kalerkantho

রবিবার। ১৮ আগস্ট ২০১৯। ৩ ভাদ্র ১৪২৬। ১৬ জিলহজ ১৪৪০

ট্রাম্পের জামাতা কুশনার বললেন

ফিলিস্তিনিরা স্বশাসনের জন্য প্রস্তুত নয়

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৪ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জামাতা ও উপদেষ্টা জারেড কুশনার বলেছেন, ফিলিস্তিনিরা এখনো স্বশাসনের জন্য প্রস্তুত নয়। তিনি আরো বলেন, ফিলিস্তিনিরা তাঁর ওপর আস্থা রাখছে কি না, তা নিয়ে তিনি উদ্বিগ্ন নন। বরং ফিলিস্তিনিদের সিদ্ধান্তের মূল ভিত্তি হওয়া উচিত এই পরিকল্পনায় তাদের জীবনমানের উন্নতি হচ্ছে কি না। প্রত্যাশিত মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনা প্রকাশের আগে মার্কিন সংবাদবিষয়ক সাইট অ্যাক্সিওকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ মন্তব্য করেন।

কুশনারের কাছে জানতে চাওয়া হয়, ইসরায়েলি হস্তক্ষেপ ছাড়া ফিলিস্তিনিরা নিজেদের শাসন করতে পারে বলে তিনি মনে করেন কি না। এর জবাবে কুশনার বলেন, তিনি সেটা মনে করেন না। তবে আশা করা হচ্ছে, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ফিলিস্তিনিরা নিজেদের শাসন করার মতো সক্ষম হয়ে উঠবে।

গত সপ্তাহে জেরুজালেম সফরের আগে কুশনারের এই সাক্ষাৎকার রেকর্ড করে অ্যাক্সিও। পরে গত শনিবার রাতে সংবাদমাধ্যমটির ওয়েবসাইটে তা প্রকাশ করা হয়।

কুশনার বলেন, ফিলিস্তিনিদের সরকার গঠনে আত্মনিরূপণের সক্ষমতা থাকা দরকার। তবে তিনি ফিলিস্তিনিদের স্বাধীনতা বা স্বায়ত্তশাসন প্রসঙ্গে কিছু বলেননি। এর আগে অবশ্য কুশনার জানিয়েছিলেন, তাঁদের পরিকল্পনায় স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের পক্ষে সমর্থন নেই।

ফিলিস্তিনিরা যদি ইসরায়েলি সরকার ও সামারিক বাহিনী থেকে স্বাধীনতা দাবি করে, তাহলে তাঁর মন্তব্য কী—এমন প্রশ্নে কুশনার বলেন, ‘আমি মনে করি, এটি একটি প্রধান বাধা। আপনার যদি যথাযথ সরকার কাঠামো না থাকে, যথাযথ নিরাপত্তাব্যবস্থা না থাকে, যেখানে মানুষ সন্ত্রাসের আতঙ্কের মধ্যে বসবাস করে; সেখানে তা (স্বাধীনতা) ফিলিস্তিনিদেরই ক্ষতি করবে।’

ফিলিস্তিনি নেতারা এরই মধ্যে ইসরায়েলের প্রতি পক্ষপাতিত্ব করার করণে ট্রাম্প প্রশাসনের প্রকাশিতব্য এই শান্তি পরিকল্পনা প্রত্যাখ্যান করেছে। তারা ট্রাম্প প্রশাসনের ওপর আস্থা নেই বলেও জানিয়েছে।

এই প্রসঙ্গে ট্রাম্প জামাতা বলেন, ‘আমি এখানে বিশ্বস্ত হতে আসিনি।’ তিনি ফিলিস্তিনি ও তাদের নেতাদের আলাদা করে দেখতে চান বলে জানান। তিনি আশা করেন, ফিলিস্তিনি লোকজন প্রকৃত অবস্থার দিকে দৃষ্টি দেবে। এরপর তারা তাদের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। আর এই প্রক্রিয়ায় তাদের বেছে নিতে সাহায্য করবে কোনটা তাদের জন্য সঠিক পথ, উন্নত জীবন নাকি—অন্য কিছু।

প্রসঙ্গত, গত ৯ এপ্রিল ইসরায়েলের সাধারণ নির্বাচনকে সামনে রেখে ট্রাম্প প্রশাসনের শান্তি পরিকল্পনা বিলম্বিত হয়। কিন্তু নির্বাচনের পর প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর জোট নতুন সরকার গঠন করতে ব্যর্থ হলে আবারো শান্তি পরিকল্পনা প্রকাশ পিছিয়ে দেওয়া হয়। দেশটিতে দ্বিতীয় দফায় আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ধারণা করা হচ্ছে, তত দিন পর্যন্ত শান্তি পরিকল্পনা প্রকাশ স্থগিত থাকবে। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য