kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

রূপচর্চা

কিশোরীর ত্বকের যত্ন

১৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কিশোরীর ত্বকের যত্ন

কিশোর বয়সে ত্বক এমনিতেই ভালো থাকে। দরকার নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা। এই বয়সে ত্বকের যত্নের উপায় জানিয়েছেন রেড বিউটি পার্লার অ্যান্ড স্যালনের রূপ বিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভীন। লিখেছেন মোনালিসা মেহরিন ছবি : আবু সুফিয়ান নিলাভ

বয়ঃসন্ধিকালে মেয়েদের বড় একটি শারীরিক পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। এ সময় শুধু শারীরিক নয়, মানসিক পরিবর্তন হতে শুরু করে। এ কারণে ত্বকে নানা রকম সমস্যা দেখা দেয়। যেমন—ব্রণ ওঠা, ত্বক তৈলাক্ত হয়ে যাওয়া। তৈলাক্ত ত্বকে সমস্যাটা হয় বেশি। এই বয়সী মেয়েরা দিনের অনেকটা সময় স্কুল কিংবা কলেজে থাকে। স্কুল-কলেজে যাওয়ার সময় পথের ধুলাবালি উড়ে এসে ত্বকে পড়ে। রোদে ঘেমে যায়। ঘাম শুকিয়ে ত্বকের ওপর চিটচিটে প্রলেপ পড়ে। লোপকূপ বন্ধ হয়ে যায়। এটা থেকেই ত্বকের সমস্যা শুরু হয়। এ জন্য স্কুল-কলেজেও দিনের মধ্যে কয়েকবার চোখে-মুখে পানির ঝাপটা দিতে হবে। বাসায় ফিরে ভালো কোনো ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুতে হবে। মুখ পরিষ্কার করার সময় খেয়াল রাখতে হবে যেন প্রচুর ফেনা তৈরি হয়। একই সঙ্গে হাত-পা ভালো করে সাবান দিয়ে ধুতে হবে। ত্বক যদি ভালোমতো পরিষ্কার করা না হয়, তাহলে নানা রকম চর্মরোগ হতে পারে।

যাদের ত্বক তৈলাক্ত, তাদের ভারী কোনো ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা যাবে না। ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখার জন্য হালকা ময়েশ্চারাইজার বেছে নিতে হবে। দিনের বেলা তো বটেই, রাতেও ঘুমাতে যাওয়ার আগে ভালো করে মুখ ধুয়ে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে। এ সময় ত্বকের পুরুত্ব কম থাকে। এ জন্য হালকা রোদই কিশোরীদের ত্বকের ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। স্কুল-কলেজ কিংবা বাইরে যাওয়ার সময় অবশ্যই সানস্ক্রিন লোশন ব্যবহার করতে হবে। একই সঙ্গে ছাতা ব্যবহার করতে হবে।

কিশোর বয়সে ত্বকের যত্নে রাসায়নিক উপাদানযুক্ত প্রসাধনী কম ব্যবহার করা ভালো। ঘরে তৈরি ফেসওয়াশ, স্ক্র্যাবার দিয়ে হাত-মুখ পরিষ্কার করা উচিত। স্ক্র্যাবার সপ্তাহে একবার ব্যবহার করাই ভালো। এ ছাড়া বাজার থেকে কিনে আনা ফলমূল ও সবজি দিয়ে মজার ছলেও ত্বকের যত্ন নিতে পারে তারা। বাইরে থেকে ফিরে শসা চাকার মতো কেটে চোখের ওপর কিছুক্ষণ রেখে ধুয়ে ফেললে প্রশান্তি মিলবে। রাত জেগে পড়ার ফলে চোখের নিচের ক্লান্তিভাবটাও কেটে যাবে। কমলা, লেবু, আমলকী, দুধ ইত্যাদি দিয়ে ফ্রুট ফেসপ্যাক বানিয়েও ব্যবহার করতে পারে তারা। কাঁচা হলুদের সঙ্গে মধু মিশিয়ে ত্বকে লাগালে উজ্জ্বলতা আরো বাড়বে। সপ্তাহে এক দিন সময় করে হাত ও পায়ের আলাদা যত্ন নিতে হবে। ছুটির দিন কুসুম গরম পানিতে শ্যাম্পু মিশিয়ে হাত-পা ডুবিয়ে রাখতে হবে ১৫ মিনিট। এরপর নরম ব্রাশ দিয়ে মৃদুভাবে ঘষে হাত ও পায়ের মরা চামড়া তুলে ফেলতে হবে। এরপর শুকনো তোয়ালে কিংবা গামছা দিয়ে ভালো করে মুছে ময়েশ্চারাইজার লাগাতে হবে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা