kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ও টোরি দলের প্রধান নির্বাচন

প্রথম দফায় সর্বোচ্চ ভোট পেলেন বরিস জনসন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৪ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রথম দফায় সর্বোচ্চ ভোট পেলেন বরিস জনসন

ব্রিটেনে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন ও ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির প্রধান পদে নির্বাচনের প্রথম দফা ভোটাভুটিতে বিপুল ব্যবধানে এগিয়ে গেলেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও কট্টর ব্রেক্সিটপন্থী নেতা বরিস জনসন। তিনি মোট ১১৪ জন দলীয় এমপির সমর্থন পেয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীর চেয়ে ৭১ ভোট বেশি পেয়েছেন তিনি। নির্বাচনের দ্বিতীয় দফায় ভোট হবে আগামী সপ্তাহে, যাতে সর্বোচ্চ ভোট পাওয়া দুই প্রার্থী চূড়ান্ত দফায় ভোটাভুটিতে অবতীর্ণ হবেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার ব্রিটেনে ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির (টোরি দল) এমপিরা তাঁদের দলীয় প্রধান ও পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের প্রথম দফায় ভোট দেন। আইন অনুযায়ী, ক্ষমতাসীন দলের প্রধানই হন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। প্রথম দফা ভোটাভুটিতে প্রার্থী সংখ্যা ছিলেন ১০ জন। গতকাল ব্রিটিশ পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ হাউস অব কমন্সে গোপন ব্যালটে এ ভোটাভুটি হয়। পরে স্থানীয় সময় দুপুর ১টায় ফল প্রকাশ করা হয়।

প্রথম দফা ভোটাভুটিতে নির্বাচনের লড়াই থেকে বাদ পড়েছেন তিন প্রতিযোগী। তাঁরা হলেন আন্দ্রিয়া লিডসন ও ইসথার ম্যাকভি। তাঁরা ন্যূনতম ১৭ জন দলীয় এমপির ভোট পেতে ব্যর্থ হয়েছেন। নিয়ম অনুযায়ী, যেসব প্রার্থী ন্যূনতম ১৭টি বা এর চেয়ে কম ভোট পাবেন, তাঁরা পরবর্তী প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে বাদ পড়েন।

প্রথম দফা ভোটাভুটিতে বরিস জনসন পেয়েছেন ১১৪ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেরেমি হান্ট পেয়েছেন ৪৩ ভোট। তৃতীয় সর্বোচ্চ ভোট পেয়েছেন মিচেল গোভ ৩৭টি। এ ছাড়া ডমিনিক রাব ২৭ ভোট, সাজিদ জাভিদ ২৩ ভোট, হ্যাট হনকক ২০ ও ররি স্টুয়ার্ট ২০ ভোট পেয়েছেন।

ধারণা করা হচ্ছিল, বর্তমান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত সাজিদ জাভিদ প্রধান তিন প্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যে থাকবেন, যিনি এক দিন আগেও বরিস জনসনকে ‘গতকালের খবর’ বলে অভিহিত করেছিলেন। কিন্তু প্রথম দফা ভোটে কথার চমক ধরে রাখতে পারেননি তিনি। এখন দ্বিতীয় দফা ভোটের দিকে তাঁকে থাকিয়ে থাকতে হবে।

তিন প্রার্থী বাদ পড়ায় অবশিষ্ট সাত প্রার্থী আগামী সপ্তাহে দ্বিতীয় দফা ভোটের লড়াইয়ে নামবেন। সেখানে দলীয় এমপিদের সর্বোচ্চসংখ্যাক ভোট পাওয়া দুই প্রার্থীকে টোরি দলের নিবন্ধিত ভোটাররা ভোট দেবেন। সেই চূড়ান্ত দফায় দুই প্রার্থীর মধ্যে যিনি বিজয়ী হবেন, তিনিই হবে টোরি দলের প্রধান ও পরবর্তী ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। আশা করা হচ্ছে, আগামী ২২ জুলাই বর্তমান প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মের উত্তরসূরি ঘোষণা করা হবে।

গতকাল ফল ঘোষণার পর জনসন সাংবাদিকদের বলেন, ‘প্রথম দফা ব্যালটে বিজয়ী হতে পারে আমি উত্ফুল্ল। তবে লক্ষ্যে পৌঁছতে আমাদের দীর্ঘ পথ বাকি আছে।’ আরেক প্রতিদ্বন্দ্বী জেরেপি হান্ট বলেন, ‘আমি দ্বিতীয় হতে পেরে ‘উত্ফুল্ল’। তিনি খোঁচা দিয়ে বলেন, এই গুরুত্বপূর্ণ সময় একজন একনিষ্ঠ নেতাকে ডাকছে। প্রসঙ্গত, তাঁর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বরিসন জনসন হাস্যরস ও তামাশার জন্যও বিখ্যাত। যদিও প্রার্থীদের মধ্যে ব্রিটেনজুড়ে বরিসের পরিচিতিই বেশি। সূত্র : বিবিসি।

মন্তব্য