kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৬ জুলাই ২০১৯। ১ শ্রাবণ ১৪২৬। ১২ জিলকদ ১৪৪০

কাশ্মীর নিয়ে বসতে চান ইমরান, নিরুত্তর মোদি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৯ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ভারত ও পাকিস্তানের সীমান্ত সংঘাতের মূলে থাকা কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে ভারতের পুনর্নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে আবার বৈঠকের প্রস্তাব দিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। মোদি এ ব্যাপারে এখনো আশাব্যঞ্জক সাড়া দেননি।

ভারতের লোকসভা নির্বাচনে জয় পাওয়ার পর এর আগে দুইবার মোদিকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ইমরান। প্রথমবার টুইটারে এবং দ্বিতীয়বার ফোনে। হাতে হাত রেখে একসঙ্গে কাজ করে যেতে মোদির প্রতি আহ্বান জানান ইমরান। জবাবে মোদি বলেন, সন্ত্রাসমুক্ত পরিবেশ গড়ে তোলাটা আগে জরুরি।

পাকিস্তানের জিও টিভির খবরে বলা হয়েছে, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের সঙ্গে আলোচনা চেয়ে চিঠি লিখেছেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি। এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছেই কাশ্মীর নিয়ে আলোচনা চেয়ে চিঠি লিখলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ১৩ থেকে ১৪ জুন কিরগিজস্তানে বিশকেক শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিচ্ছে ভারত। সেখানে থাকছে পাকিস্তানও। তবে গত শুক্রবার ভারত জানিয়ে দিয়েছে, ওই সম্মেলনের পাশাপাশি ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে কোনো দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হবে না। ভারতের ওই ঘোষণার পরই আলোচনার প্রস্তাব এলো ইমরান খানের পক্ষ থেকে।

চিঠিতে এ প্রসঙ্গ তুলে ইমরান খান জানিয়েছেন, বিবদমান কাশ্মীর ইস্যুসহ ভারতের সঙ্গে সব সমস্যা আলোচনার মাধ্যমে মিটিয়ে নিতে আগ্রহী পাকিস্তান। দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক স্থিতিশীলতার জন্য, আঞ্চলিক উন্নতিতে এবং দুই দেশের দারিদ্র্য দূর করতে ভারত ও পাকিস্তানকে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করতে হবে। তাই সবার আগে বৈঠকে বসা জরুরি। দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার জন্য মোদিকে অভিনন্দন জানিয়ে তিনি লিখেছেন, দুই দেশের মানুষের দারিদ্র্য মোকাবেলা এবং উন্নয়নের স্বার্থে আলোচনায় বসাই একমাত্র রাস্তা। ইমরানের এই চিঠি নিয়ে অবশ্য নয়াদিল্লির তরফে এখনো কোনো প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি।

শুধু ইমরানই নন, ভারতের নবনিযুক্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করকে শুভেচ্ছা জানিয়ে গত বৃহস্পতিবার চিঠি দিয়েছেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি। চিঠিতে তিনিও ভারতের সঙ্গে আলোচনায় বসার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। দায়িত্ব পাওয়ার জন্য জয়শঙ্করকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানানোর পাশাপাশি কুরেশি তাঁর চিঠিতে লিখেছেন, ইসলামাবাদ সব গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে নয়াদিল্লির সঙ্গে কথা বলতে চায়। তবে দিল্লি প্রশাসনের একাংশ মনে করছে, এখনই অহেতুক তাড়াহুড়া করতে চাইবেন না মোদি। এতে তাঁর নিজের ঘরে ভুল বার্তা যেতে পারে। তবে সূত্রের খবর, ইমরান ও কুরেশির চিঠিকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। বিশকেকের সম্মেলন শুরু হতে বাকি আরো কয়েক দিন। এর মধ্যে পাকিস্তান আরো কিছু পদক্ষেপ নেয় কি না, সেদিকে নজর রাখছে দিল্লি। সূত্র : এনডিটিভি, আনন্দবাজার।

 

মন্তব্য