kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ১ ডিসেম্বর ২০২০। ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২

পূজার পাতে পিঠা

পূজায় তিনবেলা ভারী খাবার তো খাবেনই। মধ্য বিরতিতে কিংবা অতিথি আপ্যায়নে রাখতে পারেন পিঠা। রেসিপি দিয়েছেন হেলেনা পারভীন রুমা

২৬ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৭ মিনিটে



পূজার পাতে পিঠা

দুধ চিতই পিঠা

উপকরণ

পিঠার জন্য

শুকনা চালের গুঁড়া ২ কাপ, সুজি আধা কাপ, ডিম ১টা, বেকিং পাউডার আধা চা চামচ, লবণ স্বাদমতো, কুসুম গরম পানি পরিমাণমতো।

দুধের সিরার জন্য লাগবে

গরুর দুধ ২ লিটার, কনডেন্সড মিল্ক ১ কাপ, চিনি আধা কাপ, নারকেল কোরা ১ কাপ, এলাচি ৩-৪টি।

যেভাবে তৈরি করবেন

পিঠা তৈরি

১. একটি পাত্রে দেড় কাপ কুসুম গরম পানিতে শুকনা চালের গুঁড়া ও সুজি গুলিয়ে সারা রাত ঢেকে রাখুন।

২. সকালে এর সঙ্গে ডিম, বেকিং পাউডার ও স্বাদমতো লবণ দিয়ে ভালোভাবে ব্লেন্ড করে ব্যাটার তৈরি করুন। প্রয়োজনে আরেকটু কুসুম গরম পানি মেশাতে পারেন। ব্যাটার বেশি পাতলা বা খুব ঘন হবে না।

৩.  চুলায় মাঝারি আঁচে লোহার সাজ গরম করে নিন। একটি টিস্যুতে তেল লাগিয়ে প্রতিটি সাজে মোছা দিয়ে নিন। প্রতিবার পিঠা হওয়ার পর তেলের মোছা দিতে হবে।

৪. এবার একটি ডালের চামচ দিয়ে প্রতিটি সাজে ব্যাটার ঢেলে ৪-৫ মিনিটের জন্য ঢেকে দিন। ঢাকনা খুলে যদি চামচ দিয়ে পিঠা সহজেই উঠে আসে তাহলে উঠিয়ে নিন। জোর করার প্রয়োজন নেই। হয়ে গেলে পিঠা সহজেই উঠে আসবে।

 

দুধের সিরা তৈরি

১. একটি বড় পাতিল বা ছড়ানো কড়াইয়ে দুধ, এলাচি, চিনি ও কনডেন্সড মিল্ক মিশিয়ে অল্প আঁচে জ্বাল দিন।

২. একটু পরপর নাড়তে থাকুন। দুধ একটু কমে এলে নারকেল কোরা দিন। আরেকটু ঘন হলে চিতই পিঠা দিয়ে ২-১ মিনিট জ্বাল করে নামিয়ে নিন।

৩. ৩-৪ ঘণ্টা অথবা সারা রাত রেখে দিন। পিঠার মধ্যে দুধের সিরা গিয়ে পিঠা ফুলে উঠবে।

৪. সার্ভিং ডিশে নিয়ে পরিবেশন করুন।

 

মুগ পাকন পিঠা

উপকরণ

মুগ ডাল ১ কাপ, চালের গুঁড়া ২ কাপ, ঘি ২ টেবিল চামচ, ডিম ১টা, জর্দার রং সামান্য, লবণ পরিমাণমতো, গরম পানি পরিমাণমতো, ডুবিয়ে ভাজার জন্য তেল পরিমাণমতো।

সিরার জন্য

চিনি ২ কাপ, পানি ১ কাপ, এলাচি ২টি, দারচিনি ১টি।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. মুগ ডাল ঘ্রাণ বের হওয়া পর্যন্ত টেলে চুলা থেকে নামিয়ে ধুয়ে এক থেকে দুই ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন।

২. ডাল ফুলে উঠলে ৩ কাপ পানি, লবণ, জর্দার রং দিয়ে চুলায় বসিয়ে দিন।

৩. সিদ্ধ হয়ে গেলে হুইক্স বা ডাল ঘুটনি দিয়ে ভালোভাবে ঘুটে নিন। আরো ১ কাপ গরম পানি ও ঘি দিয়ে আরেকটু নেড়ে চালের গুঁড়া দিয়ে ঢেকে একেবারে কম আঁচে জ্বাল দিন ৩-৪ মিনিট।

৪. এরপর ঢাকনা খুলে একটি কাঠি দিয়ে ভালোভাবে সব একত্রে নেড়ে মিশিয়ে নিন।

৫. একটি ছড়ানো প্লেটে কাই (খামির) ঢেলে একটু ঠাণ্ডা করে অর্থাত্ কুসুম গরম অবস্থায় ১টি ডিম ফেটে দিয়ে কাই ভালো করে মথে নিন।

৬. এবার কিছুটা কাই নিয়ে মোটা রুটি বেলে ১ ইঞ্চি পুরত্ব রেখে, রুটির ওপর তেল মেখে খেজুর কাঁটা বা টুথপিক দিয়ে পছন্দমতো ডিজাইন করে নিন। এভাবে সব পিঠা ডিজাইন করে বানিয়ে নিন।

৭. সব পিঠা বানানো হয়ে গেলে ডুবো তেলে এপাশ-ওপাশ সোনালি করে ভাজুন।

৮. এখন সিরার জন্য চিনি, পানি, এলাচি, দারচিনি সব একত্রে জ্বাল দিন। একটু আঠালো হলে চুলা থেকে নামিয়ে ভেজে রাখা পিঠা সিরায় ভিজিয়ে রাখুন ৭-৮ মিনিট।

৯. তারপর সিরা থেকে উঠিয়ে গরম গরম অথবা ঠাণ্ডা অবস্থায় পরিবেশন করুন।

 

ভাপা পিঠা

উপকরণ

চালের গুঁড়া ২ কাপ, লবণ পরিমাণমতো, কুসুম গরম দুধ অথবা পানি পরিমাণমতো, খেজুরের গুড় প্রয়োজনমতো, নারকেল কোরা  প্রয়োজনমতো।

আরো লাগবে

পিঠা বানানোর জন্য ভাপা পিঠার ছিদ্রওয়ালা পাতিল। দুই টুকরা বড় সুতির কাপড়। দুটি ছোট বাটি।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. প্রথমে চালের গুঁড়ায় লবণ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে অল্প অল্প করে কুসুম গরম দুধ অথবা পানি দিয়ে হাতের মুঠোয় নিয়ে মাখুন। যেন হালকা ভেজা মনে হয় বা মুঠোয় নিলে দলা বাঁধে, আবার ভেঙে দিলে ঝুর ঝুর করে পড়ে যায়। এবার ১০-১৫ মিনিট ঢেকে রেখে দিন।

২. এই চালের গুঁড়া চালনিতে নিয়ে ঘষে ঘষে চেলে নিন। ঝরঝরে সুজির দানার মতো বের হবে।

৩. এবার যে পাতিলে পিঠা তৈরি করবেন বা ভাপ দেবেন তাতে অর্ধেক পানি নিয়ে চুলায় জ্বাল দিন। পানি ফুটে ভাপ ওঠা পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

৪. এখন অর্ধেক চালের গুঁড়ার সঙ্গে নারকেল কোরা ও গুড় মিশিয়ে অথবা ভেতরে পুর দিয়ে পিঠা বানানোর বাটিতে নিন।

৫. সুতি কাপড় ভিজিয়ে চিপে নিন। এই কাপড় দিয়ে পিঠার বাটি ঢেকে পাতিলের ওপর উপুড় করে বসিয়ে কাপড়টি পেঁচিয়ে বাটি তুলে নিন।

৬. শুধু পিঠা ভাপে দিয়ে ৩-৪ মিনিট অপেক্ষা করুন।

৭. হয়ে গেলে নামিয়ে নিন।

 

খেজুর গুড়ের পাটিসাপটা পিঠা

উপকরণ

ক্ষীরশা তৈরির জন্য

তরল দুধ ১ কেজি, খেজুর গুড় ১ কাপ, গুঁড়া দুধ ২-৩ টেবিল চামচ, চালের গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, নারকেল কোরা ২-৩ টেবিল চামচ এবং এলাচি গুঁড়া আধা চা চামচ।

পাটিসাপটার রুটির জন্য

আতপ চালের গুঁড়া ২ কাপ, ময়দা ১ কাপ, খেজুর গুড় ১ কাপ, কুসুম গরম পানি পরিমাণমতো, রুটি বানানোর জন্য তেল পরিমাণমতো।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. ক্ষীরশা তৈরির জন্য একটি পাত্রে দুধ জ্বাল দিয়ে ঘন করে নিন। দুধ অর্ধেক হয়ে এলে গুঁড়া দুধ, চালের গুঁড়া, নারকেল, এলাচি গুঁড়া দিয়ে চুলার আঁচ একেবারে কমিয়ে দিন।

২. ৩-৪ মিনিট জ্বাল দিয়ে খেজুর গুড় দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে অনবরত নাড়ুন যেন পাতিলের তলায় লেগে না যায়। গাঢ় হয়ে এলে নামিয়ে ঠাণ্ডা করে নিন।

৩. এবার একটি বাটিতে চালের গুঁড়া, ময়দা, গুড় একসঙ্গে মিশিয়ে অল্প অল্প করে কুসুম গরম পানি দিয়ে ঘন ব্যাটার তৈরি করে ১৫-২০ মিনিটের জন্য ঢেকে রেখে দিন। ব্যাটার যেন মিডিয়াম পাতলা হয়।

৪. চুলায় মিডিয়াম হিটে ফ্রাইপ্যান গরম করুন। এতে তেল ব্রাশ করে একটি ডালের চামচের সাহায্যে ব্যাটার দিন।

৫. প্যানের হাতল ধরে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ব্যাটার পাতলা রুটির মতো করে ঢেকে দিন।

৬. কিছু সময় পর ঢাকনা উঠিয়ে এক সাইডে ক্ষীরশা দিয়ে সাবধানে স্প্যাচুলা বা খুন্তি দিয়ে রোল করে নিন।

৭. এভাবে প্রতিবার প্যানে তেল ব্রাশ করে একে একে প্রতিটি পিঠা বানিয়ে নিন।

৮. এই পিঠা ঠাণ্ডা অথবা গরম দুভাবেই খেতে দারুণ মজা।

 

খেজুর গুড়ের তেলের পিঠা

উপকরণ

চালের গুঁড়া ২ কাপ, ময়দা আধা কাপ, গলানো খেজুর গুড় ১ কাপ, লবণ একচিমটি, কুসুম গরম পানি এবং ভাজার জন্য পরিমাণমতো তেল।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. প্রথমে একটি বাটিতে চালের গুঁড়া, ময়দা, লবণ ও খেজুর গুড় একসঙ্গে মিশিয়ে অল্প অল্প করে কুসুম গরম পানি দিয়ে কেকের ব্যাটারের মতো ঘন ব্যাটার তৈরি করুন। ব্যাটার তৈরির সময় একেবারে সবটুকু কুসুম গরম পানি দেওয়া যাবে না; অল্প অল্প করে দিতে হবে।

২. এরপর ব্যাটার আধঘণ্টার জন্য ঢেকে রেখে দিন। এরপর ব্যাটার একটি হুইক্স বা ডাল ঘুটনি দিয়ে ২-১ মিনিট ভালোভাবে ফেটে নিন।

৩. একটি কড়াইয়ে পিঠা ডুবো তেলে ভাজার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে তেল মিডিয়াম লো আঁচে গরম করুন।

৪. একটি গোল ডালের চামচ দিয়ে এক চামচ ব্যাটার তেলের মধ্যে ছেড়ে দিন। কিছুক্ষণ পরই পিঠা ফুলে উঠবে। চুলার আঁচ মোটেও বাড়াবেন না। পিঠা ফুলে উঠলে উল্টিয়ে আরো কিছুক্ষণ ভেজে সোনালি হয়ে এলে নামিয়ে একটি কিচেন টিস্যুর ওপর রাখুন। যাতে বাড়তি তেল শুষে নেয়। এভাবে একটি একটি করে সব পিঠা বানিয়ে নিন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা