kalerkantho

শনিবার । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭। ৮ আগস্ট  ২০২০। ১৭ জিলহজ ১৪৪১

রসুইঘরেই রূপের যত্ন

পার্লারে তো যেতেই পারেন, তবে রান্নাঘরের উপাদান দিয়েও ত্বক ও চুলের যত্ন নেওয়া সম্ভব। পরামর্শ দিয়েছেন ল্যাবএইড হাসপাতালের অধ্যাপক ও চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ নজরুল ইসলাম। শুনেছেন এ এস এম সাদ

৬ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রসুইঘরেই রূপের যত্ন

মুখের লাবণ্য ধরে রাখতে

অর্ধেক লেবুর রস ২ টেবিল চামচ মধুতে মিশিয়ে মিশ্রণটি ত্বকে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। একটু পর যখন ত্বক শুকিয়ে যাবে তখন পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। মধু ত্বক উজ্জ্বল করবে এবং লেবুর প্রাকৃতিক উপাদান ত্বককে আরো ফরসা ও সতেজ করে তুলবে।

 

হাতের যত্ন

বেসন এবং টক দই একসঙ্গে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। হাতে লাগান। পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন ১৫ মিনিট পর। এটি হাত থেকে মরা চামড়া দূর করে দিতে সাহায্য করবে। সপ্তাহে এক দিন ব্যবহার করুন। এক চা-চামচ গ্লিসারিন, আধা চা চামচ লেবুর রস এবং সামান্য গোলাপজল মিশিয়ে দিনে দুবার হাতে লাগাতে পারেন।

 

তেঁতুলের ফেসপ্যাক

তেঁতুলের রস, চন্দনের গুঁড়া, গোলাপজল, টক দই এবং মুলতানি মাটি একসঙ্গে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এই প্যাকটি ত্বকে লাগিয়ে রাখুন ২০ মিনিট। তারপর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাক দ্রুত ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে দেবে।

 

ব্রণ দূর করতে রসুন

কয়েক কোয়া রসুন ছেঁচে তা থেকে রস বের করে ব্রণে আক্রান্ত স্থানে লাগাতে হবে। এরপর পাঁচ মিনিট অপেক্ষা করে ধুয়ে ফেলতে হবে। কয়েক দিনের ব্যবহারে দূর হবে ব্রণের দাগ ও লালচে ভাব।

এক কোয়া রসুনের সঙ্গে অর্ধেক টমেটো মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে তা মুখে লাগাতে পারেন। রসুন ও টমেটোর এই প্যাক লোমকূপ সংকুচিত করার পাশাপাশি ত্বক সতেজ করে।

 

কালিজিরার পেস্ট

মধু ও কালিজিরার পেস্ট বানিয়ে ত্বকে লাগিয়ে আধাঘণ্টা বা এক ঘণ্টা রেখে ধুয়ে ফেলুন, উজ্জ্বল হবে ত্বক।

 

শুষ্ক ত্বকে হলুদের ব্যবহার

শুষ্ক ত্বক উজ্জ্বল এবং লাবণ্যময় করতে চাইলে কাঁচা হলুদ বাটা সামান্য, এক টেবিল চামচ অলিভ অয়েল, ২-৩ ফোঁটা লেবুর রস, একটা ডিমের সাদা অংশ, গোলাপজল মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে মুখে লাগান।

 

চুলের যত্ন 

লেবুর খোসা

শরবত তৈরি করার পর লেবুর খোসা ফেলে না দিয়ে চুলের যত্নে ব্যবহার করা যায়। কয়েকটি লেবুর খোসা ও তিন কোয়া রসুন ভালোমতো পেস্ট করে নিন। এবার পেস্টটি শুধু মাথার ত্বকে লাগিয়ে অপেক্ষা করুন এক ঘণ্টা। রসুনের মধ্যে থাকা সালফার ও লেবুতে থাকা সাইট্রিক এসিড মাথার কোষের ভেতরে প্রবেশ করবে এই সময়ে। পরে চুল শ্যাম্পু করুন। এই প্যাক চুলপড়া রোধে খুব ভালো কাজ করে।

 

মধু ও পাকা কলার প্যাক

একটি পেঁয়াজের রসের সঙ্গে অর্ধেক পাকা কলা ও এক টেবিল চামচ মধু ভালোমতো ব্লেন্ড করে নিন। এরপর প্যাকটি মাথার ত্বকে লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। পরে শ্যাম্পু করে ফেলুন। শুষ্ক চুলে মসৃণতা আনে এই প্যাক।

 

চা পাতা

বাড়িতে চা খাওয়ার পর ব্যবহৃত পাতা ফেলে না দিয়ে কন্ডিশনারের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। এই চা পাতি পানিতে ভিজিয়ে শ্যাম্পুর পর চুলে দিয়ে স্বাভাবিক পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। কিন্তু এর জন্য চা তৈরির সময়ে কোনো রকম চিনি ব্যবহার করা যাবে না। তাতে চুলে আঠালো ভাব চলে আসবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা