kalerkantho

রবিবার । ১৯ জানুয়ারি ২০২০। ৫ মাঘ ১৪২৬। ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

বিসিএস আবেদন নিয়ে সচরাচর জিজ্ঞাসা + উত্তর

৪১তম বিসিএস আবেদন ফরম পূরণ প্রক্রিয়া অনলাইনে (bpsc.teletalk.com.bd) এরই মধ্যে শুরু হয়েছে, চলবে ৪ জানুয়ারি ২০২০ পর্যন্ত। বিসিএসের প্রথম চ্যালেঞ্জ ‘প্রিলি’ হলেও ফরম পূরণ নিয়ে প্রার্থীদের দুশ্চিন্তা কম না। প্রার্থীদের সচরাচর জিজ্ঞাসা, সমস্যা ও কমন সব কনফিউশন নিয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জবাব দিচ্ছেন ৩৫তম বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা) ক্যাডারে কর্মরত (প্রভাষক, গুরুদয়াল সরকারি কলেজ) রবিউল আলম লুইপা

৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



বিসিএস আবেদন নিয়ে সচরাচর জিজ্ঞাসা + উত্তর

অঙ্কন : মাসুম

বিসিএস আবেদন প্রক্রিয়া ও ফরম পূরণ নিয়ে প্রার্থীদের কমন কিছু জিজ্ঞাসা থাকে, এখানে কয়েকটি জিজ্ঞাসা ও তার জবাব তুলে ধরা হয়েছে—

 

বিসিএস প্রিলি ফরম পূরণে কিছু জায়গায় ভুল করেছি। এখন আমি কী করতে পারি?

—যদি আবেদন ফি জমা না দেন, তাহলে ৭২ ঘণ্টা পর এটি বাতিল হয়ে যাবে। তখন নতুন করে ফরম পূরণ করলে নতুন ইউজার আইডি পাবেন। নতুন ইউজার আইডি ব্যবহার করে টাকা জমা দেবেন। আর যদি এরই মধ্যে টাকা জমা দিয়ে থাকেন, তাহলে সাবমিট করা ফরমের ভুল আপনি সংশোধন করতে পারবেন না, শুধু সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি) করতে পারবে। ঢাকার আগারগাঁও পিএসসি ভবনের নিচতলায় হেল্প ডেস্ক আছে, সেখানে সংশোধনের জন্য আবেদন করুন।

তিন বছর মেয়াদি ডিগ্রি (পাস কোর্স) করে কি বিসিএস দেওয়া যায়?

—বিসিএসের বিজ্ঞপ্তিতে বলা আছে, এইচএসসি পাসের পর চার বছর মেয়াদি ডিগ্রি (স্নাতক) থাকতে হবে। এ অবস্থায় আপনার উপায় হচ্ছে, ডিগ্রি পাস কোর্সের পর মাস্টার্স সম্পন্ন করা।

অনার্সের চতুর্থ বর্ষ ফাইনাল যে বছর হওয়ার কথা ছিল, সেশনজটের কারণে এর এক বছর পর পরীক্ষা হয়েছে। আর ফলাফল পরের বছর। এখন যে বছর পরীক্ষা হয়েছে ‘পাসের সাল’ সে বছর দেব, নাকি যে বছর ফলাফল প্রকাশ হয়েছে সেটা দেব?

—আপনার অনার্স পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার বা ফলাফল প্রকাশের সাল যা-ই হোক না কেন, আপনার অনার্স যে সালে শেষ হওয়ার কথা ছিল এবং পরীক্ষার প্রশ্নে যে সাল উল্লেখ আছে, সেটিই আপনার পাসের বছর বলে বিবেচিত হবে। প্রকাশিত ফলাফলেও বছর উল্লেখ থাকে।

আমি যদি শুধু টেকনিক্যাল ক্যাডার ফরম পূরণ করি, তাহলে কি আমি বিসিএস থেকে নন-ক্যাডারের চাকরি পাব?

—আপনি জেনারেল/বোথ/টেকনিক্যাল—যে ক্যাডারেই আবেদন করুন না কেন, নন-ক্যাডার চাকরি পাবেন। যে নন-ক্যাডারে সুপারিশ করা হবে, তার শিক্ষাগত যোগ্যতার সঙ্গে আপনার রিকয়ারমেন্ট মিলতে হবে। যেমন—নন-ক্যাডারের থাকা সব প্রার্থী থেকে এনবিআরের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা হওয়া যাবে; কিন্তু মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হতে হলে সংশ্লিষ্ট বিষয়ধারী হতে হবে।

টেকনিক্যাল ক্যাডার ৩/৪-এর দিকে দেওয়া যায়?

—আপনি কোন সেক্টরে যেতে চান এবং আপনার ব্যক্তিত্ব, স্কিল, পঠিত বিষয় যে ক্যাডারের সঙ্গে মেলে, তার ওপর ভিত্তি করে ইচ্ছামতো ক্যাডার চয়েজ দিতে পারবেন। তবে টেকনিক্যাল বা জেনারেলের যে ক্যাডারগুলোতে প্রতিযোগিতা কম হয় তা আগে দিলে এবং বেশি প্রতিযোগিতা হয় এমন ক্যাডার পরে দিলে—পরেরটা পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে না। তবে টেকনিক্যাল ক্যাডার ভালো লাগলে এটা পছন্দক্রমের যেকোনো জায়গায় দিতে পারেন। যেমন—ব্যক্তিগতভাবে অনেক জেনারেল ক্যাডারের চেয়ে শিক্ষা ক্যাডারকে আমার বেশি ভালো লাগে। ভালো লাগাটা অনেকের ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। তাই বলব—আপনার নিজের চাওয়াকে গুরুত্ব দিন।

আমার সিজিপিএ খুব একটা ভালো না। আমি কি ‘শিক্ষা ক্যাডার’ চয়েজ দিতে পারব?

—সিজিপিএ ভালো হলে মৌখিক পরীক্ষায় বোর্ড প্রার্থীকে ভালো শিক্ষার্থী হিসেবে বিবেচনা করতেই পারে; কিন্তু তাই বলে এটা যে খুব বেশি প্রভাব ফেলে তা না। অনেকেই কম সিজিপিএ নিয়ে জেনারেল ক্যাডার বা শিক্ষা ক্যাডারে চাকরি করছেন।

আমি বিবিএ করেছি; কিন্তু বিসিএসের ফরমের গ্র্যাজুয়েশন অংশে বিবিএ নেই। অনার্স সিলেক্ট করে ফরম পূরণ করলে কী কোনো সমস্যা হবে? নাকি others সিলেক্ট করে বিবিএ উল্লেখ করে দিতে হবে?

—অনার্স সিলেক্ট করলে আপনার সংশ্লিষ্ট সাবজেক্ট শিক্ষা ক্যাডার হিসেবে আসবে। others সিলেক্ট করে বিবিএ দিলে শিক্ষা ক্যাডারের সাবজেক্ট পাবেন না। বিবিএ কিন্তু চার বছর মেয়াদি অনার্স ডিগ্রি।

এসএসসিতে আমার মায়ের নামের বানান ভুল এসেছে। তবে এইচএসসি, অনার্স, মায়ের জাতীয় পরিচয়পত্রের বানান ঠিক আছে। আমি কী এখন এ অবস্থায় আবেদন করতে পারব? নাকি আগে বানান ঠিক করাতে হবে?

—আপনি আবেদন করতে পারবেন। বিসিএস প্রিলির আবেদনে যেসব তথ্য দেবেন, পরবর্তী সময়ে লিখিত অথবা মৌখিক পরীক্ষার আগে ডকুমেন্টস চাওয়া হবে এবং আবেদনের তথ্যের সঙ্গে ডকুমেন্টসের তথ্য মিলিয়ে দেখা হবে। ডকুমেন্টস দেওয়ার আগেই ভুলগুলো সংশোধন করে ফেলতে হবে।

আমার জাতীয় পরিচয়পত্রে মা-বাবার নাম এক রকম, কিন্তু বাবা বা মায়ের জাতীয় পরিচয়পত্রে নাম অন্য রকম। এতে কি সমস্যা হবে?

—বিসিএস আবেদনের সময় শুধু আপনার তথ্য লাগলেও মৌখিক পরীক্ষার আগে বিপিএসসি-৩ ফরমে এবং সুপারিশ পাওয়ার পর পুলিশ  ভেরিফিকেশনের সময় মা-বাবার জাতীয় পরিচয়পত্র লাগবে। তাই সবার তথ্য দ্রুত সংশোধন করে ফেলুন।

আমার একটি রোগ আছে। আমি কী মেডিক্যাল টেস্টে বাদ পড়ব?

—বিসিএসের স্বাস্থ্য পরীক্ষায় বুকের এক্স-পর, দৃষ্টিশক্তি ও ইউরিন পরীক্ষা করা হয়। এসব পরীক্ষার রিপোর্টে খারাপ কিছু না এলে এবং দৃশ্যত কোনো সমস্যা না থাকলে আপনার বাদ পড়ার কথা না। আর বিসিএস এমন একটি প্রক্রিয়া—যদি আপনার মেডিক্যাল কিংবা পুলিশ ভেরিফিকেশন রিপোর্টে খারাপও কিছু আসে এবং পরে যদি নিজের অবস্থা স্বাভাবিক বা শুধরে নেওয়া যায়, তাহলে চাকরিতে যোগ দেওয়ার সুযোগ থাকে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা