kalerkantho

শুক্রবার । ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৫ জুন ২০২০। ১২ শাওয়াল ১৪৪১

সেনাবাহিনী আসতেই দৌড়ে পালাল ক্রেতা-বিক্রেতারা

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি   

২ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সেনাবাহিনী আসতেই দৌড়ে পালাল ক্রেতা-বিক্রেতারা

পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলা সদরের বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনার জন্য মানুষের আনাগোনা। ছবিটি গতকাল দুপুরে তোলা। ছবি : কালের কণ্ঠ

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় সবচেয়ে বড় জনসমাগম ঘটে পৌর শহরের শরত্নগর হাটে। সপ্তাহের শনি ও বুধবার এই হাট বসে। হাটে হাজারো লোক জড়ো হয়। করোনাভাইরাসের উদ্ভূত পরিস্থিতিতে দেশের সব হাট-বাজার বন্ধ রাখার কথা থাকলেও গতকাল বুধবারও পৌর শহরে শরত্নগর হাট বসে। খবর পেয়ে ভাঙ্গুড়া থানা পুলিশ ও ভাঙ্গুড়া পৌর কর্তৃপক্ষ দোকান বন্ধ করার পাশাপাশি হাটে আসা মানুষজনকে বাজার ত্যাগ করার অনুরোধ জানায়। কিন্তু এই কথায় কেউ সাড়া দেয়নি। বিষয়টি পাবনা শহরে অবস্থানরত সেনাসদস্যদের জানানো হয়। পরে দুপুর ১২টার দিকে সেনাসদস্যদের হাটে আসার খবর পেয়ে ক্রেতা-বিক্রেতা সবাই দ্রুত বাজার ত্যাগ করে।

জানা গেছে, উপজেলার সব হাট-বাজারেই এখনো জনসমাগম অব্যাহত রয়েছে। অনেকে বাজারে আসে আড্ডা দিতে। সরকারি নিষেধাজ্ঞার প্রথম দিকে উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশ এসব বাজারে টহল দিলে লোকসমাগম কম হতো। কিন্তু পরবর্তী সময়ে পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসনের টহল না থাকায় লোকজন আবারও বাজারমুখী হতে শুরু করে।

ভাঙ্গুড়া পৌরসভার মেয়র গোলাম হাসনাইন রাসেল বলেন, ‘মানুষকে ঘরে রাখতে অনেক চেষ্টা করেছি। ব্যবসায়ীদের কয়েকটা দিনের জন্য ব্যবসা বন্ধ রাখতে বলেছি। করোনার বিস্তার হলে কী ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হবে—সে সম্বন্ধে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে প্রচার-প্রচারণা চালানো হচ্ছে। এর পরও অনেকে নির্দেশনা মেনে চলছে না। এ নিয়ে খুব উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছি।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ আশরাফুজ্জামান বলেন, হাট-বাজারে জনসমাগম ঠেকাতে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা ও থানা পুলিশ প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে। এর পরও অনেকে নির্দেশ অমান্য করে হাট-বাজারে যাচ্ছে। তবে প্রশাসন অভিযান চালিয়ে এসব হাট-বাজার বন্ধ করে দিচ্ছে। গতকাল উপজেলার সর্ববৃহৎ শরত্নগর হাট বসেছিল। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে হাট ভেঙে দেয়। পরে তারা বাজারের পাশের আরেকটি রাস্তায় গিয়ে হাট বসায়। সেখানেও পুলিশ অভিযান চালায়।

তবে সেনাবাহিনী প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে ক্রেতা-বিক্রেতারা বাজার ত্যাগ করে। উপজেলার সব হাট-বাজার বন্ধ করতে আগামীকাল (আজ) থেকে নজরদারি বাড়ানো হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা