kalerkantho


বিজেপির ওয়াক আউট

আস্থা ভোটে সহজ জয় কুমারস্বামীর

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৬ মে, ২০১৮ ০০:০০



আস্থা ভোটে সহজ জয় কুমারস্বামীর

ভারতের কর্ণাটক রাজ্যে রাজনৈতিক নাটকের আপাত সমাপ্তি ঘটল। ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ওয়াক আউট করায় গতকাল শুক্রবার কর্ণাটক বিধানসভার আস্থা ভোটে সহজ জয় পেলেন এইচ ডি কুমারস্বামী। যদিও এর মধ্যেই বিজেপি নেতা ইয়েদুরাপ্পা হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। কুমারস্বামীর উদ্দেশে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে তিনি বলেছেন, ‘দেখি কত দিন আপনি ক্ষমতায় থাকতে পারেন।’ এটুকু বাদ দিলে কর্ণাটক বিধানসভায় গতকাল উত্তেজনা ছিল না বিন্দুমাত্র।

কংগ্রেস ও জেডি(এস) জোটের আশঙ্কা ছিল, শেষ মুহূর্তে হলেও দল ভাঙানোর চেষ্টা করতে পারে বিজেপি। এ জন্য দলের বিধায়কদের তারা রীতিমতো আগলে রেখেছিল। কুমারস্বামীর সমর্থনে গতকাল মোট ১১৭ জন বিধায়ক ভোট দেন। এই কংগ্রেস-জেডিএস জোট সরকার পাঁচ বছর পর্যন্ত স্থায়ী হবে বলে দাবি করেছেন কুমারস্বামী।

গতকাল প্রাথমিকভাবে স্পিকার পদে কংগ্রেসের কে আর রমেশ কুমারের বিরুদ্ধে বিজেপি সুরেশ কুমারকে প্রার্থী করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। কিন্তু পরিস্থিতি অনুকূল নয় বুঝে সুরেশ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। ফলে প্রতিযোগিতা ছাড়াই কর্ণাটক বিধানসভায় স্পিকার পদটি পেয়ে গেছে কংগ্রেস। আস্থা ভোটের ঠিক আগে সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ইয়েদুরাপ্পার নেতৃত্বে অধিবেশনকক্ষ ছাড়েন বিজেপি বিধায়করা। তার আগে কর্ণাটক বিধানসভার বিরোধী দলনেতা হিসেবে নির্বাচিত হন ইয়েদুরাপ্পা। কিন্তু এইচ ডি কুমারস্বামী কি পুরো সময়ের জন্য মুখ্যমন্ত্রী পদে থাকবেন কি না—এ সংশয় গতকাল আস্থা ভোটের আগে নতুন করে উসকে দিয়েছেন রাজ্যের উপমুখ্যমন্ত্রী তথা রাজ্যের প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি জি পরমেশ্বর। তিনি জানিয়ে দিয়েছেন, বিষয়টি নিয়ে এখনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। তিনি বলেছেন, ‘টানা পাঁচ বছর এইচডি কুমারস্বামী মুখ্যমন্ত্রী থাকবেন কি না, তা এখনো স্থির হয়নি। কোন মন্ত্রী কোন দপ্তর পাবেন, এখনো ঠিক হয়নি। সব খুঁটিনাটি চূড়ান্ত হওয়া এখনো বাকি। তারপর আসছে পাঁচ বছরের সময়সীমার কথা। শুধু ওরাই মুখ্যমন্ত্রিত্ব পাবে নাকি আমরাও থাকব এসব নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়নি এখনো।’

এদিকে জেডি(এস) এবং কংগ্রেস জানিয়েছে, কর্ণাটকে সুশাসনের লক্ষ্যে কাজ করা হবে। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী পদ নিয়ে দুই দলের মধ্যে যে টানাপড়েন রয়েছে, সেটা তাদের কথা থেকেই স্পষ্ট হয়ে গেছে। সূত্র : পিটিআই।


মন্তব্য