kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৮ জুলাই ২০১৯। ৩ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৪ জিলকদ ১৪৪০

ইরানে মার্কিন সামরিক ড্রোন ভূপাতিত

বিনা উসকানিতে আন্তর্জাতিক সীমানায় এ হামলা : যুক্তরাষ্ট্র

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইরানে মার্কিন সামরিক ড্রোন ভূপাতিত

ছবি: ইন্টারনেট

ইরানের আকাশসীমা লঙ্ঘন করায় দেশটির ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড বাহিনী (আইআরজিসি) যুক্তরাষ্ট্রের একটি সামরিক পর্যবেক্ষণ ড্রোন ভূপাতিত করেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দেশটির হরমুজগান প্রদেশের হরমুজ প্রণালির কাছে মিসাইল ছুড়ে ড্রোনটি ভূপাতিত করা হয়। বিশ্লেষকরা বলছেন, পারস্য উপসাগরের কৌশলগত সমুদ্রপথে দুই দেশের সাম্প্রতিক উত্তেজনার মধ্যে এটি প্রথম সরাসরি জড়িয়ে পড়ার ঘটনা।

আইআরজিসি জানিয়েছে, ভূপাতিত ড্রোনটি আরকিউ-৪ গ্লোবাল হক। এ নিয়ে জাতিসংঘে নালিশ জানানোর দাবি উঠেছে ইরানে। যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে নিজেদের মনুষ্যবিহীন সামরিক নজরদারি বিমান হারানোর কথা স্বীকার করা হয়েছে।

আইআরজিসি গতকাল এক বিবৃতিতে জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি একটি গ্লোবাল হক সামরিক পর্যবেক্ষণ ড্রোন ইরানের আকাশসীমা লঙ্ঘন করার পর হরমুজগান প্রদেশের সাগরের ওপর সেটি লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়। তবে তাত্ক্ষণিকভাবে ইরানি বাহিনী মনুষ্যবিহীন সামরিক বিমানটির ছবি প্রকাশ করেনি।

এই ঘটনায় আইআরজিসির প্রধান মেজর জেনারেল হোসেইন সালেমি বলেন, ড্রোন ভূপাতিত করার মধ্যে একটি পরিষ্কার বার্তা রয়েছে। তা হচ্ছে, ইরান তার সীমান্ত রক্ষা করতে পারবে। তাসনিম নিউজ এজেন্সি এ বিবৃতিতে প্রকাশ করে। সালেমি বলেন, ‘ইরান সব ধরনের বিদেশি আগ্রাসনের জবাব দিতে পারবে এবং আমরা জবাব দিচ্ছি এবং ভবিষ্যতেও দেখাব। আমরা ঘোষণা দিচ্ছি, আমরা যুদ্ধ চাই না। তবে আমরা যেকোনো যুদ্ধ ঘোষণার জবাব দিতে প্রস্তুত।’

তবে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনী বলেছে, ড্রোন ভূপাতিত করার ঘটনাটি ঘটেছে আন্তর্জাতিক জলসীমার ওপর। তারা এর নিন্দা জানিয়ে বলেছে, বিনা উসকানিতে এ হামলা চালানো হয়েছে। মার্কিন সামরিক বাহিনীর কেন্দ্রীয় কমান্ডের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ভূপাতিত করা ড্রোনটি মার্কিন নৌবাহিনীর বৃহত্তর এলাকার সামুদ্রিক পর্যবেক্ষণ (বিএএমএস-ডি) বিমান। ইরানের ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপণযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে এটিকে ভূপাতিত করা হয়। বৃহস্পতিবার (বুধবার গ্রিনিচ মান সময় ২৩টা ৩৫ মিনিটে) যখন বিমানটিকে ভূপাতিত করা হয়, তখন তা হরমুজ প্রণালির ওপর আন্তর্জাতিক আকাশসীমায় অবস্থান করছিল। বিমানটি ইরানের আকাশের ওপর ছিল তেহরানের এই দাবি মিথ্যা। মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের তথ্য মতে, মনুষ্যবিহীন বিমানটি ভূমি থেকে ১০ মাইলের বেশি ওপরে ২৪ ঘণ্টার বেশি সময় আকাশে উড়তে পারে। এর অপারেশনাল রেঞ্জ আট হাজার ২০০ নটিক্যাল মাইল।

গত বছর মে মাসে ইরানের সঙ্গে ছয় জাতির পরমাণু চুক্তি থেকে সরে যাওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্র ইরানকে চাপে রাখতে এককভাবে একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে।

সূত্র : এএফপি, বিবিসি।

মন্তব্য