kalerkantho

রবিবার । ২০ অক্টোবর ২০১৯। ৪ কাতির্ক ১৪২৬। ২০ সফর ১৪৪১                

রূপচর্চা

চুলের গোড়ায় জমছে ঘাম?

চুলের গোড়ায় ঘাম জমলে কী করতে হবে তা নিয়ে পরামর্শ দিয়েছেন ঢাকা ল্যাব এইড হাসপাতালের চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক মীর নজরুল ইসলাম। শুনেছেন এ এস এম সাদ

৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



চুলের গোড়ায় জমছে ঘাম?

ঘাম থেকে কী ধরনের সমস্যা হয়?

ঘাম থেকে যে টক্সিন নির্গত হয় তা আমাদের চুলের জন্য খারাপ। ঘামের মধ্যে যে সল্ট বা লবণ উপাদান থাকে, তা চুলের আর্দ্রতা শুষে নেয়। তাই চুল সহজেই শুষ্ক হয়ে যায়। ফলে চুল ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। ঘাম চুলের কালার মলিকিউল বা রঞ্জক পদার্থ নষ্ট করে, তাই চুল সহজেই পেকে যেতে থাকে। আর সব থেকে বড় কথা ঘাম জমে স্কাল্পের (মাথার ত্বকের) ক্ষতি হয়, যা চুলের বৃদ্ধিতে বাধা সৃষ্টি করে।

মেয়ে

খেলা কিংবা জিমে : মেয়েদের চুল লম্বা বলে ঘামও বেশি হয়। কারণ চুলের গোড়ায় বাতাস খুব একটা চলাচল করতে পারে না। চুলের ভেতরে বিলি কেটে ভেজাভাব দূর করার চেষ্টা করুন, প্রয়োজনে পাতলা কাপড় বা টিস্যু সঙ্গে রাখুন। একটু পরপর চুলের গোড়া মুছে নিন। চুল বাঁধুন ঢিলেঢালা করে। এতে চুলের ভেতরে বাতাস চলাচল করবে, সহজে ঘাম হবে না।

হিজাব পরলে: যাঁরা হিজাব পরেন, তাঁদের চুলের গোড়া বেশি ঘামে, চুলও পড়ে বেশি। সপ্তাহে দুই দিন আমলকীর সঙ্গে টক দই মিশিয়ে চুলের গোড়ায় লাগালে চুল পড়া বন্ধ ও গোড়া শক্ত করবে।

রান্না ঘরে: চুলার আগুনের তাপে রান্নাঘরে অতিরিক্ত ঘাম হয়। রান্নাঘরে ফ্যান লাগিয়ে ফেলুন। রান্না শেষে ফ্যানের বাতাসে ঘাম শুকিয়ে নিন।

হাতে সময় কম থাকলে: কর্মজীবী নারী কম সময়ে নিজের যত্ন নিতে ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন। বাইরে যাওয়ার আগে ড্রাই শ্যাম্পু ভালো করে মাথায় মেখে চুল আঁচড়ে নিন। বাইরে থেকে এসেও ব্যবহার করতে পারেন ড্রাই শ্যাম্পু। শুধু তোয়ালে দিয়ে হালকা করে অতিরিক্ত ঘাম মুছে নিয়ে মাথায় ব্যবহার করুন এই শ্যাম্পু।

স্কুটি চালালে : হেলমেট পরলে ঘাম হবেই। তাই যথাসম্ভব ঘাম মুছে ফেলার চেষ্টা করুন। বাসায় এসে প্রথমে তোয়ালে দিয়ে চুলের অতিরিক্ত ঘাম শুকিয়ে নিন। তারপর হেয়ার ড্রায়ারের ঠাণ্ডা বাতাসে চুল আরো ভালোভাবে শুকিয়ে নিন। অর্থাত্ ড্রায়ার যেন ‘কুলিং মোড’-এ থাকে। ‘হট মোড’-এ রাখলে কিন্তু চুলের ক্ষতিই হবে।

ঘুমানোর সময়: ঘুমানোর সময় চুল বেঁধে রাখার চেষ্টা করুন।

 

ছেলে

খেলাধুলার সময় : খেলাধুলার সময় ছেলেরা বেশি ঘামে, বিশেষ করে একটানা অনেকক্ষণ রোদে থাকলে চুলের গোড়ায় ঘাম জমতে থাকে। পরে ঘামের জন্য বিভিন্ন চর্মরোগ হয়। বাতাস প্রবাহের জন্য ছিদ্রযুক্ত ক্যাপ ব্যবহার করলে ঘাম কম হবে। খেলার সময় সুযোগ পেলে রুমাল দিয়ে ঘাম মুছে ফেলুন। খেলা শেষে চুলের ঘাম শুকিয়ে ভালোমতো শ্যাম্পু করে নিন।

জিমে : আজকাল মার্কেটে সোয়েট ব্যান্ড পাওয়া যায়, বিশেষত জিমে গেলে এটা ব্যবহার করতে পারেন। মাথায় এটা বেঁধে ওয়ার্কআউট করুন। এটা চুল থেকে অতিরিক্ত ঘাম শুষে নেবে আর চুলের ময়েশ্চার ধরে রাখবে।

হেলমেট ব্যবহারে : গরমে বাইকে হেলমেট ব্যবহার করলে ঘাম বেশি হয়। তাই অনেকক্ষণ ধরে বাইক চালানোর পরিকল্পনা থাকলে হেলমেট পরার আগেই শ্যাম্পু করে নিন। এতে আপনার চুলের গোড়া ঠাণ্ডা থাকবে, সহজে ঘাম হবে না।

জেলের পরিবর্তে লিভ ইন কন্ডিশনার ব্যবহার: চুল সেট রাখার জন্য ছেলেরা জেল ব্যবহার করে। তবে বাইরে বেশিক্ষণ থাকতে হলে জেল পরিহার করাই ভালো। পরিবর্তে লিভ ইন কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। বাইরে যাওয়ার আগে এটি লাগিয়ে বেরোবেন। এটা আপনার চুলকে ইউভি রে (অতি বেগুনি রশ্মি) থেকেও রক্ষা করে থাকে। দোকান থেকে যেকোনো ভালো ব্র্যান্ডের লিভ-ইন কন্ডিশনার কিনে নিতে পারেন।

খুশকি থাকলে: তুলনামূলকভাবে ছেলেদের মাথায় খুশকি বেশি দেখা যায়। গরমে, ঘামে খুশকি চিটচিটে আর্দ্রও হয়ে পড়ে। সব সময় অ্যান্টি ড্যানড্রাফ শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। খুশকির মাত্রা বেশি হলে চিকিত্সকের পরামর্শ নিন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা