kalerkantho

বুধবার। ১৯ জুন ২০১৯। ৫ আষাঢ় ১৪২৬। ১৫ শাওয়াল ১৪৪০

ট্রাম্প-উন বৈঠক যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনের পর

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১১ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে তাঁর দ্বিতীয় বৈঠক খুব বেশি দূরে নয়। নভেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনের পরেই এটি হতে যাচ্ছে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। তবে বৈঠকটি সম্ভবত সিঙ্গাপুরে হবে না। তাঁদের আলোচনায় এ মুহূর্তে তিন-চারটি স্থানের নাম আছে। এর মধ্য থেকেই চূড়ান্ত করা হবে। গত জুনে ট্রাম্প ও উনের মধ্যে ঐতিহাসিক প্রথম বৈঠকটি সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত হয়।

গতকাল বুধবার হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের ট্রাম্প বলেন, উনের সঙ্গে পরবর্তী বৈঠকের তারিখ এগিয়ে আনা হয়েছে। বৈঠকের জন্য তিন-চারটি স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে এবারের বৈঠক সম্ভবত সিঙ্গাপুরে হবে না।

ট্রাম্প ও উন বর্তমানে উত্তর কোরিয়ার পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ কর্মসূচির পাশাপাশি ওয়াশিংটন ও পিয়ংইয়ংয়ের মধ্যে শত্রুতার অবসান নিয়ে আলোচনা করছেন। বৈঠকের সম্ভাব্য সময় সম্পর্কে ট্রাম্প বলেছেন, ‘আমাদের পরবর্তী বৈঠক খুব বেশি দূরে নয়। ৬ নভেম্বর মধ্যবর্তী নির্বাচনের পর এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।’ ট্রাম্প আরো বলেন, ‘আমাদের পরবর্তী বৈঠকের স্থান চূড়ান্ত হয়নি। এটি যুক্তরাষ্ট্রেও হতে পারে। এমনকি তাদের দেশেও হতে পারে।’

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও গত সোমবার পিয়ংইয়ংয়েও পরবর্তী বৈঠক নিয়ে আলোচনা করেন। হোয়াইট হাউসে এ বিষয়ে পম্পেও বলেন, ‘আমি গত রাতে উত্তর কোরিয়া থেকে ফিরেছি। সেখানে আমাদের আলোচনা সত্যিকারভাবে ফলপ্রসূ হয়েছে। যদিও এখনো আমাদের অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে, আমাদের অনেক কাজ করতে হবে। তবে এখন আমরা একটা পথ দেখতে পাচ্ছি, যেখানে আমরা চূড়ান্তভাবে কিছু একটা অর্জন করতে পারব। আর সেটাই হবে উত্তর কোরিয়ার পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের চূড়ান্ত ও শেষ ধাপ। আমরা অল্প সময়ের মধ্যে জানতে পারব, উনের সঙ্গে কখন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বৈঠক করবেন।’

এদিকে দক্ষিণ কোরিয়া উত্তর কোরিয়ার ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা কিছুটা শিথিল করার কথা বিবেচনা করছে। দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক উন্নয়ন এবং পারমাণবিক সংকট মোকাবেলায় দুই দেশের কূটনৈতিক আলোচনার পরিবেশ তৈরির উদ্দেশ্যে এটি করা হয়েছে বলে গতকাল দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য