kalerkantho

সোমবার । ২০ জানুয়ারি ২০২০। ৬ মাঘ ১৪২৬। ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

রূপচর্চা

শীতে শিশুর ত্বকের জন্য

৯ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শীতে শিশুর ত্বকের জন্য

শিশুর ত্বকের যত্নে যে পণ্য ব্যবহার করছেন, তা আপনার শিশুর জন্য কতখানি উপযোগী?

 

শিশুর ত্বক সবার চেয়ে অনেক বেশি সংবেদনশীল। তার ওপর আমাদের দেশের আবহাওয়া খুব দ্রুত পাল্টায়, যা শিশুদের মানিয়ে নিতে কষ্ট হয়। শিশুর মাথার চুল থেকে পায়ের নখ পর্যন্ত সব কিছুর প্রতিই আলাদা যত্ন নিতে হয়। শিশুর ত্বকে তেল, ময়েশ্চারাইজার, মিনারেলসহ সব উপাদান যেন ভারসাম্য বজায় রাখে তার জন্য শিশুর ত্বক উপযোগী পণ্য ব্যবহার করতে হয়।

বাজারে এখন শিশুর জন্য দেশি-বিদেশি নানা ব্র্যান্ডের পণ্য পাওয়া যায়। কিন্তু কোন উপাদান কী পরিমাণে বেবি প্রডাক্টে থাকা উচিত, তা বুঝে কেনা হচ্ছে কি না জানা দরকার।

বেবি অয়েল : শিশুর কোমল ত্বকের সুরক্ষার জন্য বেবি অয়েল ম্যাসাজ খুব জরুরি। শিশুর হাড় মজবুত ও শক্তিশালী করে এই অয়েল ম্যাসাজ। বেবি অয়েল বেছে নিতে কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে। বেবি অয়েলের ভেতরের উপাদান যত বেশি ন্যাচারাল হবে শিশুর জন্য তত বেশি উপকারী। যেমন—আমন্ড অয়েল, অলিভ অয়েল, কোকোনাট অয়েল ইত্যাদি। আমন্ড অয়েল শিশুর ত্বকে একটা পরত সৃষ্টি করে, যা ত্বক সুরক্ষায় সাহায্য করে। ভিটামিন ‘ই’সমৃদ্ধ বেবি অয়েল শিশুর ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রেখে ত্বক নরম ও কোমল করে।

বডি অ্যান্ড হেয়ার ওয়াশ : রোজকার রুটিনে শিশুর নিয়মিত গোসল জরুরি। গোসলের সময় নো টিয়ারস ফর্মুলাযুক্ত পণ্য ব্যবহার করুন। শিশুর ত্বকে যে বডিওয়াশ বা সাবানই ব্যবহার করেন খেয়াল রাখবেন তা যেন পিএইচ ব্যালান্সড এবং ক্ষতিকর কেমিক্যাল ফ্রি হয়। এতে শিশুর ত্বক ও চুলের স্বাভাবিক কোমলতা বজায় থাকে।

বেবি লোশন : শিশুর ত্বক যেহেতু অনেক বেশি সংবেদনশীল, তাই সহজেই রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে যায়। এ কারণে বছরজুড়ে শিশুর শরীরে লোশন ব্যবহার করা উচিত। শিশুর জন্য তেমন লোশন উপযুক্ত, যা শিশুর ত্বক দ্রুত মানিয়ে নিতে পারে। মিল্কবেসড লোশন, যেমন আমন্ড মিল্কসমৃদ্ধ লোশন শিশুর ত্বকে সুরক্ষা বর্ম তৈরি করে। এ ছাড়া ভিটামিন ‘ই’যুক্ত লোশনও তার ত্বক মসৃণ রাখবে।

শিশুর ত্বকের জন্য যে পণ্য ব্যবহার করবেন, খেয়াল রাখবেন তা যেন প্যারাবেন ও কালার ফ্রি হয়।

লক্ষ রাখুন, শিশুর ব্যবহার্য পণ্য যেন কখনোই কড়া সুগন্ধিযুক্ত না হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা