kalerkantho

বুধবার । ১৫ আশ্বিন ১৪২৭ । ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১২ সফর ১৪৪২

পুরনো জিনিসের ব্যবহার

ঘরের পুরনো জিনিস দিয়ে খুব সহজেই বানিয়ে নিতে পারেন নতুন দরকারি কিছু। এতে জিনিসটির পুনর্ব্যবহার হবে, সংসারে সাশ্রয় হবে, পরিবেশেরও ক্ষতি হওয়ার ভয় থাকবে কম। লিখেছেন আতিফ আতাউর।

১০ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



 

 

তথ্যসূত্র

ইস্পোমাডটকম, জিভোকাডটকম, গুডহাউজকিপিংডটকম

 

কাঁচাবাজার তো প্রতিদিনই করতে হয়। আলু, পেঁয়াজ, রসুন থেকে শুরু করে মুদি দোকানে সাবান, টুথপেস্ট, পাউরুটি কিনতে গেলেও অনেক সময় পলিথিনের ব্যাগে পণ্য ভরে দেয় দোকানিরা। বাসায় ফেরার পর পলিথিনের ব্যাগটা ফেলে না দিয়ে জমিয়ে রাখুন। এগুলো ডাস্টবিনের কাভার ব্যাগ হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। ফলে আলাদাভাবে আর ডাস্টবিন টানাহেঁচড়া করতে হবে না। পলিথিনের ব্যাগটা তুলে নিয়ে ফেলে দিলেই হবে পরিচ্ছন্নতার কাজ।

জ্যাম, জেলি, আচার শেষ হয়ে যাওয়ার পর কাচের বোতলটি খালিই পড়ে থাকে। এটা ফেলে না দিয়ে ব্যবহার করতে পারেন অনেক কাজে। বাদাম, মসলাসহ বিভিন্ন শুকনো জিনিস তুলে রাখতে পারেন। এ ছাড়া বাড়ির সৌন্দর্যবর্ধনের কাজেও ব্যবহার করা যাবে কাচের বোতল। পুরনো রঙিন ফিতা, পাটের দড়ি ইত্যাদি ব্যবহার করে বানিয়ে ফেলুন শোপিস। অথবা কাচের বোতলে লাইটিং করে কিংবা মোম জ্বালিয়েও ঘরে আনা যাবে বাড়তি সৌন্দর্যের ছোঁয়া। কাচের জার বা মগটি একটু বড় হলে ফুলদানি, ছোট্ট গাছের টব হিসেবেও ব্যবহার করতে পারেন।

স্বচ্ছ কাচের পাত্র ক্লোজড লিড টেরারিয়াম বানাতে দারুণ। এমন একটি জিনিস পড়ার টেবিল বা ড্রেসিং টেবিলে থাকলে মুহূর্তেই মন ভালো করে দেয়। ব্যবহৃত কাচের পাত্রে মস, ফার্ন, পাথরকুচির চারা, বিভিন্ন ধরনের জলজ গাছ, অল্প মাটি, পানি, কিছু স্প্রিংটেইলস পোকা এবং ছোট্ট দুটি শামুক দিয়েই বানিয়ে ফেলা যাবে এমন টেরারিয়াম। শুধু পাত্রের মুখটা ভালোমতো বন্ধ করে দিতে হবে। আর কিছুই করতে হবে না। গাছের তৈরি অক্সিজেন নেবে পোকা আর পোকাদের কার্বন ডাই-অক্সাইড নেবে গাছ। ব্যস।

পাখি ভালোবাসেন না এমন মানুষ পাওয়া কঠিন। পাখির প্রতি শুধু ভালোবাসা থাকলেই তো হবে না। তা একটু দেখানোও উচিত। কিভাবে? তাদের জন্য প্রতিদিনের খাবার থেকে একটু পানি, সামান্য চাল, ডাল, ফল চাইলেই বরাদ্দ করতে পারেন। তার জন্য তো বন্দোবস্তও থাকা চাই। এ জন্য আহামরি কিছু করার দরকার নেই। বিরিয়ানি ভোজের পর খালি কোকের বোতলটাই হতে পারে পাখির ডাইনিং টেবিল। এ ছাড়া প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে ছোট্ট বাগানও কিন্তু তৈরি করা যাবে খুব সহজেই।

বৃষ্টি-বাদলের দিনে প্লাস্টিকের জুতা খুব জুতসই জিনিস। এ জন্য বাদল দিনে এমন জুতার কদরও বেশি। কিন্তু গরমের দিনে কিংবা পুরনো হয়ে গেলে বেশ অবহেলায়ই পড়ে থাকে এসব জুতা। এ ছাড়া প্লাস্টিকের তৈরি বলে সহজে ধ্বংসও হয় না। যত্রতত্র ফেলে দেয়াও পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর। এমন জুতায় ফুল ফোটালে ক্ষতি কী। জুতার মধ্যে কম্পোস্ট সার ও মাটি মিশিয়ে গাছের চারা লাগিয়ে দিন। নান্দনিক বাগান গড়ে উঠবে।

 

ক্রেডিট কার্ড, ডেবিট কার্ড ব্যবহারকারীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছেই। যাঁরা গিটার বাজাতে ভালোবাসেন, আবার একজন ক্রেডিট কার্ডধারী— তাঁদের জন্য এই টিপস। গিটারের পিক বানাতে পারেন অব্যবহৃত ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করেই। দরকার শুধু সুবিধামতো কেটে নেওয়া। ব্যস, সহজেই পেয়ে যাবেন গিটার বাজানোর পিক।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা