kalerkantho

শুক্রবার। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৪ ডিসেম্বর ২০২০। ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২

রূপচর্চা

চুলে ব্যাংস কাটের সুবিধা

একসময় শুধু ছোট চুলের সঙ্গেই দেওয়া হতো ব্যাংস কাট। সে ধারণা পুরনো হয়ে গেছে। এখন যেকোনো চুলের সঙ্গেই চলে ব্যাংস। আছে বেশ কিছু সুবিধার দিকও। জানিয়েছেন রেড বিউটি স্যালনের রূপবিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভীন। লিখেছেন নাবীল আল জাহান

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চুলে ব্যাংস কাটের সুবিধা

ব্যাংস কাটে সামনের দিকে খানিকটা চুল কপালের ওপর ফেলে রাখা হয়। সাধারণত সেগুলো নেমে আসে ভ্রু পর্যন্ত। কপালের ওপর চুল কিভাবে ফেলে রাখা হয়, তার ওপর নির্ভর করে এই কাট নানা রকমের হতে পারে—ফুল ব্যাংস, সাইড সোয়েপ্ট ব্যাংস, ব্লান্ট ব্যাংস, উইস্পি ব্যাংস, অ্যাঙ্গেলড ব্যাংস, আর্ক ব্যাংস, কার্টেন ব্যাংস, বেবি ব্যাংস, টেক্সচার্ড ব্যাংস ইত্যাদি।

ফ্যাশন জগতের অন্যান্য অনুষঙ্গের মতো চুলের কাটেও নিয়মিত রদবদল আসে। একেক সময়ে একেকটা জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। জনপ্রিয়তায় হ্রাস-বৃদ্ধি হয় ব্যাংস কাটেরও। তবে মজার ব্যাপার হলো, এই কাট প্রায় সব সময়ই থাকে চলতি হাওয়ায়।

বিভিন্ন সময়ে এই কাট দিতে দেখা গেছে বিভিন্ন তারকাকেও। এই কাটের জনপ্রিয়তার এটিও অন্যতম কারণ। তারকাদের এই লিস্টিতে সাদাকালো যুগের নায়িকা লুইস ব্রুকস থেকে শুরু করে আছেন ‘ক্লিওপেট্রা’খ্যাত লিজ টেইলর, কিংবদন্তি ব্যান্ড ‘দ্য বিটলস’-এর চার তারকা সদস্য, এমনকি হাল আমলের ফ্যাশন মডেল কেট মস পর্যন্ত। পছন্দের তারকার কারণেও অনেকেই এই কাট বেছে নেন।

তবে অনুকরণ করে নয়, হেয়ার স্টাইল নির্বাচন করা উচিত প্রয়োজনমাফিক। অবশ্য সে বাবদেও এই কাটটি বেশ সুবিধাজনক। কারণ চুলে ব্যাংস কাট দেওয়ার রয়েছে বেশ কিছু সুবিধা। এগুলো হলো—

অনেকেরই কপাল তুলনামূলক বড়। তাদের জন্য ব্যাংস কাট বিশেষ উপযোগী। এতে কপালের সামনে চুল পড়ে থাকে বলে কপাল চুলের আড়ালে ঢাকা পড়ে যায়। ফলে কপালটা যে বেখাপ্পা বা বেশি বড় সেটা আর বোঝা যায় না। তা ছাড়া এই কাটের কারণে সবার নজর কপালের দিকে নয়, থাকে চোখের প্রতি। ফলে কপাল বড় কি না সেদিকে কেউ খেয়ালই করে না।

যাদের একটু বেশি বয়স হয়ে গেছে, তারাও ব্যাংস কাট বেছে নিতে পারেন। এই কাট দিলে এমনিতেই সবাইকে তুলনামূলক কম বয়সী মনে হয়। তা ছাড়া বুড়িয়ে যাওয়ার কারণে কপালে যে এজ লাইন বা বয়সের বলিরেখা পড়ে কিংবা কুঁচকে থাকে চামড়া, সেগুলোও এই কাটে ঢেকে থাকে।

অনেকের কপালে দুই-তিন রকমের গড়ন থাকে কিংবা গড়নে থাকে অন্য কোনো গরমিল। তাদের জন্যও এই কাট দেওয়া উত্তম। এতে কপালের এসব বৈসাদৃশ্য দেখা যায় না।

সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো, কপালের সামনে চুল থাকলে এমনিতেই সবার মুখ তুলনামূলক বেশি সুন্দর লাগে। তাই এই কাটে এমনিতেই সবাইকে ভালো দেখায়।

তবে এটাও মনে রাখা জরুরি, মুখের গড়ন বা অন্য কিছুর পাশাপাশি হেয়ার স্টাইলও ঠিক করে দেয়, আপনার হেয়ার কাট কেমন হওয়া উচিত। সব হেয়ার স্টাইলের সঙ্গে সব কাট ভালো দেখায় না। এ কথা প্রযোজ্য ব্যাংস কাটের ক্ষেত্রেও। তাই ব্যাংস কাট দিলে তেমন হেয়ার স্টাইলই করা উচিত, যেটার সঙ্গে ব্যাংস কাট ভালো লাগে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা