kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

পেলিও ডায়েট

১৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



পেলিও ডায়েট

মডেল: সঞ্চিতা; সাজ: শোভন মেকওভার; ছবি: কাকলী প্রধান

আদি যুগে মানুষ সরল খাবার খেত। ফলমূল, শাকপাতা আর মাছ-মাংস। দ্রুত ওজন কমাতে বিশ্বজুড়ে জনপ্রিয় হয়েছে সেই ডায়েটই। নাম পেলিও ডায়েট। এর ভালো-মন্দ নিয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানাচ্ছেন নাঈম সিনহা

পেলিও ডায়েট মূলত আদি প্রস্তর যুগের মানুষের খাদ্যাভ্যাস। যদিও এটি সঠিকভাবে জানা সম্ভব নয় যে তখন তারা ঠিক কী কী খাবার খেত। তবে গবেষকরা মনে করেন তাদের খাবারে সহজপ্রাপ্য সব উপাদান থাকত, যা শরীরের ভারসাম্য রক্ষা করত। তাই তা ওজন কমায় দ্রুত।

বারডেম জেনারেল হসপিটালের খাদ্য ও পুষ্টি বিভাগের প্রধান পুষ্টিবিদ শামসুন্নাহার নাহিদ বলেন, ‘অন্যান্য ডায়েটের মতো পেলিও ডায়েট ও খাদ্য তালিকা থেকে বেশ কিছু উপাদান বাদ দেয়। এই ডায়েটে ফাইবার কার্বোহাইড্রেট যেমন চাল, ডাল, গম এবং সব ধরনের প্রক্রিয়াজাত খাবার বাদ পড়ে। চিনি কিংবা ফাস্ট ফুড কিছুই থাকে না। পরিহার করতে হয় সফট ড্রিংস, দুগ্ধজাত খাবার, বিকল্প চিনি (স্যাকারিন), প্রক্রিয়াজাত বিভিন্ন তেল ও মার্জারিন।’

ভাবছেন না খেয়ে থাকতে হবে নাকি! চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। খেতে পারবেন মাছ-মাংস, ডিম, সবজি, ফল, বাদাম, বীজ, মরিচ, স্বাস্থ্যকর চর্বি, জলপাই ও নারকেল তেল।

যা খাবেন

গরু, ছাগল, ভেড়া, মুরগি, টার্কিসহ প্রায় সব ধরনের মাংস। সব ধরনের নদীর ও সামুদ্রিক মাছ। যেকোনো ধরনের ডিম। তবে হাঁস-মুরগির ডিম হলেই বেশি ভালো। বিশেষ করে যেসব ডিমে ওমেগা থ্রি বেশি থাকে। সবজির মধ্যে পেঁয়াজ, কাঁচা মরিচ, গাজর, টমেটো, ব্রকলিসহ প্রায় সব খেতে পারবেন। ফলে নেই বাধানিষেধ। খেতে পারবেন গোল আলু, মিষ্টি আলু, লাল আলু ও শালগম। খাওয়া যাবে বিভিন্ন ধরনের বাদাম ও বীজ, যেমন : কাজু, পেস্তা, কাঠ ও চিনাবাদাম এবং সূর্যমুখী ও কুমড়ার বীজ। তেল হিসেবে ব্যবহার করতে হবে জলপাই ও নারকেল তেল। লবণ ও মসলার জন্য বেছে নিন সামুদ্রিক লবণ ও হলুদ। চকোলেট পছন্দ করলে চিনিমুক্ত ডার্ক চকোলেট খেতে পারেন। পানীয় হিসেবে খেতে পারেন চিনি ছাড়া র চা, গ্রিন-টি ও ব্ল্যাক কফি।

 

যা খাবেন না

চিনি ও হাই ফ্রুক্টোজ সমৃদ্ধ খাবার। পানীয়, ফলের জুস, বিকল্প চিনি, পেস্ট্রি, আইসক্রিমসহ নানা প্রক্রিয়াজাত খাবার। এ ছাড়া চাল, রুটি, আটা, বার্লি, ডাল। প্রায় সব ধরনের দুগ্ধজাত খাবার ও কয়েক ধরনের ভেজিটেবল অয়েল।

যেভাবে খাবেন

সিকদার মেডিক্যাল কলেজের প্রধান পুষ্টিবিদ আশফি মোহাম্মদ বলেন, ডায়েটের সময় খেয়াল রাখতে হবে শরীর প্রয়োজনীয় খাদ্য উপাদান পাচ্ছে কি না। সে অনুযায়ী রুটিন করতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে আপনি আপনার পছন্দমতো খাবার দিয়েও চাইলে রুটিন করতে পারেন।

সতর্কতা

ডায়েটিস্ট সৈয়দা শারমিন আক্তার জানান, পেলিও কিংবা কিটোর মতো জনপ্রিয় ডায়েটগুলোতে শরীরের যেকোনো একটি পুষ্টি উপাদানকে বাদ দেয়। তাই ওজন দ্রুত কমে যায়। এতে শরীরে বিশেষ পুষ্টি উপাদানের ঘাটতি হয়। পেলিওর ক্ষেত্রে বিশেষ করে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি কমে যাওয়ার শঙ্কা থাকে। এ ছাড়া এসব ডায়েট ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, কিডনি জটিলতায় ভোগা রোগীদের জন্য ঠিক নয়। অপারেশনের আগে দ্রুত ওজন কমানোর ক্ষেত্রে এটি বেশ কার্যকর। তবে অবশ্যই সেটি সার্বক্ষণিক চিকিৎসকের দেখভালের মধ্যে। এসব ডায়েট বহির্বিশ্বে জনপ্রিয় হলেও এ নিয়ে আমাদের দেশে কোনো গবেষণা নেই। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া এই ডায়েট না করাই ভালো।

 

আধুনিক পেলিও ডায়েট

যেহেতু ডায়েটের ফলে শরীরে কিছু খাদ্য উপাদানের অনুপস্থিতি হয়, তাই বেশ কয়েক বছর ধরে এতে কিছু খাবার সংযোজন করা হচ্ছে। এসেছে কয়েক ধরনের পেলিও ডায়েট। যেখানে কিছু আধুনিক খাবার খেতে পারবেন। যেমন—গ্রাস ফিড বাটার ও গ্লুটেনমুক্ত চাল, বিশেষ করে লাল চাল। আধুনিক ডায়েটিস্টরা মনে করেন পেলিও হচ্ছে ডায়েটের একটি ধারা। এতে খুব বেশি বাধানিষেধে কট্টর না হওয়াই ভালো। সহজপাচ্য ও সহজপ্রাপ্য খাবার দিয়েই হতে পারে নিউট্রিশন ব্যালান্স।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা