kalerkantho

শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে অমিত শাহর বৈঠক

কাশ্মীরে ‘সন্ত্রাসী’ হামলার সতর্কতা উপত্যকা ছাড়ছে পর্যটক-শিক্ষার্থী

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৫ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কাশ্মীরে ‘সন্ত্রাসী’ হামলার সতর্কতা উপত্যকা ছাড়ছে পর্যটক-শিক্ষার্থী

আবারও উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে কাশ্মীর উপত্যকা। ভারত সরকার সতর্ক করে জানিয়েছে, যেকোনো সময় সন্ত্রাসী হামলার শিকার হতে পারে ভূস্বর্গ বলে পরিচিত কাশ্মীর। ভারতের সতর্কতা জারির পর হাজার হাজার পর্যটক ও শিক্ষার্থী কাশ্মীর ছাড়তে শুরু করেছে। এরই মধ্যে সীমান্ত অতিক্রম করে আসা পাঁচ পাকিস্তানিকে হত্যার দাবি করেছে ভারত। তাদের মতো আরো অনেকে সম্প্রতি পাকিস্তান থেকে কাশ্মীরে প্রবেশ করেছে বলে দাবি ভারতের। যদিও পাকিস্তান পুরো বিষয়টি অস্বীকার করে অভিযোগ করেছে, সীমান্তবর্তী এলাকায় গুচ্ছবোমা ব্যবহার করেছে ভারত, যা আন্তর্জাতিক আইনে পুরোপুরি অবৈধ।

এমন এক জটিল পরিস্থিতির মধ্যে গতকাল রবিবার ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর নেতৃত্বে বৈঠকে বসেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল এবং রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালিসিস উইং (‘র’), স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা বাহিনী এবং সংশ্লিষ্ট সব বিভাগের শীর্ষ কর্মকর্তারা। কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়েই বৈঠকে বসেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। যদিও বৈঠকের বিষয়বস্তু সম্পর্কে সরকারিভাবে কিছু জানানো হয়নি।

এর আগে গত সপ্তাহেই কাশ্মীরে ৩৫ হাজার সেনা মোতায়েন করে ভারত। জম্মু ও কাশ্মীরের রাজ্য সরকার গত শুক্রবার রাতে জারি করা এক সতর্কবার্তায় ছুটি কাটাতে উপত্যকায় যাওয়া পর্যটক এবং তীর্থযাত্রীদের ‘সন্ত্রাসী হামলার হুমকি’ রয়েছে বলে গোয়েন্দা তথ্যের কথা জানিয়ে রাজ্য ছাড়ার পরামর্শ দেয়। পৃথক এক সরকারি বার্তায় ভারতের অন্য রাজ্য থেকে কাশ্মীরে পড়তে যাওয়া শিক্ষার্থীদেরও রাজ্য ছাড়তে বলা হয়। এরই মধ্যে ব্রিটেন ও জার্মানি তাদের নাগরিকদের কাশ্মীর সফর না করার ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়েছে।

বিদেশিসহ আতঙ্কিত পর্যটকরা শ্রীনগরের বিমানবন্দরে গত শনিবার ভিড় জমায়। তাদের বেশির ভাগের কাছেই ওই দিনের বিমানের টিকিট ছিল না। হামলার হুমকির কারণে একাধিক তীর্থযাত্রাও বাতিল করা হয়েছে।

এদিকে কয়েক শ শিক্ষার্থী গতকালও বাসে করে কাশ্মীর ছেড়ে যায় বলে জানিয়েছে শ্রীনগরের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব টেকনলজি। আতঙ্কের ছাপ কাশ্মীরের সাধারণ মানুষের মধ্যেও দেখা গেছে, ব্যাংকের বুথে টাকা তোলার দীর্ঘ সারির পাশাপাশি নিত্যপণ্যের দোকানগুলোতেও ভিড় দেখা গেছে।

এদিকে কাশ্মীরে ভারতীয় বাহিনীর প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল কানওয়াল জিৎ সিং ধিলন জানিয়েছেন, অমরনাথ যাত্রাপথ থেকে পাকিস্তানের স্মারকসহ একটি স্পাইনার গান ও মাইন উদ্ধার করেছেন তাঁরা।

এ ছাড়া কাশ্মীরে অনুপ্রবেশের সময় পাকিস্তানের বর্ডার অ্যাকশন টিমের (ব্যাট) পাঁচ সদস্য ভারতীয় সেনাদের গুলিতে নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে দিল্লি। তাদের মৃতদেহ ফিরিয়ে নিয়ে যেতে বলা হয়েছে পাকিস্তানকে।

পরে এক প্রতিক্রিয়ায় পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ভারতের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং গুচ্ছবোমা ব্যবহারের অভিযোগ তুলেছেন। গতকাল বিকেলে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান পরপর তিনটি টুইটে বলেন, ‘সীমান্তের ওপারে সাধারণ নাগরিকদের ওপর যে অত্যাচার চলছে এবং যে ধরনের অস্ত্রশস্ত্র ব্যবহার হচ্ছে, তা মানবাধিকার লঙ্ঘনের শামিল এবং এ ঘটনার নিন্দা করি। এতে ১৯৮৩ কনভেনশনও লঙ্ঘিত হচ্ছে।’ ইমরান বলেন, কাশ্মীরের মানুষের ভোগান্তির দীর্ঘ কালরাত্রির অবসানের সময় এসেছে। নিরাপত্তা পরিষদের চুক্তিমতো তাদের স্বতন্ত্রতার অধিকার দেওয়া উচিত। কাশ্মীর সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধানই খুলে দিতে পারে দক্ষিণ এশিয়ার শান্তি ও নিরাপত্তা পথ। এর আগে শনিবার পাকিস্তানের সামরিক মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গফুর অনুপ্রবেশের কথা অস্বীকার করে বলেন, ভারত নিজের স্বার্থসিদ্ধির জন্য অপপ্রচার চালাচ্ছে। সূত্র : এএফপি, পিটিআই।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা