kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

কাশ্মীরে হামলা

ভারতের পাশে থাকার আশ্বাস যুক্তরাষ্ট্রের

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কাশ্মীরে আত্মঘাতী গাড়িবোমা হামলায় আধাসামরিক বাহিনীর সদস্যদের হতাহতের ঘটনায় ভারতের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালকে ফোন করে মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন বলেছেন, সীমান্ত সন্ত্রাস মোকাবেলায় নিজেদের সুরক্ষিত রাখার অধিকার আছে নয়াদিল্লির।

প্রাণঘাতী এ হামলার জন্য দায়ীদের বিচারের মুখোমুখি করতে যুক্তরাষ্ট্র পাশে থাকবে বলেও বোল্টন প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। গতকাল শনিবার ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এই ফোনালাপের কথা জানিয়েছে। কয়েক দশকের মধ্যে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গিরা যত হামলা চালিয়েছে বৃহস্পতিবারের হামলাটিই এর মধ্যে সবচেয়ে প্রাণঘাতী। এদিন জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) গাড়িবহরে বিস্ফোরকবোঝাই একটি গাড়ির হামলায় অন্তত ৪৪ জন আধাসামরিক জওয়ান নিহত হয়।

হামলার সময় পুলওয়ামা জেলার শ্রীনগর-অনন্তনাগ মহাসড়কের ওপর দিয়ে জম্মু থেকে শ্রীনগরে যাচ্ছিল সিআরপিএফের গাড়িবহরটি। জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ হামলার দায় স্বীকার করেছে। পাকিস্তান তার দেশে ক্রিয়াশীল এ জঙ্গিগোষ্ঠীকে নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ বলে দীর্ঘদিন ধরেই দাবি করে আসছে নয়াদিল্লি। জইশ-ই-মোহম্মদের ওপর আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞাও চেয়ে আসছে তারা। জঙ্গিগোষ্ঠীটির নেতা মাসুদ আজহারকে সন্ত্রাসীর তালিকায় রাখতেও ভারত অনেক দিন ধরেই জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে চাপ দিয়ে আসছে।

বিবৃতিতে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, ‘ভারত, যুক্তরাষ্ট্র এবং এ অঞ্চলের অন্যদের ওপর হামলা চালানো জইশ-ই-মোহাম্মদ ও বিভিন্ন সন্ত্রাসীগোষ্ঠী পাকিস্তানে যে নিরাপদ আশ্রয়স্থল পেয়ে আসছে, তা নির্মূলে একসঙ্গে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন দুই জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা।’ পাকিস্তান বৃহস্পতিবারের হামলার কোনো ধরনের দায় নিতে অস্বীকার করেছে। ঘটনার পর ভারত পাকিস্তানকে দেওয়া ‘মোস্ট ফেভারড নেশনের’ তকমাও তুলে নিয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির বিভিন্ন গণমাধ্যম। সূত্র : রয়টার্স।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা