kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

পশ্চিমবঙ্গে রাহুলের প্রচার শুরু

‘মোদি মিথ্যাবাদী, মমতার শুধুই প্রতিশ্রুতি’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘মোদি মিথ্যাবাদী, মমতার শুধুই প্রতিশ্রুতি’

‘প্রধানমন্ত্রী সারা দিন মিথ্যা কথা বলেন। প্রথমে বললেন আমি চৌকিদার, প্রধানমন্ত্রী নই। এখন বলছেন দেশের সবাই চৌকিদার। মোদিজি, সবার বাড়িতে চৌকিদার থাকে না। আপনি নীরব মোদি অনীল আম্বানি, মেহুল চোকসিদের চৌকিদার। দেশ ভক্তির কথা বলেন আর ভারতের ৩০ হাজার কোটি টাকা অনীল আম্বানিদের পাইয়ে দেন।’ লোকসভা নির্বাচনের আগে গতকাল শনিবার পশ্চিমবঙ্গের মালদহের এক জনসভায় এভাবেই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির তীব্র সমালোচনা করলেন কংগ্রেস দলের সভাপতি রাহুল গান্ধী। এদিন তিনি সমালোচনা করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়েরও। রাহুল বলেন, ‘একজন মানুষ বাংলা চালান। এটা কেন হবে? মমতাজি বাংলায়  কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেননি। কৃষকদের জন্য কিছু করেননি।’

মালদহের চাঁচলে এই জনসভার আয়োজন করা হয়। এখান থেকেই পশ্চিমবঙ্গে কংগ্রেসের হয়ে রাহুলের প্রচার শুরু হয়। এর আগে দুপুরে বিহারে একটি জনসভা করার পর সরাসরি সেখান থেকেই তিনি সরাসরি এসে পৌঁছেন মালদহে।

রাহুল বলেন, ‘একদিকে নরেন্দ্র মোদি মিথ্যা বলেন, অন্যদিকে আপনাদের মুখ্যমন্ত্রী প্রতিশ্রুতির পর প্রতিশ্রুতি দেন, কিন্তু এখানে কিছুই হওয়ার নয়। বাংলায় একনায়কতন্ত্র চলছে, জনগণের কথা কেউ শোনে না।’ রাহুল প্রশ্ন করেন, ‘একজনের কথায় কি সব চলবে? কারো কথা শোনা হবে না? মোদি-মমতা কারো কথা শোনেন না। কৃষকরা ঋণ মওকুফের দাবি তোলে, মানেন না মোদি-মমতা।’

তিনি আরো বলেন, ‘আগে আপনারা বামফ্রন্টের হাতে মার খেতেন। এখনো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেসের রাজত্বে আপনারা দুঃখে আছেন।’ এই রাজ্যে প্রতিশ্রুতির পর প্রতিশ্রুতি দেন মুখ্যমন্ত্রী, কিন্তু এখানে কিছুই হওয়ার নয়—এই ভাষাতেই তিনি সমালোচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

কংগ্রেসকর্মীদের উদ্দেশ্য করে রাহুল বলেন, ‘এখানে আমাদের পুরনো প্রার্থী আপনাদের ধোঁকা দিয়েছেন, কংগ্রেসের দুর্গে এসে কংগ্রেসকে ধোঁকা দিয়েছেন। এই ধোঁকা আপনারা ভুলবেন না, এই ধোঁকার কথা আপনারা মনে রাখুন। আপনারা মমতাজিকে জেতালেন কিন্তু যে অত্যাচার সিপিএমের সময়ে হতো, আজও সেই অত্যাচার চলছে। ওই সময় একটা সংগঠন সরকার চালাত, এখন একজন ব্যক্তির জন্য সরকার চলে।’ চাঁচলের সভামঞ্চে উপস্থিত ছিলেন জেলা ও প্রদেশ কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্ব। উপস্থিত ছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র, কংগ্রেস নেত্রী দীপা দাসমুন্সি, আবু হাসেন খান চৌধুরী, মালদহ উত্তরের কংগ্রেস প্রার্থী ঈশা খান চৌধুরী এবং কংগ্রেস নেতা গৌরব গগৈ। সূত্র : এনডিটিভি, আনন্দবাজার পত্রিকা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা