kalerkantho

পারস্য উপসাগরে তৃতীয় যুদ্ধজাহাজ পাঠাচ্ছে যুক্তরাজ্য

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৮ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইরানের সঙ্গে চলমান উত্তেজনার মধ্যে পারস্য উপসাগরে তৃতীয় যুদ্ধজাহাজ পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাজ্য। গত মঙ্গলবার ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এ ঘোষণা দেয়। তবে ইরান ও পশ্চিমাদের মধ্যে যে উত্তেজনা চলছে, তার সঙ্গে এর কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করেছে দেশটি।

এর আগে পারস্য উপসাগরে ‘এইচএমএস ডানকান’ নামের যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করে যুক্তরাজ্য। এই যুদ্ধজাহাজটি শত্রুপক্ষের বিমান প্রতিরক্ষাব্যবস্থা ধ্বংসের জন্য ব্যবহার করা হয়। ‘এইচএমএস ডানকান’ পাঠানো হয় মূলত ‘এইচএমএস মনট্রোস’-এর বিকল্প হিসেবে। এ যুদ্ধজাহাজটি মেরামতের জন্য বাহরাইনের উপকূলীয় অঞ্চলে রাখা হয়েছে।

ব্রিটিশ গণমাধ্যমের উদ্ধৃতি দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, নতুন করে যে যুদ্ধজাহাজটি পাঠানো হবে, সেটির নাম ‘এইচএমএস কেন্ট’। আগামী সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে সেটি পারস্য উপসাগরের দিকে রওনা হবে।

গত সপ্তাহে ইরানের তিনটি গানবোটকে (ছোট আকারের সামরিক জাহাজ) সতর্ক করে দেয় ‘এইচএমএস মনট্রোস’। ব্রিটিশ কর্মকর্তাদের অভিযোগ, গানবোটগুলো হরমুজ প্রণালি এলাকায় তাদের একটি সুপারট্যাংকারের গতিপথে প্রতিবন্ধকতা তৈরির চেষ্টা করছিল। তবে ইরান এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, ওয়াশিংটন চায় না যে ইরানে ক্ষমতার পালাবদল ঘটুক। তবে যুক্তরাষ্ট্র এটা চায় যে ইরান যেন কখনো পরমাণু অস্ত্র তৈরি করতে না পারে। মঙ্গলবার মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা ক্ষমতার পালাবদল চাইছি না। আমরা সেটার কথা একদমই বিবেচনা করছি না।’

পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে ২০১৫ সালে ইরানের সঙ্গে করা ছয় বিশ্বশক্তির চুক্তি থেকে গত বছর হঠাৎ করে যুক্তরাষ্ট্র সরে দাঁড়ায়। পাশাপাশি তারা ইরানের ওপর, বিশেষ করে দেশটির তেল রপ্তানি ক্ষতিগ্রস্ত করার লক্ষ্যে একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে থাকে। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য