kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

চুক্তি ছাড়াই ব্রেক্সিটের প্রস্তুতি ইইউর

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৬ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ব্রিটেনের অস্থির ও অনিশ্চিত আচরণে বিরক্ত ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) চুক্তি ছাড়াই জোট থেকে ব্রিটেনের বের হয়ে যাওয়ার (ব্রেক্সিট) সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। ব্রিটেন অবশ্য এখনো চুক্তি ছাড়া ব্রেক্সিটে সম্মত নয়। অর্থাৎ নতুন নির্ধারিত তারিখ ১২ এপ্রিলের আগে ইইউ ও ব্রিটেন আরো নৈরাজ্যের মুখে পড়বে।

ইউরোপীয় কমিশন গতকাল সোমবার বলেছে, ‘ক্রমেই স্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে যুক্তরাজ্য আগামী ১২ এপ্রিল চুক্তি ছাড়াই ইইউ থেকে বের হয়ে যাবে। এ কারণে ইউরোপীয় কমিশন আজ (সোমবার) চুক্তি ছাড়া ব্রেক্সিটের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে।’

ব্রিটেনের ব্রেক্সিট চূড়ান্ত হওয়ার জন্য এর আগে ২৯ মার্চ পর্যন্ত সময় বেঁধে দেওয়া হয়। তবে লন্ডনের আবেদনের প্রেক্ষাপটে সেই সময় আবারও পিছিয়ে ১২ এপ্রিল নির্ধারণ করা হয়েছে। ২০১৬ সালে ইইউ ছেড়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত জানায় ব্রিটিশ জনগণ। এর পর থেকে প্রায় দুই বছর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মের সরকার ইইউর সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনার মাধ্যমে গত নভেম্বরে একটি চুক্তিতে পৌঁছে। গত তিন মাস ব্রিটিশ পার্লামেন্ট দুই দফায় সেই চুক্তি নাকচ করে দেয়। সেই একই চুক্তি নিয়ে এ সপ্তাহে আবার ব্রিটিশ এমপিদের সামনে আসার কথা মের। তবে এ যাত্রায় ফল বিপরীত কিছু হওয়ার সম্ভাবনা প্রায় নেই বললেই চলে। আবার চুক্তি ছাড়াও ইইউ ছাড়তে চান না ব্রিটিশ এমপিরা।

সব মিলিয়ে ব্রেক্সিট নিয়ে এক চরম অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। একই অনিশ্চয়তার ছায়া দেখা গেছে মের প্রধানমন্ত্রিত্ব নিয়েও।

গতকাল এক বিবৃতি ইউরোপীয় কমিশন জানায়, ‘চুক্তি ছাড়া ব্রেক্সিট যেসব সংকটের সৃষ্টি করবে তা সামাল দেওয়ার ক্ষমতা ইইউর নেই। সে চেষ্টাও তারা করবে না। প্রস্তুতির ঘাটতির জন্য যে সমস্যা তৈরি হবে তার ক্ষতিপূরণও ইইউ দেবে না।’ এতে আরো বলা হয়, ‘এই প্রস্তাবগুলো সাময়িক এবং এর সুযোগও সীমিত। এগুলো এককভাবে ইইউ গ্রহণ করেছে। এগুলো কোনো সংক্ষিপ্ত চুক্তি নয় এবং এগুলো নিয়ে ব্রিটেনের সঙ্গে ইইউর কোনো আলোচনাও হয়নি।’ সূত্র : এএফপি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা