kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ নভেম্বর ২০১৯। ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী

জুনিয়র কমিশন্ড অফিসার হওয়ার সুযোগ

সেনা শিক্ষা কোরে সরাসরি জুনিয়র কমিশন্ড অফিসার (ওয়ারেন্ট অফিসার) নিয়োগ দেবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। পুরুষ প্রার্থীরা এ পদের জন্য আবেদন করতে পারবেন। অনলাইনে আবেদনের শেষ তারিখ ১০ নভেম্বর ২০১৯। ১৯ অক্টোবর কালের কণ্ঠ’র ৫ নম্বর পৃষ্ঠায় এসংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। বিস্তারিত জানাচ্ছেন জুবায়ের আহম্মেদ

৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জুনিয়র কমিশন্ড

অফিসার হওয়ার সুযোগ

স্নাতক (বিএ/বিএসসি/বিকম) বা সমমান পাস করা প্রার্থীরা জুনিয়র কমিশন্ড অফিসার (ওয়ারেন্ট অফিসার) পদের জন্য আবেদন করতে পারবেন। তবে শিক্ষা প্রশিক্ষণে ডিগ্রি কিংবা ডিপ্লোমাধারী এবং শিক্ষকতায় অভিজ্ঞ এমন প্রার্থীরা ‘অতিরিক্ত যোগ্য’ হিসেবে বিবেচিত হবেন। স্নাতক বা সমমানে ন্যূনতম সিজিপিএ ২.০০ এবং এসএসসি ও এইচএসসি বা সমমানে অন্তত জিপিএ ৩.০০ থাকতে হবে।

বয়স (২ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে) হতে হবে ২০ থেকে ২৮ বছর। বয়সের ক্ষেত্রে অ্যাফিডেফিট গ্রহণ করা হবে না। প্রার্থীর শারীরিক যোগ্যতা : উচ্চতা অন্তত ১.৬৮ মিটার, ওজন ৪৯.৯০ কেজি, বুকের মাপ ৩০ (স্বাভাবিক) থেকে ৩২ (স্ফীত) ইঞ্চি।

এ ছাড়া প্রার্থীকে অবিবাহিত ও সাঁতার (অন্তত ৫০ মিটার) জানতে হবে।

 

আবেদন অনলাইনে

army.teletalk.com.bd ওয়েবসাইটে গিয়ে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। এরপর টেলিটকের প্রিপেইড সংযোগ থেকে আবেদন ফি (৫০০ টাকা) জমা দিতে হবে। আবেদন ফি জমা দেওয়ার নিয়ম উল্লিখিত ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। আবেদন ফি জমা দেওয়ার পর আবেদনপত্রের তথ্য পরিবর্তন করা যাবে না। আবেদন ফি জমা দেওয়ার পর পাওয়া আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে ওয়েবসাইটে লগইন হতে হবে। লগইন করার পর ‘প্রাথমিক নির্বাচনী পরীক্ষা’র অ্যাডমিট কার্ড ডাউনলোড করে প্রিন্ট করতে হবে।

 

প্রাথমিক বাছাইয়ে আনতে হবে

১. আবেদনপত্রের (অনলাইনে পূরণকৃত) কপি।

২. গেজেটেড অফিসার কর্তৃক সত্যায়িত সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের আট কপি এবং স্ট্যাম্প সাইজের ছয় কপি রঙিন ছবি।

৩. গেজেটেড অফিসার কর্তৃক সত্যায়িত শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র এবং মার্কশিটের ফটোকপি।

৪. জাতীয় পরিচয়পত্র/স্মার্টকার্ডের (নিজ, পিতা ও মাতা) সত্যায়িত ফটোকপি।

৫. প্রবেশপত্র (প্রাথমিক নির্বাচনী পরীক্ষা)।

 

বাছাই-পদ্ধতি

প্রার্থীরা তাঁদের আবেদনপত্রসহ অন্যান্য কাগজপত্র প্রাথমিক নির্বাচনী পরীক্ষার দিন নির্ধারিত ভেন্যুতে জমা দেবেন। প্রাথমিক নির্বাচনী পরীক্ষার ফলাফল একই দিনে জানিয়ে দেওয়া হবে। প্রার্থীদের প্রাথমিক নির্বাচনী পরীক্ষার (প্রাথমিক মেডিক্যাল ও মৌখিক পরীক্ষা) জন্য অনলাইনে পূরণ করা আবেদনপত্রসহ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লিখিত এলাকাভিত্তিক নিজ নিজ জেলার পাশে বর্ণনা করা পর্ষদ/এরিয়া সদর দপ্তরের (সেনানিবাস) সামনে নির্ধারিত তারিখে সকাল ৮টার মধ্যে উপস্থিত হতে হবে।

প্রাথমিক বাছাইয়ে পাস করা প্রার্থীরা ‘নির্বাচনী পর্ষদ’ থেকে লিখিত পরীক্ষার প্রবেশপত্র নেবেন। আগামী ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ (শুক্রবার) সকাল ৯টায় বাংলা, ইংরেজি, গণিত এবং সাধারণ জ্ঞান বিষয়ে লিখিত পরীক্ষার জন্য ‘শহীদ রমিজ উদ্দীন ক্যান্টনমেন্ট কলেজ, ঢাকা সেনানিবাস’-এ উপস্থিত হতে হবে।

লিখিত পরীক্ষার ফলাফল আগামী ২৩ ডিসেম্বর বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ওয়েবসাইটে (www.army.mil.bd) প্রকাশ করা হবে। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক এবং চূড়ান্ত ডাক্তারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

 

প্রশিক্ষণ

১২ সপ্তাহের মৌলিক সামরিক প্রশিক্ষণ এবং ১৯ সপ্তাহের বেসিক কোর্স গ্রহণ করতে হবে।

 

সুযোগ-সুবিধা

নির্ধারিত স্কেলে বেতন-ভাতা, পেনশনসহ বিনা মূল্যে আহার ও বাসস্থান, বিনা মূল্যে সরকারি পোশাক-পরিচ্ছদ, পরিবারের জন্য বিনা মূল্যে চিকিত্সা, ভর্তুকি মূল্যে রেশন প্রদান, সেনাবাহিনীর অভ্যন্তরীণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সন্তানদের লেখাপড়ার সুযোগ।

 

 নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ও আবেদনের লিংক : army.teletalk.com.bd

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা