kalerkantho

শুক্রবার । ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭। ১৪ আগস্ট ২০২০ । ২৩ জিলহজ ১৪৪১

নোটিশ বোর্ড

চাকরি আছে ডেস্ক   

১১ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রাথমিকে ৪০ হাজার শিক্ষক নিয়োগ শিগগিরই

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪০ হাজার শিক্ষক নিয়োগপ্রক্রিয়া শুরু হবে শিগগিরই। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরকে (ডিপিই) নির্দেশনা দিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। আগস্ট মাসে এ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হতে পারে। এবারই প্রথমবারের মতো সব প্রার্থীর ক্ষেত্রে আবেদনের যোগ্যতা স্নাতক পাস করা হয়েছে। আগে পুরুষ প্রার্থীদের আবেদনের যোগ্যতা স্নাতক পাস থাকলে নারী প্রার্থীদের বেলায় এইচএসসি ছিল।

প্রাক-প্রাথমিক স্তরে ২৬ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে। একই সঙ্গে প্রাথমিক স্তরে প্রায় ১৪ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে। সব মিলিয়ে ৪০ হাজার শিক্ষক নিয়োগ পাবে।

 

কোটামুক্ত বিসিএস

বিসিএস কোটামুক্ত হলো। ৪০তম বিসিএস থেকে আর কোটা পদ্ধতির প্রচলন থাকছে না। ২০১৮ সালে কোটা পদ্ধতি বিলোপের মাসখানেক আগে ৪০তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি হলেও এই বিসিএসে কোটা পদ্ধতি থাকছে না বলে জানিয়েছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)।

উল্লেখ্য, ১৯৭২ সালে সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতির প্রচলন শুরু হয়। পরবর্তী সময়ে বেশ কয়েকবার এই কোটা পদ্ধতিতে পরিবর্তন হয়। সর্বশেষ ৫৫ শতাংশের কোটা নির্ধারণ ছিল। এর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধা কোটা ৩০ শতাংশ, জেলাভিত্তিক কোটা ১০ শতাংশ, নারীদের জন্য ১০ শতাংশ এবং ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জন্য ৫ শতাংশ কোটা ছিল। পরে প্রতিবন্ধীদের জন্যও ১ শতাংশ কোটা নির্ধারণ করা হয়।

 

সেতু কর্তৃপক্ষে চাকরির আবেদনের সময় বেড়েছে

বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষে সহকারী পরিচালক, সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল/মেকানিক্যাল) ও সহকারী প্রগ্রামার পদে চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি গত মাসে (জুন) প্রকাশিত হয়েছে। এসব পদে আবেদনের সময়সীমা ৩০ জুলাই ২০২০ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। ৫ জুলাই এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে আরো উল্লেখ করা হয়, ‘সহকারী পরিচালক’ পদের শিক্ষাগত যোগ্যতা বা অভিজ্ঞতা কলামে ‘কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অন্যূন দ্বিতীয় শ্রেণির সম্মানসহ দ্বিতীয় শ্রেণির স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অথবা মাস্টার্স অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এমবিএ) ডিগ্রি উল্লেখ ছিল। উক্ত শিক্ষাগত যোগ্যতা মূল্যায়নের ক্ষেত্রে ‘সরকারি চাকরিতে নিয়োগের শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্ধারণ (বিশেষ বিধান) বিধিমালা, ২০০৩’ অনুযায়ী চার বছর মেয়াদি ডিগ্রিকে অনার্সসহ স্নাতকোত্তর ডিগ্রির সমতুল্য হিসেবে বিবেচনা করা হবে। তদানুযায়ী ৪ বছরের অনার্স ডিগ্রিধারীরা সহকারী পরিচালক পদে আবেদন করতে পারবেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা