kalerkantho

শনিবার । ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৬ রবিউস সানি               

নেপালে ৯ বছরে বাঘের সংখ্যা বেড়ে দ্বিগুণ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নেপালে ৯ বছরে বাঘের সংখ্যা বেড়ে দ্বিগুণ

নেপালে গত ৯ বছরে বন্য বাঘের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। গতকাল সোমবার দেশটির কর্তৃপক্ষ এ তথ্য জানিয়েছে। বন্য প্রাণী রক্ষা আন্দোলনকর্মীরা এই সংবাদকে স্বাগত জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে তাঁরা বলেছেন, রাজনৈতিক সদিচ্ছা এবং উদ্ভাবনী সংরক্ষণ কৌশল দেশের এই সম্পদ রয়েল বেঙ্গল টাইগারের হ্রাস ঠেকাতে পারে।

জরিপের তথ্য অনুসারে ২০০৯ সালে নেপালে ১২১টি বাঘ ছিল। সে সংখ্যা বেড়ে এ বছরে ২৩৫-এ দাঁড়িয়েছে। এ বছরের শুরুতে বাঘ গণনার কাজে সংরক্ষণবাদী এবং বন্য প্রাণী বিশেষজ্ঞরা চার হাজারেরও বেশি ক্যামেরা ব্যবহার করেছেন। এ ছাড়া নেপালের দক্ষিণাঞ্চলের সমতলের যেসব এলাকায় বাঘ ঘোরাঘুরি করে সেসব এলাকায় প্রায় ৬০০ হাতি নিয়ে দুই হাজার ৭০০ কিলোমিটার পথ প্রদক্ষিণ করেছে তারা। নেপালের জাতীয় পার্ক ও বন্য প্রাণী সংরক্ষণ বিভাগের পরিচালক মান বাহাদুর খাড়া বলেছেন, সরকারের পাশাপাশি স্থানীয় সম্প্রদায় এবং বাঘের আবাসস্থল সংরক্ষণ ও বাঘ শিকারের বিরুদ্ধে সোচ্চার অন্যান্য সম্প্রদায়ের একত্রিত চেষ্টার ফলে এমন স্বস্তির খবর এসেছে।’ ডাব্লিউডাব্লিউএফের নেপালের প্রতিনিধি ঘানা গুরুং বলেন, ‘দেশের বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধি বিশ্বব্যাপী বাঘ সংরক্ষণের একটা উদাহরণ। বাঘকে বেশি সময় বাঁচিয়ে রাখা ও তাদের আবাসস্থল রক্ষা করাই আমাদের সামনে সবচেয়ে বড় কাজ।’

বন-জঙ্গল উজাড়, বাঘের আবাসস্থল ধ্বংস এবং শিকারের কারণে এশিয়ায় ব্যাপকভাবে বাঘের সংখ্যা কমে যায়। কিন্তু ২০১০ সালে নেপাল এবং আরো ১২টি দেশ ২০২২ সালের মধ্যে বাঘের সংখ্যা দ্বিগুণ করার বিষয়ে চুক্তি করে। ‘২০১০ টাইগার কনজারভেশন প্ল্যান’ নামের প্রকল্পে টাইটানিক চলচ্চিত্রের অভিনেতা লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও যুক্ত হয়েছিলেন। এই পরিকল্পনার ফলে দ্রুত ভালো সংবাদ আসতে শুরু করে। ২০১৬ সালে ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ডলাইফ ফান্ড এবং দ্য গ্লোবাল টাইগার ফোরাম ঘোষণা করে এক শতাব্দীরও বেশি সময় পর বাঘের সংখ্যা বেড়ে চলেছে।

জরিপের তথ্য অনুসারে ১৯০০ সালে বিশ্বব্যাপী এক লাখেরও বেশি বাঘ ছিল। ২০১০ সালে সেই সংখ্যাটা অবিশ্বাস্যভাবে কম আসে। বিভিন্ন কারণে বাঘের সংখ্যা কমে সে সময়ে মাত্র তিন হাজার ২০০ হয়ে গিয়েছিল। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা