kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১২ রজব ১৪৪২

অনলাইনে কেনাকাটা

বাজারের ভিড় ও নানারকম ঝুট-ঝামেলা থেকে বাঁচতে আগেও অনলাইনে পণ্য কিনতেন অনেকে। করোনার প্রাদুর্ভাব বাড়ার পর এরকম বিকিকিনি বেড়েছে ব্যাপকভাবে। বিভিন্ন রকম ছাড় ও সুবিধাও পাওয়া যায় এ ধরনের কেনাকাটায়

এ-টু-জেড প্রতিবেদক   

১৮ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অনলাইনে কেনাকাটা

মানুষের দোরগোড়ায় পণ্যসেবা পৌঁছে দিতে অনলাইন শপগুলো বিভিন্ন সুবিধা দিচ্ছে শুরু থেকেই। একে তো বাজারে যাওয়ার প্রয়োজন নেই, তার ওপর ক্যাশ অন ডেলিভারি, লোভনীয় ছাড়, কম সময়ে পণ্য হাতে পাওয়া, ক্যাশব্যাক অফার ইত্যাদি কারণে অনলাইন শপিং জনপ্রিয় অনেকের কাছেই। বিশ্বজুড়ে করোনা হানা দেওয়ার পর অনলাইন শপগুলো হয়ে ওঠে মানুষের বিশ্বস্ত বন্ধু। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মানুষের প্রয়োজনীয় পণ্য ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়ার কাজটিও সানন্দে করছে বিভিন্ন ধরনের অনলাইন শপ। একটি বায়িং হাউসে কাজ করেন উত্তরার জহির উদ্দিন খান। করোনার সময় লকডাউনে গার্মেন্ট বন্ধ থাকলেও অফিস করছিলেন ঘরে বসে। তিনি জানালেন, এই পুরোটা সময় তিনি অনলাইন থেকে সব ধরনের শপিং করেছেন। শুরুতে অনলাইনে শপিং নিয়ে নানা ভোগান্তির কথা শুনলেও তিনি তেমন কোনো অসুবিধায় পড়েননি। কয়েকবার নির্দিষ্ট সময়ের চেয়ে একটু দেরিতে পণ্য হাতে পেয়েছিলেন। সেটাও লকডাউনের সময় ছিল বলে মনে করেন তিনি।

বাজার ঘুরে দেখে কেনাকাটা বেশি পছন্দ মিরপুরের গৃহিণী বিউটি আক্তারের। করোনার সময় বাজারে যাওয়ার ওপর বিধি-নিষেধ আরোপ করা হলে কলেজপড়ুয়া মেয়ে পরামর্শ দেন অনলাইন শপিংয়ের। তিনি মনে করতেন অনলাইনে খুব কম জিনিসই বিক্রি হয়। একেক জিনিস কিনতে একেক কম্পানির ওয়েবসাইট ভিজিট করতে হয়। কিন্তু অনলাইন শপগুলোতে ঢুঁ মেরেই অবাক হন। বাসার ফ্রিজ, খাট, টেবিল, চেয়ার, গয়না, প্রতিদিনকার খাবার, পোশাক, ঘড়ি, মোবাইল, মাস্ক, করোনা প্রতিরোধক কিট, মোটরসাইকেল, দামি গাড়ি—কী নেই তালিকায়! শপগুলোর ফ্ল্যাশ সেল অপশন-এ গিয়ে বাজারের চেয়ে অর্ধেক পণ্যমূল্য দেখে অবাক হন তিনি। এর পর থেকে প্রতিদিনকার প্রয়োজনীয় জিনিস অনলাইনেই কিনে থাকেন এই গৃহিণী। এ ছাড়া অনলাইনে কেনাকাটায় নগদ অর্থ পরিবহনের প্রয়োজন নেই। বাসায় থেকে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা যায়। চাইলে বিভিন্ন ব্যাংকের কার্ড ও মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর অ্যাপের মাধ্যমেও মূল্য পরিশোধ করা যায়। এতে অর্থ খোয়া যাওয়ার ভয়ও কম। এ রকম আরো নানা সুবিধা মিলবে অনলাইন কেনাকাটায়। কিছু বিষয় মেনে চললে আরো সুবিধা পাওয়া যাবে।

অনলাইনে পণ্য কিনতে প্রথমে প্রয়োজনীয় পণ্যগুলোর একটি তালিকা করে নিন। এরপর সব পণ্য একসঙ্গে অর্ডার করুন। এতে সার্ভিস চার্জ কম পড়বে।

কোনো পণ্য কেনার আগে পণ্যটির বিষয়ে দেওয়া বিস্তারিত বিবরণ পড়ে নিন। অনলাইন শপগুলোতে পণ্যের নিচে কাস্টমার রিভিউ থাকে। ভালো রিভিউ হলে তবেই কিনুন।

এখন অনেক অনলাইন শপ ক্রেতা টানতে নিয়মিত বিভিন্ন অফার দেয়। ছাড়ে পণ্য কিনতে সব প্ল্যাটফর্মে একবার নজর বুলিয়ে নিন।

স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, একুশে ফেব্রুয়ারি, ভ্যালেনটাইনস ডে, ঈদ, পূজা, বৈশাখসহ বিভিন্ন দিবস উপলক্ষে কেনাকাটায় বাড়তি ছাড়সহ প্যাকেজ ঘোষণা দেয় শপগুলো। এই সময় কেনাকাটায় ভালো ছাড় পাবেন।

পণ্য সম্পর্কে কোনো অভিযোগ জানাতে কেনাকাটার রসিদ সংগ্রহে রাখুন। পণ্য ফেরত বা মূল্য ফেরতে এই রসিদ কাজে লাগবে।

চেষ্টা করুন প্রতিষ্ঠানগুলোর অ্যাপ দিয়ে কেনাকাটা সারতে। এতেও মূল্য সাশ্রয় হয়।

বিকাশ, নগদ, রকেটসহ বিভিন্ন অ্যাপেও মূল্য পরিশোধে ছাড় পাবেন।

পছন্দের অনলাইন শপের সদস্য হতে পারেন। নির্দিষ্ট অঙ্কের কেনাকাটায় অথবা রিওয়ার্ড পয়েন্ট পেয়েও লাভবান হবেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা