kalerkantho

সোমবার । ২৬ আগস্ট ২০১৯। ১১ ভাদ্র ১৪২৬। ২৪ জিলহজ ১৪৪০

চৌকস

পুরস্কারের সেঞ্চুরি

২০১৭ সালে সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতায় ‘ভাষা ও সাহিত্য’ বিভাগে মাধ্যমিকে সেরা। বিতর্ক, অলিম্পিয়াড ও খেলাধুলাতেও পারদর্শী। পুরস্কারে সেঞ্চুরি হাঁকানো আইনান তাজরিয়ানের গল্পটা জানাচ্ছেন জুবায়ের আহম্মেদ

১৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পুরস্কারের সেঞ্চুরি

আইনান পড়ছে বগুড়া সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে, দশম শ্রেণিতে। প্রথম যখন তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তি হয়, তখন স্কুল একদম ভালো লাগত না তার। ক্লাসে এলেই নাকি ঘুমাত! একদিন শুনল গণিত নিয়ে প্রতিযোগিতা হবে। তবে সেবার আর অংশ নেওয়া হয়নি। অপেক্ষা করেছে ক্লাস সিক্স পর্যন্ত। গণিত অলিম্পিয়াডের খোঁজ পেতেই নাম লেখাল। আঞ্চলিক পর্যায়ের বিজয়ী হলো আইনান।

ছোটবেলা থেকে বিতর্ক ভালো লাগত। একদিন স্কুলের নোটিশ বোর্ডে বিতর্ক প্রতিযোগিতার খবর জানতে পেরে স্যারকে বলল, আমিও বিতর্ক করব। আগ্রহ ও দক্ষতা দেখে স্যার তাকে রীতিমতো দলনেতা বানিয়ে দিলেন। তারপর আস্তে আস্তে বিতর্কের প্রতি ভালোবাসা বাড়ে। প্রথম দফায়ই পৌঁছে যায় বিভাগীয় পর্যায়ে। হাতে গোনা কয়েকটি প্রতিযোগিতা ছাড়া প্রায় সব কটিতেই সে পেয়েছে সেরা বিতার্কিকের খেতাব। এদিকে পড়াশোনাও চলেছে সমানতালে। পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণিতে পেয়েছে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি।

এ বছরের সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতা ২০১৭ সালে মাধ্যমিক পর্যায়ে ‘ভাষা ও সাহিত্য’ বিভাগে প্রথম হয় আইনান। বিজয়ীদের অন্যতম সদস্য হিসেবে মালয়েশিয়া ভ্রমণে যায়। এর আগে এই প্রতিযোগিতায় বিভাগীয় পর্যায়ে গিয়ে থেমে যেতে হয়েছিল। আইনান বলল, ‘মেধা অন্বেষণে ভাষা ও সাহিত্য বিভাগে চ্যাম্পিয়ন হওয়াটা ছিল স্বপ্নের মতো। এর আগে দুবার বিভাগীয় পর্যায় পর্যন্ত আসতে পেরেছিলাম। এবার প্রস্তুতি ভালোভাবে নিয়েছিলাম। ভাষা ও সাহিত্য নিয়ে আমার আগ্রহ অনেক। এ জন্যই হয়তো সেরার মুকুট পরতে পেরেছি।’

কিন্তু আইনানের ইচ্ছা, বড় হয়ে সে বিজ্ঞানী হবে। রসায়নে নোবেলজয়ী বিজ্ঞানী মেরি কুরির ভক্ত ও। নোবেল পাওয়ার স্বপ্নটাকে জিইয়ে রাখতে বিজ্ঞানের বই নিয়েই পড়ে থাকে। ‘বিজ্ঞানে যে কত দারুণ রহস্যের জাল ছড়িয়ে আছে! ভবিষ্যতে বিজ্ঞানীই হতে চাই।’ জানাল আইনান।

অবসরেও বই তার হাতে চাই। বিতর্কবিষয়ক বইও পড়ছে খুব। বিতর্ক ভালো লাগার কারণটা হলো, এর জন্য প্রস্তুতি নিতে গেলে অনেক কিছু জানা হয়ে যায়। এদিকে আবার সময় পেলেই করে কবিতা আবৃত্তি। অনুপ্রেরণার কেন্দ্রে আছেন যে মা, তাঁর সঙ্গে গল্প করতেও ভালো লাগে তার। মাঝেমধ্যে বিকেলে চলে হালকা খেলাধুলা।

আইনানের যত অর্জন
আইনান ২০১৭ সালে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহে জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষার্থী। জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াড ২০১৭ সালে আঞ্চলিক পর্যায়ে বিজয়ী। ২০১৫ সালে বগুড়া জেলার সেরা স্বর্ণকিশোরী। ২০১৩-২০১৭ সাল পর্যন্ত জাতীয় শিশু পুরস্কারে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুরস্কার। এইচএসবিসি ভাষা প্রতিযোগিতায় ২০১৫ সালে আঞ্চলিক পর্যায়ে বিজয়ী ও একই প্রতিযোগিতায় জাতীয় পর্যায়ে বিজয়ী। পর পর কয়েক বছর গণিত অলিম্পিয়াডে আঞ্চলিক পর্যায়ে বিজয়ী। মার্কস অলরাউন্ডার ২০১৪ সালে একক অভিনয়ে বিভাগীয় পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন। ২০১৬ সালে দুদক আয়োজিত বিতর্ক প্রতিযোগিতায় গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন এবং শ্রেষ্ঠ বিতার্কিক। এনডিএফবিডি আয়োজিত ডিবেট ফ্যাস্টিভাল ২০১৬ সালে জাতীয় পর্যায়ে দ্বিতীয়। এ ছাড়া জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতায় একাধিকবার কবিতা আবৃত্তি, কেরাত, একক অভিনয়, ধারাবাহিক গল্প বলা, রচনা প্রতিযোগিতাসহ ১০০টিরও বেশি পুরস্কার আছে আইনানের ঝুলিতে।

মন্তব্য