kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

‘কোহেনকে দিয়ে মিথ্যা বলিয়েছিলেন ট্রাম্প’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২০ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর ব্যক্তিগত সাবেক আইনজীবী মাইকেল কোহেনকে দিয়ে মার্কিন কংগ্রেসে মিথ্যা বলিয়েছিলেন। মার্কিন গণমাধ্যম বাজফিড নিউজের এমন খবরের পর বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন ডেমোক্র্যাট নেতারা।

গত বৃহস্পতিবার বাজফিড নিউজে বলা হয়, ট্রাম্প মস্কোয় ট্রাম্প টাওয়ার স্থাপনের পরিকল্পনার ব্যাপারে কোহেনকে কংগ্রেসে মিথ্যা বলার নির্দেশ দিয়েছিলেন। ট্রাম্প টাওয়ারের বিষয়টি নিয়ে তদন্তে জড়িত দুই আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তার বরাত দিয়ে বাজফিড এ খবর প্রকাশ করে। গত মাসে এ মামলাতেই দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন কোহেন।

বাজফিডের বোমা ফাটানো ওই খবরের পর ট্রাম্প তাঁর সাবেক আইনজীবী কোহেনকেই পাল্টা দোষারোপ করেছেন। বলেছেন, ‘কোহেন তাঁর সাজা কম করার জন্যই মস্কো প্রকল্প নিয়ে এমন মিথ্যা কথা বলেছেন।’

ওদিকে ট্রাম্পের আইনজীবী রুডি গিউলিয়ানি ‘কোহেনকে দিয়ে ট্রাম্পের মিথ্যা বলানো’র অভিযোগটি অসত্য বলে মন্তব্য করেছেন। তবে মার্কিন হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের ডেমোক্রেটিক দলের নেতৃস্থানীয় রাজনীতিবিদরা গত শুক্রবার বলেছেন, বাজফিডের অভিযোগ তাঁরা খতিয়ে দেখবেন। ট্রাম্প আইন ভঙ্গ করেছেন কি না, তা যাচাই করে দেখা হবে। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে চায় মার্কিন সিনেটের গোয়েন্দা কমিটিও।

কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদের বিচার বিভাগীয় চেয়ারম্যান জেরি নাডলার গত শুক্রবার সকালে এক টুইটে বলেছেন, ‘অধীন কর্মচারীকে কংগ্রেসে মিথ্যা বলতে বলাটা গুরুতর অপরাধ। হাউসের বিচার বিভাগীয় কমিটির কাজ হচ্ছে বিষয়টি তলিয়ে দেখা। আমরা সে কাজটিই করব।’ হাউসের গোয়েন্দাবিষয়ক পারমানেন্ট সিলেক্ট কমিটির চেয়ারম্যান অ্যাডাম শিফও বলেছেন, তাঁর কমিটি বিষয়টি খতিয়ে দেখবে।

বাজফিডের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মস্কো টাওয়ার প্রকল্পের পরিকল্পনা নিয়ে কোহেনের কাছ থেকে নিয়মিত বিস্তারিত তথ্য পেয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প, তাঁর মেয়ে ইভাংকা ট্রাম্প এবং তাঁর ছেলে ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র। যদিও ওই সময়ই ট্রাম্প রাশিয়ার সঙ্গে কোনো ব্যাবসায়িক সম্পর্ক থাকার কথা অস্বীকার করেছিলেন। সূত্র : বিবিসি, রয়টার্স।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা