kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ আশ্বিন ১৪২৮। ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৩ সফর ১৪৪৩

নমুনা ভাইভা

‘বঙ্কিমের লেখা পড়েছ?’

মো. মাহমুদুল হাসান সুমন, শিক্ষা ক্যাডার (ইংরেজি), ৩৬তম বিসিএস

২৪ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



‘বঙ্কিমের লেখা পড়েছ?’

অনার্স-মাস্টার্স করেছি ইংরেজি সাহিত্যে। এটাই জীবনের প্রথম বিসিএস ভাইভা। ভাইভা বোর্ডে ১৮ থেকে ২০ মিনিটের মতো ছিলাম।

আমি : May I come in Sir?

চেয়ারম্যান : Yes, come in.

(ভেতরে প্রবেশ করে সালাম দিলাম)

চেয়ারম্যান : ওয়া আলাইকুমুস সালাম। বসো।

আমি : ধন্যবাদ, স্যার|

চেয়ারম্যান : You are Md. Mahmudul Hasan, from English department of Jagannath University, Aren’t you?

আমি : Yes, Sir You are absolutely right.

চেয়ারম্যান : Ok, Mahmudul Hasan, Suppose you are going to deliver your first lecture as an English lecturer on William Shakespeare. Deliver the lecture...

আমি : On standing or sitting?

চেয়ারম্যান : On sitting.

আমি : Good Morning, dear students. Most probably you are fine & It’s my pleasure to find myself standing before you for the first time as your new English teacher. Before going to discussion, I would like to introduce myself to you. I am Md. Mahmudul Hasan.

Dear students, In the stage of English Literature, there is a unique name who is a dramatist, actor and poet as well. If I have to mention an English writer who has greatly observed and analyzed human psychology, he is none but William Shakespeare. Most probably, you have got my lecture’s topic today, haven’t you? Of course, it is on William Shakespeare...

চেয়ারম্যান : Well enough...(অন্য পরীক্ষকদের লক্ষ্য করে ক্যাডার চয়েজ তালিকা বললেন)

পরীক্ষক-১ : Why ‘BCS administration’ is your first choice?

আমি : Sir, actually there are two reasons why I have chosen BCS administration as my first choice. First of all, it has been a dream from my school life observing the activities and social respect of a UNO in local administration.

Secondly, from the very practical point of view, This cadre is very smart, multidimensional, progressive comparing to other cadre services.

পরীক্ষক-১ : What do you mean by ‘multidimensional service’?

আমি : Sir, to be honest, I have used this term because there are many sectors where I can contribute from this cadre. There are huge opportunities to work in different positions playing different roles. Moreover, one can get opportunity to work in field level as well as central level in contributing socioeconomics development of the country. In addition, there is huge opportunity to switch to other sector on deputation.

পরীক্ষক-১ : If you are appointed in field administration, where will be your posting & whose under you will perform your duty?

আমি : In a district, I will perform my duty under a DC Sir.

পরীক্ষক-১ : Mr. Mahmudul, tell us the hierarchy of administration.

আমি : There are two types of administration in our country.

In central administration, the hierarchy is as- Assistant Secretary>Senior Assistant Secretary>Deputy Secretary>Joint Secretary>Additional Secretary>Secretary.

Again, there are two superior postions here then, Senior Secretary>Cabinet Secretary.

In local administration, the hierarchy: Assistant Commissioner>Senior Assistant Commissioner>Deputy Commissioner>Additional Divisional Commissioner>Divisional Commissioner.

পরীক্ষক-১ : একজন ডিসির কাজ কী?

আমি : প্রশাসক হিসেবে, জেলার এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে এবং ট্যাক্স কালেক্টর হিসেবে ডিসি মহোদয় সাধারণত দায়িত্ব পালন করেন।

পরীক্ষক-১ : What are the functions of UNO?

আমি : He works as a CEO of the Upazilla Parishad, works as chief administrative officer of the Upazilla, leads the all development activities of the Upazilla Parishad, plays role as magistrate, helps the police force to maintain law and order.

পরীক্ষক-২ : ইংরেজি সাহিত্যে পড়ছ, বাংলা একটু-আধটু পড়া হয় নাকি?

আমি : জি, স্যার। বাংলা সাহিত্যের প্রতি আমার বেশ আগ্রহ আছে। সুযোগ পেলেই পড়ি।

পরীক্ষক-২ : বঙ্কিমের লেখা পড়েছ?

আমি : জি, স্যার। পড়েছি।

পরীক্ষক-২ : ‘বিড়াল’ কী? পড়েছ?

আমি : (আকাশ থেকে পড়লাম) দুঃখিত, স্যার। আমি এটা পড়িনি। তবে তাঁর অন্য কিছু বই পড়েছি, স্যার।

পরীক্ষক-২ : কপালকুণ্ডলা পড়েছ? কপালকুণ্ডলার ওপর কিছু বলো...

 (বাংলা সাহিত্যের প্রথম রোমান্টিক উপন্যাস কপালকুণ্ডলা সম্পর্কে প্রাসঙ্গিক কিছু কথা বললাম। সঙ্গে জনপ্রিয় দু-তিনটি উক্তিও উল্লেখ করলাম)।

পরীক্ষক-২ : আচ্ছা, হাসান হাফিজুর রহমানের কোনো কিছু পড়েছ?

আমি : জি, স্যার। তবে তা আলোচনা করার মতো যথেষ্ট না।

পরীক্ষক-২ : ওকে...বলো তো, ‘হাজার বছর ধরে’ কার লেখা?

আমি : জহির রায়হান।

পরীক্ষক-২ : ওই যে শুরুর লাইন ‘হাজার বছর ধরে...’ কবিতাটা? কার যেন?

আমি : জীবনানন্দ দাশ।

পরীক্ষক-২ : (কবিতাটা) শোনাও তো?

(আবৃত্তি করলাম। আগে বহুবার কবিতাটি আবৃত্তি করেছি। কয়েক লাইন পরেই চেয়ারম্যান স্যার থামিয়ে দিলেন।)

চেয়ারম্যান : এসএসসি আর অনার্সে এত ভালো রেজাল্ট, কিন্তু এইচএসসিতে সেই তুলনায় খারাপ কেন?

আমি : স্যার, নিজের গাফিলতি। তা ছাড়া পরীক্ষার সময়ে কিছুটা অসুস্থও ছিলাম।

চেয়ারম্যান : তুমি এখন আসতে পারো।

আমি : ধন্যবাদ, স্যার। আসসালামু আলাইকুম।

 

            শ্রুতলিখন : এম এম মুজাহিদ উদ্দীন



সাতদিনের সেরা