kalerkantho

মঙ্গলবার । ৭ বৈশাখ ১৪২৮। ২০ এপ্রিল ২০২১। ৭ রমজান ১৪৪২

রূপচর্চা

ধাপে ধাপে ত্বক পরিষ্কার

ত্বকের যত্নের প্রথম এবং অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হলো ‘ক্লিঞ্জিং’। আকাঙ্কা’স গ্ল্যামার ওয়ার্ল্ডের রূপ বিশেষজ্ঞ জুলিয়া আজাদের সুঙ্গে কথা বলে ধাপে ধাপে সময় নিয়ে ত্বক পরিষ্কারের উপায় জানালেন আনিকা বিনতে কাসেম

১১ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ধাপে ধাপে ত্বক পরিষ্কার

সন্ধ্যায় বাসায় ফিরে এবং রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগের সময়টুকুর ভেতরে ‘ডাবল ক্লিঞ্জিং’ অর্থাত্ দুই উপায়ে ত্বক পরিষ্কার করা খুব জরুরি। সারা দিনের ব্যস্ততার মধ্যে মুখে একটু একটু করে ধূলিকণা, লোমকূপ নিঃসৃত তেল, সানস্ক্রিন, মেকআপ ইত্যাদি জমে। এগুলোর কিছু তেলে দ্রবীভূত হয় আর কিছু পানিতে। তাই শুধু ফেইসওয়াশ দিয়ে সব ময়লা দূর করা যায় না। এ জন্য প্রথমে দরকার হবে একটা অয়েল বেইজড ক্লিঞ্জার। এটি একদম ত্বকের গভীর থেকে মেকআপ বা ক্রিমের অবশিষ্টাংশ বের করে আনবে। এরপর আপনি একটি ওয়াটার বেইজড ক্লিঞ্জার (নরমাল ফেইসওয়াশ) দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেললেই পরিষ্কার হয়ে যাবে সব রকম ময়লা ও ঘাম। এরপর ত্বকে টোনার কিংবা নাইট ক্রিম

ব্যবহার করে বিছানায় যেতে পারেন। সকালে বাইরে যাওয়ার সময় মুখে মেকআপ নেওয়া কিংবা সানস্ক্রিন দেওয়ার আগে ফেইসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেললেই চলবে।

নিয়মিত ক্লিঞ্জিং বাদেও সপ্তাহে অন্তত এক বা দুবার স্ক্রাবিং করা জরুরি। কেননা, প্রতিনিয়তই আমাদের ত্বকে মৃত কোষ জমা হতে থাকে। স্ক্রাব লোমকূপের ভেতর থেকে জমে থাকা মৃত কোষ বের করে এনে হোয়াইটহেডস এবং ব্রণ হওয়ার আশঙ্কা কমিয়ে দেয়। তবে মনে রাখতে হবে, স্ক্রাব ত্বকের ওপরের লেয়ার সরিয়ে ফেলে ত্বককে কিছু সময়ের জন্য সেনসিটিভ করে তোলে। তাই সপ্তাহে দুবারের বেশি স্ক্রাবিং করার দরকার নেই। স্ক্রাবিং করার সবচেয়ে ভালো সময় হলো, রাতের বেলা। কারণ রাতে স্ক্রাবিং করলে সেনসিটিভ থাকা অবস্থায় ত্বকে সূর্যের আলো পড়বে না।

যাঁদের ব্রণের সমস্যা আছে তাঁরা স্ক্রাব বা ফিজিক্যাল এক্সফোলিয়েটর ব্যবহার না করে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী কেমিক্যাল এক্সফোলিয়েটর ব্যবহার করতে পারেন। চাইলে ঘরোয়া পদ্ধতিতে প্রাকৃতিক উপকরণ দিয়ে স্ক্রাব বানানো যায়। ওট, টক দই, মধু, বাদামি চিনি, চালের গুঁড়া, দুধ, নারিকেল তেল, চিনি ইত্যাদি সমন্বয়ে বাড়িতেই স্ক্রাব বানাতে পারেন। মিশ্রণটি প্রথমে অল্প করে ব্যবহার করে দেখুন, আপনার ত্বকে কোনো বিরূপ প্রতিক্রিয়া হচ্ছে কি না। নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া হলে এ ধরনের স্ক্রাব ব্যবহার বাদ দিন।

আরেকটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে, স্ক্রাব ঘরে বানানো কিংবা কেনা যা-ই হোক না কেন, কোনোভাবেই ত্বকে বেশি ঘষাঘষি করা যাবে না। আলতো করে ম্যাসাজ করে কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। একেকজনের ত্বক একেক রকম। সব রকম ফেইসওয়াশ সব ত্বকে উপযোগী না-ও হতে পারে। শুষ্ক ত্বক যাঁদের, তাঁরা এমন কোনো ফেইসওয়াশ ব্যবহার করবেন না, যেটা ন্যাচারাল অয়েল ধুয়ে ফেলে ত্বককে টানটান করে ফেলবে। সব ধরনের ত্বকের জন্যই অতিরিক্ত সুগন্ধি, রং ও অ্যালকোহলযুক্ত ফেইসওয়াশ এড়িয়ে চলা উচিত। ডাবল ক্লিঞ্জিং শুরুতে কিছুটা বিরক্তিকর মনে হতে পারে। কিন্তু একটু সময় নিয়ে ব্যবহার করলে দেখবেন, ধীরে ধীরে ত্বকের অনেক সমস্যারই সহজে সমাধান হয়ে যাচ্ছে।

মন্তব্য