kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৭ রবিউস সানি ১৪৪১     

ভোট না পেলে মুসলিমদের চাকরি দেবেন না মানেকা!

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৩ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভোট না পেলে মুসলিমদের চাকরি দেবেন না মানেকা!

তাঁকে ভোট না দিলে তিনিও চাকরি দেবেন না মুসলিমদের। ভোটের প্রচারে গিয়ে কোনো রাখঢাক না রেখেই কথাটা জানিয়ে দিলেন ভারতের কেন্দ্রীয় নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রী মানেকা গান্ধী। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর ওই উসকানিমূলক মন্তব্য ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। কংগ্রেসের তরফে টুইট করে মানেকার মন্তব্যকে ‘একটা কেলেঙ্কারি’ বলে সমালোচনা করা হয়।

মানেকার এবারের নির্বাচনী আসন উত্তর প্রদেশের সুলতানপুর। শুক্রবার সুলতানপুরের তুরাব খনি গ্রামে গিয়েছিলেন মানেকা। গ্রামের বাসিন্দাদের বেশির ভাগই মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ। সেখানে একটি প্রচার সভায় ভাষণ দেওয়ার সময় মানেকা বলেন, ‘আমি চাই, মুসলিমরাও আমাকে ভোট দিক। তাদের ভোট ছাড়া আমি জিততে চাই না। তবে তাদের ভাবগতি দেখে আমি কষ্ট পেয়েছি। আমাকে যদি মুসলিমরা ভোট না দেয়, তাহলে আমিও কোনো মুসলিমকে চাকরি দিতে চাইব না। তখন কোনো মুসলিম আমার কাছে এসে চাকরি চাইলে আমাকেও ভাবতে হবে। চাকরি তো একটা চুক্তি। কিছু পেতে গেলে কিছু দিতে হয়। না হলে হয় নাকি?’

২০১৪ সালে তাঁর বহুদিনের নির্বাচন কেন্দ্র, উত্তর প্রদেশের পিলিভিটেই তাঁকে প্রার্থী করেছিল বিজেপি। মানেকা জিতে মন্ত্রী হয়েছিলেন। কিন্তু এবার তাঁর সেই বহুদিনের আসন পিলিভিট ছাড়তে হয়েছে মানেকাকে। বিজেপি এবার পিলিভিট আসনটি মানেকাপুত্র বরুণ গান্ধীকে দিয়ে মানেকাকে প্রার্থী করেছে সুলতানপুরে।

সুলতানপুরের ওই মুসলিমপ্রধান গ্রাম তুরাব খনিতে ওই দিন বেশিক্ষণ ছিলেনও না মানেকা। সমাবেশে ভাষণ দেন বড়জোর মিনিট তিনেক। সেই সময়েই তিনি বলেন, ‘মুসলিমদের বুঝতে হবে, এটা দেওয়া-নেওয়ার বিষয়। আমি আপনাদের (মুসলিম) জন্য কাজ করে যাব আর আপনারা আমাকে ভোট দেবেন না, এটা হতে পারে না। আমরা কেউই মহাত্মা গান্ধীর সন্তান নই।’ এর পরই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তাঁর নতুন নির্বাচন কেন্দ্রের ভোটারদের মনে করিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন, পিলিভিটে তিনি ভালো কাজ করেছিলেন। সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা