kalerkantho

রবিবার । ২০ অক্টোবর ২০১৯। ৪ কাতির্ক ১৪২৬। ২০ সফর ১৪৪১                

খুলনায় রঙিন দিন

২৫ থেকে ২৭ সেপ্টেম্বর আয়োজিত হয় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬ ব্যাচের শিক্ষা সমাপনী অনুষ্ঠান। এ সময় রঙিন হয়ে ওঠা ক্যাম্পাসের গল্প জানাচ্ছেন তেহসিন আশরাফ প্রত্যয়

৯ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



খুলনায় রঙিন দিন

• আনন্দমুখর একটি মুহূর্ত ছবি : স্থিরচিত্র

২০১৬ সাল। উচ্চশিক্ষার উদ্দেশ্যে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শিক্ষার্থীদের নিয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে যুক্ত হয় নতুন একটি ব্যাচ। ক্যাম্পাসে ‘ওয়ান সিক্স’ ব্যাচ নামেই এটির পরিচিতি। এরপর বন্ধুদের সঙ্গে নিয়মিত আড্ডা, বিশ্ববিদ্যালয়ের সব উৎসব রাঙিয়ে দিতে সিনিয়র-জুনিয়র কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে এগিয়ে চলা। এভাবেই কাটছিল দিন। কিন্তু দেখতে দেখতে তাঁদের বিদায়ের ক্ষণও এগিয়ে এলো। বিদায় বেলায় এই ব্যাচের নতুন নামকরণ করা হলো ‘সায়ন্তন’।

কাগজে-কলমে তিন দিনের আয়োজন হলেও উত্তেজনার শুরু এক মাস আগে থেকেই। ক্যাম্পাসের হাদি চত্বরে চলছিল কাউন্টডাউন। শহরজুড়ে রোড শো, ফ্লাশমব ও পোস্টারিংয়ে প্রচারণা পেয়েছিল নতুন প্রাণ।

২৫ তারিখ সকালে বিদায়ী ব্যাচের ছাত্রীরা নীল শাড়ি আর ছাত্ররা টি-শার্ট পরে হাজির হন ক্যাম্পাসে। অন্যান্য ব্যাচের শিক্ষার্থীরাও সেজেছিলেন রঙিন সাজে। উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মাদ ফায়েক উজ্জামান উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করার পর ১১টি বাস ও ২৮টি ট্রাকে হাজারো শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসের প্রধান ফটক থেকে শোভাযাত্রা করেন পুরো শহরে। এরপর চলে রং ছড়ানোর খেলা!

দ্বিতীয় দিন দুপুরে ছিল বিদায়ী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে উপাচার্যের নেতৃত্বে আলোচনাসভা। সন্ধ্যায় এই ব্যাচের শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় মুক্তমঞ্চে চলে নৃত্যানুষ্ঠান।

র‌্যাগের সমাপনী দিন মানেই কনসার্টের রাত। বিকেলে বিভিন্ন ব্যাচের শিক্ষার্থীরা গান শোনান। এরপর সন্ধ্যা থেকে মঞ্চে চলতে থাকে জনপ্রিয় ব্যান্ড আর্ক, অর্ণব এবং ওয়ারফেজের পরিবেশনা। সব আয়োজন ফুরিয়ে এলে ক্যাম্পাস থেকে কান্নাভেজা চোখে বিদায় নেন ‘সায়ন্তন’ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা