kalerkantho

বুধবার । ২৩ অক্টোবর ২০১৯। ৭ কাতির্ক ১৪২৬। ২৩ সফর ১৪৪১                 

ওআইসির প্রস্তাবের পর ভারতের জবাব

কাশ্মীর ‘কঠোরভাবে ভারতের অভ্যন্তরীণ’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কাশ্মীর ‘কঠোরভাবে ভারতের অভ্যন্তরীণ’

ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা চলছেই। গতকাল পাকিস্তানের করাচিতে ভারতবিরোধী বিক্ষোভ। ছবি : এএফপি

ভারতের কাশ্মীর নীতির সমালোচনা করল মুসলিম দেশগুলোর সংগঠন অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক অর্গানাইজেশন (ওআইসি)। ৫৭টি দেশের এ সংস্থাটি বলেছে, ২০১৬ সাল থেকে কাশ্মীরে আরো বেশি বর্বর আচরণ করছে ভারত। ভারতীয় বাহিনী অকারণে কাশ্মীরিদের আটক করে বলেও অভিযোগ করে তারা। তবে ওআইসির এ বক্তব্যের জবাবের কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছে ভারত। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বলেছেন, কাশ্মীর নীতি ভারতের একান্ত নিজস্ব বিষয়। কাশ্মীর ভারতের অংশ এবং এর নিরাপত্তাও ভারতের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার।

আবুধাবিতে ওআইসির পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সভায় শুক্রবার সন্ত্রাস প্রসঙ্গে ভারতের অবস্থান ব্যাখ্যা করেন সুষমা। নাম না করে পাকিস্তানকে কড়া আক্রমণ করে সুষমা বলেন, যেসব দেশ সন্ত্রাসকে প্রশয় দেয় তাদের বিরুদ্ধে অন্য দেশগুলোর ঐক্যবদ্ধ হওয়া উচিত। তিনি বলেন, ‘আমরা যদি মানবতাকে রক্ষা করতে চাই তাহলে যেসব দেশ সন্ত্রাসকে আশ্রয় দেয়, অর্থ সাহায্য করে তাদের এ ধরনের কাজ করা থেকে সরে আসার বার্তা দেওয়া উচিত। সন্ত্রাস এবং চরমপন্থার দুটি আলাদা নাম আছে। কিন্তু এই দুটিই ধর্মের ভুল ব্যাখ্যা করে তৈরি হয়।’

সুষমার এই ভাষণের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কাশ্মীর প্রসঙ্গে নিজেদের প্রস্তাব পেশ করে ওআইসি। ভারতের সমালোচনার পাশাপাশি পাকিস্তানের প্রশংসা করা হয় প্রস্তাবনায়। ভারতীয় বিমানবাহিনীর উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমানকে দ্রুত ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রশংসা করা হয় ওআইসির তরফে।

এ ঘটনার পরপরই নয়াদিল্লির তরফে প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভিশ কুমার। তিনি জানিয়েছেন, ‘ওআইসি যে প্রস্তাব পাস করেছে তার পরিপ্রেক্ষিতে এটাই বলার, জম্মু ও কাশ্মীর নিয়ে আমাদের অবস্থান বরাবরের মতোই স্পষ্ট। জম্মু ও কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ এবং এটি কঠোরভাবে ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়।’

এবারই প্রথম ভারতকে ইসলামিক দেশগুলোর এই সভায় ডাকা হয়েছিল। এরই মাঝে পুলওয়ামার জঙ্গি হামলার পাল্টা হিসেবে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে এয়ার স্ট্রাইক করে ভারত। তারপর ভারতকে যাতে এই সভায় ডাকা না হয় তার জন্য তদবির করে ইসলামাবাদ। তবে সেই প্রস্তাব গৃহীত হয়নি। প্রতিবাদে বৈঠকে হাজির হয়নি পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি। সূত্র : এনডিটিভি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা