kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

মশা তাড়ানোর নিরাপদ উপায়

ঘরের মশা তাড়াতে কত তত্পরতা! খরচাপাতিও কম না। মশা তাড়াতে রাসায়নিক ওষুধ ব্যবহারে রয়েছে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। ঘরে শিশু থাকলে তো আরো সমস্যা। সমাধান দেবে ঘরোয়া ভেষজ দাওয়াই

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে




মশা তাড়ানোর

নিরাপদ উপায়

লেবু-লবঙ্গ

লেবু অর্ধেক কেটে এর মধ্যে বেশ কয়েকটি লবঙ্গ এমনভাবে গেঁথে দিন, যেন লবঙ্গের মাথার দিকটা বেরিয়ে থাকে। লেবুর টুকরাগুলো এবার একটা পাত্রে নিয়ে ঘরের কোনায় রেখে দিন। ঘরে মশা থাকবে না। চাইলে জানালায় রাখতে পারেন। এতে মশা ঘরে আসতে পারবে না।

নিমের তেল

নিমে মশা তাড়ানোর বিশেষ গুণ রয়েছে। সমপরিমাণ নিম তেল ও নারকেল তেল মিশিয়ে ত্বকে লাগিয়ে নিন। মশা ধারে-কাছেও ভিড়বে না। আর নিমের তেল ত্বকের জন্যও ভালো। ত্বকের অ্যালার্জি, ইনফেকশনজনিত নানা সমস্যাও দূর হবে এই তেলের মিশ্রণ ব্যবহারে। পানিতে নিমপাতা সিদ্ধ করে ঠাণ্ডা হলে স্প্রে বোতলে নিয়ে ঘরে স্প্রে করুন। মশা দূর হয়ে যাবে। শুকনো নিমপাতা পোড়ালে সেই গন্ধে কয়লা বা কাঠ-কয়লার আগুনে নিমপাতা পোড়ালে যে ধোঁয়া হবে, তা মশা তাড়ানোর জন্য খুবই কার্যকর।

 

কর্পূর

কর্পূরের গন্ধ মশা একেবারেই সহ্য করতে পারে না। একটি ৫০ গ্রামের কর্পূরের ট্যাবলেট কিংবা কর্পূর গুঁড়া একটি ছোট বাটিতে রেখে বাটিটি পানি দিয়ে ভরে দিন। ঘরের কোণে রেখে দরজা-জানালা বন্ধ করে দিন। অল্প সময়ে ঘরের মশা গায়েব হয়ে যাবে। দুই দিন পর পানি পরিবর্তন করতে হবে। আগের পানিটুকু ফেলে দেবেন না। এই পানি ঘর মোছার কাজে ব্যবহার করলে ঘরে পিঁপড়ার যন্ত্রণা থেকেও মুক্তি পাবেন।

হলুদ বাতি

ঘরে মশার উত্পাত কমাতে চাইলে, হলুদ আলোর বৈদ্যুতিক বাতি বেছে নিন কিংবা বাতিটি সেলোফেনে জড়িয়ে নিন। দেখবেন মশা কমে গেছে, কারণ মশা হলুদ আলো থেকে দূরে থাকতে চায়। এ ছাড়া ঘরে ও ঘরের বাইরে লাইট বাল্বগুলো পরিবর্তন করুন। মশা সাধারণত সব আলোর প্রতি আকৃষ্ট হয় না। এলইডি লাইট, হলুদ ‘বাগ লাইট’ বা সোডিয়াম লাইট এ ক্ষেত্রে উপকারী। এগুলো জ্বালালে সন্ধ্যাবেলা ঘরে-বাইরের টহল মশাদের আক্রমণ অনেকটাই কমে যাবে।

 

ব্যবহূত চা পাতা

ব্যবহূত চা পাতা ফেলে না দিয়ে ভালো করে রোদে শুকিয়ে নিন। শুকনো চা পাতা ধুনোর বদলে পোড়ান। চা পাতার ধোঁয়ায় ঘরের সব মশা-মাছি পালিয়ে যাবে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা