kalerkantho

বুধবার । ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭। ৩ মার্চ ২০২১। ১৮ রজব ১৪৪২

করোনাকালের বিয়ে

বিয়ের ছবি বিয়ের ভিডিও

বিয়ের স্মৃতি অমলিন করতে ছবি ও ভিডিও ধারণ করেন অনেকে। করোনার শুরুর দিকের বিয়েতে ক্যামেরার দেখা ছিল কম। এখন স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিয়ের অনুষ্ঠানে হাজির হচ্ছেন আলোকচিত্রীরা। বিস্তারিত জানাচ্ছেন আতিফ আতাউর

২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিয়ের ছবি বিয়ের ভিডিও

বাংলাদেশে করোনা সংক্রমণের পর অন্য সব কিছুর মতো স্থবির হয়ে পড়েছিল ওয়েডিং ফটোগ্রাফি প্রতিষ্ঠানগুলোও। সংস্পর্শ থেকে সংক্রমণের ভয় ছুঁয়ে যাচ্ছিল সবাইকে। সরকার লকডাউন ঘোষণার পর কয়েক মাস নিজের ফটোগ্রাফি প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেছিলেন ওয়েডিং ফটোগ্রাফার আবু সুফিয়ান নিলাভ। তিনি বলেন, ‘করোনা শুরুর দিকে আমাদের হাতে বলতে গেলে কাজই ছিল না। করোনার ভয়ে বাসায়ই বসে ছিলাম কয়েক মাস। এরপর ধীরে ধীরে সব কিছু স্বাভাবিক হতে শুরু করলে আমরাও ফিরে আসি। এখন স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিয়ের ছবি তুলছি। তবে করোনাকালের বিয়েগুলোতে লোকসমাগম আগের চেয়ে অনেক কম। খুব বেশি সচেতন যাঁরা তাঁরা এখনো ভিড় এড়িয়ে চলছেন। বর-কনের ঘনিষ্ঠদের নিয়েই আয়োজিত হচ্ছে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা। বিয়ের ফটো ও ভিডিও ধারণ করা হচ্ছে ছোট্ট পরিসরেই।’

করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেওয়া নির্দেশনাগুলো মেনে ছোট মেয়ের বিয়ের আয়োজন করেছিলেন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কমকর্তা সৈয়দ তারিকুর রহমান। তিনি জানান, করোনা সংক্রমণের আগে বিয়ের কথা পাকাপোক্ত হয়েছিল। করোনা শুরু হওয়ার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার জন্য দুইবার তারিখ বদল করেছেন। সর্বশেষ অতিথি ও বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা কাটছাঁট করে সংক্ষিপ্ত পরিসরে বেশ সফলভাবেই শেষ করেন বিয়ের আয়োজন। এ জন্য কনভেনশন হল, ইভেন্ট প্ল্যানার্স, ফটোগ্রাফার ও অতিথিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি। সবাই নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি মেনেই বিয়েতে অংশ নিয়েছিলেন।

বিয়ের ফটোগ্রাফি প্রতিষ্ঠান রিফাত ওয়েডিং স্টুডিও’র চিফ ফটোগ্রাফার রিফাত হাসান বলেন, ‘সত্যি বলতে, বিয়ের পরিবেশ এখনো আগের মতো স্বাভাবিক হয়নি। করোনার সংক্রমণ চলছে। এর পরও যেসব বিয়ে একটু ধুমধামের সঙ্গে হচ্ছে সেগুলো ইভেন্ট প্ল্যানার্স, বর-কনের পরিবার ও তাঁদের আত্মীয়দের সহযোগিতার জন্যই। কনভেনশন হলগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে কড়াকড়ি আরোপ করা হচ্ছে। অনুষ্ঠানে প্রবেশের সময় অতিথিদের শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে। মাস্ক পরে থাকতে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। তা ছাড়া মানুষও এখন অনেক সচেতন। তারা বয়স্ক, শিশু ও অসুস্থদের লোকসমাগমস্থল থেকে দূরে রাখার চেষ্টা করছে। এর পরও আমরা যারা ছবি ও ভিডিও ধারণের সঙ্গে যুক্ত থাকি তারাও সর্বদা মাস্ক পরিধান করি। ক্লায়েন্টদের সঙ্গে প্রি-মিটিং করে ছবি তোলার ক্ষেত্রে সবার করণীয় বিষয়ে আগেই আলাপ করে নিই। সবার সহযোগিতার ফলেই এটা সম্ভব হচ্ছে।’

ওয়েডিং ফটোগ্রাফারদের মতে, এখন বিয়ের অনুষ্ঠান যতটা ছোট করা যায় তত নিরাপদ। বিয়ের অনুষ্ঠানের ধরন, অতিথির সংখ্যা, স্থান ও কাল বুঝে ওয়েডিং ফটোগ্রাফাররা পরিকল্পনা করেন। পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে তাদেরও চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে। সুন্দর ছবির ক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে মাস্ক পরা মুখ। তার পরও তাঁরা  বর-কনের বিশেষ কিছু ছবি নেওয়ার জন্য তাঁদের বাইরের লোকেশনে নিয়ে যান ভালো ও সুন্দর ছবির জন্য। এখন প্রায় সব ওয়েডিং ফটোগ্রাফি প্রতিষ্ঠান কাজে ফিরেছে। বিয়ের স্মৃতি ধরে রাখতে এসব প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন।

ওয়েডিং ডায়েরি বাংলাদেশ

বাড়ি-৪০, ফ্ল্যাট-এ২, রোড-৫, ব্লক-জি, বনানী, ঢাকা।

মোবাইল : ০১৯৭৫৫৫৬৬৩৩

ড্রিম ওয়েভার

বাড়ি-২৩, রোড-১, সেক্টর-৯, উত্তরা, ঢাকা।

মোবাইল : ০১৭১৭৯৯২২৮৫

প্রীত রেজা প্রডাকশন

বাড়ি-৪০, ফ্ল্যাট-এ২, রোড-৫, ব্লক-জি, বনানী, ঢাকা।

মোবাইল : ০১৯৭৩৩১১১৭৭

নিজল ক্রিয়েটিভ

বাড়ি-১১৮, নিউ ইস্কাটন রোড, ঢাকা।

মোবাইল : ০১৭০৭১৩৩৫৫৪

ড্রিম ওয়েডিং

৪৫৩/১ ডিআইটি রোড, পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা।

মোবাইল : ০১৯১৪৪৮৫৩৪০

চিত্রগল্প

বাড়ি-১৮, রোড-৮/এ, নিকুঞ্জ-১, খিলক্ষেত, ঢাকা। মোবাইল : ০১৭১১-৯৯৬৬৩৩

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা