৈঠক করেন মার্কিন সিনেটর রান্ড পল। বেঠকটি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অনুমতিক্রমে হয়। বেঠকে ট্রাম্পের পক্ষ থেকে সিনেটর আমন্ত্রণ পৌঁছে দেন। তখন জারিফ জানান, আমন্ত্রণ রক্ষার বিষয়টি তেহরানের ওপর নির্ভর করবে।

পরে জাভেদ জারিফ ম্যাগাজিনকে বলেন, তিনি ট্রাম্পের কাছে যাননি, কারণ তাঁর কাছে মনে হয়েছে ওটা হতো শুধুই ছবি তোলার একটা উপলক্ষ এবং পরবর্তী সময়ে দুই পাতার একটি বিবৃতি দেওয়া ছাড়া আর কিছুই হতো না। সূত্র : এএফপি।

 

মন্তব্য