kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৪ অক্টোবর ২০১৯। ৮ কাতির্ক ১৪২৬। ২৪ সফর ১৪৪১       

জাতীয় গোয়েন্দা কৌশল প্রতিবেদন

যুক্তরাষ্ট্রের জন্য বড় হুমকি চীন, রাশিয়া

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৪ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



যুক্তরাষ্ট্রের জন্য বড় হুমকি চীন, রাশিয়া

রাশিয়ার প্রভাব বৃদ্ধির চেষ্টা এবং চীনের সামরিক বাহিনীর আধুনিকায়নকে নিজেদের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি বলে মনে করে যুক্তরাষ্ট্র। গত মঙ্গলবার প্রকাশিত এক গোয়েন্দা প্রতিবেদনে এমন মতামতই প্রকাশ করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় গোয়েন্দা কৌশল শীর্ষক এ প্রতিবেদনে বলা হয়, ইরান ও উত্তর কোরিয়ার পরমাণু বোমা বানানোর আকাঙ্ক্ষাকেও হুমকি হিসেবে দেখা হয়েছে। তবে তাদের মাত্রা আগের চেয়ে কমেছে।

সাধারণত চার বছর পর পর এ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। এতে বিশ্বজুড়ে চলমান রাজনৈতিক অচলাবস্থা এবং ক্রমেই শক্তিশালী হয়ে ওঠা সাইবার সক্ষমতাকেই হুমকি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এই প্রতিবেদনে মার্কিন গোয়েন্দা সম্প্রদায়ের বিভিন্ন সংস্থার জন্য সর্বাগ্রে বিবেচনাযোগ্য বিষয় নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র ‘জটিল থেকে জটিলতর হয়ে ওঠা অনিশ্চিত বিশ্বের মোকাবেলা করছে। যেখানে পরস্পর সম্পর্কিত বিচিত্র হুমকির মুখে পড়তে হচ্ছে তাদের।’

জাতীয় গোয়েন্দা পরিচালক ড্যান কোটস এই প্রতিবেদনের সঙ্গে প্রকাশিত এক বার্তায় বলেছেন, ‘আমরা অভ্যন্তরীণ ও বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তনের মোকাবেলা করছি। আমাদের একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। যেসব হুমকি ও সুযোগ আমাদের সামনে রয়েছে সেগুলোকে চিনতে হবে।’ তিনি আরো বলেন, ‘গোয়েন্দা সম্প্রদায়কে অবশ্যই তাদের সংস্থাগুলোর মধ্যে যোগাযোগ বাড়াতে এবং সমন্বয় করতে হবে।’

প্রতিবেদনে হুমকিগুলোর স্তর নির্ধারণ করা হয়নি। তবে প্রথম দিকে যুক্তরাষ্ট্রের ‘ঐতিহাসিক শত্রুদের’ কথা তুলে ধরে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধপরবর্তী আন্তর্জাতিক অঙ্গনের দুর্বলতার বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, রাশিয়া তার প্রভাব ও কর্তৃত্ব বাড়ানোর চেষ্টা করছে। এই চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। তারা হয়তো কয়েকটি অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের লক্ষ্য ও অগ্রাধিকারের বিষয়গুলোতে সাংঘর্ষিক অবস্থান নেবে। কোটস আরো বলেন, গোয়েন্দা সম্প্রদায় কখনোই সত্য অনুসন্ধান থেকে বিরত হবে না। যখনই তারা সত্যের সন্ধান পাবে তা প্রকাশ করবে। তিনি আরো বলেন, ১৭টি গোয়েন্দা সংস্থা মার্কিন জনগণ ও আইন প্রণেতাদের বিশ্বাস অর্জন ও তা ধরে রাখতে আরো স্বচ্ছতার সঙ্গে কাজ করার পরিকল্পনা করছে।

গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর প্রতিবেদন অবশ্য অতীতে বেশ কয়েকবারই নাকচ করে দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ২০১৬ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ এবং সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যায় সৌদি আরবের ভূমিকার বিষয়ে যে প্রতিবেদন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো তৈরি করে তার সঙ্গে একমত পোষণ করেননি ট্রাম্প। বিষয়টি নিয়ে গত মঙ্গলবার প্রকাশিত প্রতিবেদনে কোনো মন্তব্য করা হয়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক জ্যেষ্ঠ গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, ২০১৩ সালে এডওয়ার্ড স্নোডেন যুক্তরাষ্ট্রের যে গোপন কূটনৈতিক তথ্যগুলো ফাঁস করেন তার পরিপ্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্র যে ভাবমূর্তি সংকটে পড়ে তা উদ্ধারের স্বার্থেই আরো স্বচ্ছভাবে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেক কর্মকর্তা জানান, প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে প্রভাব বাড়ানোর লক্ষ্যে চীন সামরিক বাহিনীর আধুনিকায়ন করছে। এতে বলা হয়, বহু বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রে পড়ালেখার জন্য বহু শিক্ষার্থী পাঠিয়েছে চীন। এখন তারা সেটারই সুফল ভোগ করছে। তারা দীর্ঘদিন ধরেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি কিনেছে বা চুরি করেছে। ‘সময় হাতে নিয়ে পরিকল্পনা করে’ এগিয়েছে বেইজিং। এখন দুর্দান্তভাবে এর ফল পাচ্ছে তারা। সূত্র : এপি, এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা