kalerkantho

রবিবার । ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৫ ডিসেম্বর ২০২১। ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩

পীরগাছায় গৃহবধূ ঘরছাড়া

ইউপি চেয়ারম্যানসহ চারজন কারাগারে, তদন্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থার নির্দেশ

রংপুর অফিস   

৮ মে, ২০১২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রংপুরের পীরগাছায় ধর্ষণের শিকার গৃহবধূকে 'পতিতা' অপবাদ দিয়ে সমাজচ্যুত করার অপরাধে স্থানীয় তিন মাতবর ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন উচ্চ আদালত। একই সঙ্গে মামলার তদন্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে পুলিশের রংপুর রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শককে (ডিআইজি) নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেনের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। পীরগাছা উপজেলার কান্দি ইউনিয়নের পাঠক শিকড় গ্রামে ধর্ষণের শিকার এক গৃহবধূকে 'পতিতা' অপবাদ দিয়ে সমাজচ্যুত করার ঘটনা গত ২৬ এপ্রিল কালের কণ্ঠসহ বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। এরপর হাইকোর্টের এ বেঞ্চ স্বপ্রণোদিত হয়ে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল কাদের মণ্ডল, তিন মাতবর আবু সিদ্দিক, হাফিজার রহমান ও নুর আলমকে তলব করেন। একই সঙ্গে এ ঘটনায় করা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পীরগাছা থানার উপপরিদর্শক খায়রুল আলমকেও তলব করা হয়। গতকাল তাঁরা হাজিরা দিতে গেলে তদন্ত কর্মকর্তা বাদে অন্য চারজনকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ ছাড়া রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ ও পরিচালককে আগামী ১৫ মের মধ্যে ওই গৃহবধূর ডাক্তারি পরীক্ষার সনদ হাইকোর্টে জমাদানের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট আবু ওবায়দুর রহমান, অবন্তী নুরুল, মাহজাবীন রব্বানী ও সামিউল আলম সরকার। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আলতাব হোসেন।


সাতদিনের সেরা