kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

দেয়াল নির্মাণ

আবারও জরুরি অবস্থা জারির হুমকি ট্রাম্পের

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণে প্রয়োজনীয় অর্থ সংগ্রহের লক্ষ্যে আবারও জাতীয় জরুরি অবস্থা জারির হুমকি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এই তহবিলে অর্থ জোগাড়ের জন্য ইতিমধ্যেই দেশকে আংশিক অচলাবস্থার দিকে ঠেলে দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। গত ২১ দিন ধরে যুক্তরাষ্ট্র সরকার আংশিকভাবে অচল হয়ে আছে। তবে এরপরও কংগ্রেসে ডেমোক্রেটিক পার্টিকে অর্থ বরাদ্দে রাজি করাতে না পেরে আবারও এ হুমকি দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

জরুরি অবস্থা জারি করা হলে ট্রাম্পের পক্ষে কংগ্রেসকে এড়িয়েই দেয়াল নির্মাণের জন্য অর্থ সংগ্রহ সম্ভব হবে। সে ক্ষেত্রে তিনি সামরিক খাত থেকে অর্থ নিয়ে দেয়ালে বরাদ্দ দিতে পারবেন ট্রাম্প। তাঁর নির্বাচনী প্রচারে অন্যতম প্রধান প্রতিশ্রুতি ছিল মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণ। তবে শেষ পর্যন্ত এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললে আদালতে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বেন তিনি।

ডোনাল্ড ট্রাম্প গত বৃহস্পতিবার ফক্স নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, তাঁর ‘জাতীয় জরুরি অবস্থা জারির পুরোপুরি অধিকার রয়েছে।’ তবে জানান, এ ক্ষেত্রে আরো কিছুটা সময় নিতে চান তিনি। দেখা যাক ‘আগামী কয়েক দিনে’ কী হয়। বিশ্লেষকরা অবশ্য বলছেন, জরুরি অবস্থা জারি করলেই তার বৈধতা নিয়ে আদালতের দারস্থ হওয়া যাবে। সে ক্ষেত্রেও প্রতিবন্ধকতার মুখে পড়বে ট্রাম্পের শখের দেয়াল।

তবে তেমন পরিস্থিতি হলে ট্রাম্প তাঁর সমর্থকদের অন্তত এটুকু বলতে পারবেন যে তাঁর পক্ষে সম্ভব সবটুকুই করেছেন তিনি। সে ক্ষেত্রে তিনি সরকারের অচলাবস্থার সমাপ্তি ঘোষণা করে তাঁর জেদই জয়ী হয়েছে বলে দাবি করতে পারেন। যুক্তরাষ্ট্র সরকারের আংশিক অচলাবস্থার আজ শনিবার ২২ দিন পূর্ণ হচ্ছে।

নির্বাচনী প্রচারে দেওয়া প্রতিশ্রুতি পূরণে ট্রাম্প মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণে কংগ্রেসের কাছে সীমান্ত নিরাপত্তা বাবদ ৫৭০ কোটি ডলার চান। জানুয়ারি থেকে হাউসের নিয়ন্ত্রণ নেওয়া ডেমোক্র্যাটরা অবশ্য শুরু থেকেই এর বিরোধিতা করে আসছেন। এ নিয়ে মতবিরোধে অর্থ বিল অনুমোদিত না হওয়ায় গত মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন বিভাগ ও সংস্থার কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। ফলে প্রায় আট লাখ কর্মচারীর বেতন-ভাতা বন্ধ হয়ে গেছে।

ট্রাম্প গত বৃহস্পতিবার মেক্সিকো সীমান্ত পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি আবারও সতর্কতা উচ্চারণ করে বলেন, খুনি ও সন্ত্রাসীতে দেশ ভরে যাচ্ছে। ট্রাম্প তাঁর স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতে বলেন, এসব সন্ত্রাসী ও খুনিদের ঠেকাতে হলে মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণ অত্যন্ত জরুরি।

তবে ডেমোক্র্যাটরা তাঁর সঙ্গে একমত নন। তাঁরা মনে করেন, অবৈধ অভিবাসীরা গুরুতর অপরাধের সঙ্গে জড়িত নয়। ট্রাম্প তাঁর অতি দক্ষিণপন্থী সমর্থকদের খুশি করতেই এ পদক্ষেপ নিয়েছেন। ট্রাম্পের দাবি, অবৈধ অভিবাসীদের অপরাধের কারণে দেশের উত্তরাঞ্চলে অপরাধপ্রবণতা বাড়ছে। তবে গ্রহণযোগ্য বেশ কয়েকটি সমীক্ষায় দেখা গেছে অভিবাসীদের চাইতে যুক্তরাষ্ট্রে জন্মগ্রহণকারী নাগরিকরা অনেক বেশি অপরাধ করে থাকে।

এর আগে সরকারের চলমান অচলাবস্থা নিরসনে ডেমোক্রেটিক পার্টির শীর্ষস্থানীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন ট্রাম্প। তবে তা সফল হয়নি। ডেমোক্র্যাটরা দেয়াল নির্মাণে অর্থ দিতে রাজি না হওয়ায় মাত্র ১৪ মিনিটের মাথায় বৈঠক ছেড়ে বের হয়ে যান ট্রাম্প। ফলে দুই পক্ষের মধ্যে সমঝোতার সম্ভাবনা আপাতত আর নেই। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা