kalerkantho

রবিবার । ৬ আষাঢ় ১৪২৮। ২০ জুন ২০২১। ৮ জিলকদ ১৪৪২

ভেষজ দাওয়াই

ক্ষেতপাপড়া

   

৩০ জুন, ২০১৪ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ক্ষেতপাপড়া

ক্ষেতপাপড়া গাছের পাতা ও ফুলের ভেষজগুণ অনন্য।

* ডায়রিয়া ও আমাশয় হলে ১৫ গ্রাম কাঁচা বা শুকনো ক্ষেতপাপড়া থেঁতো করে দেড় বা দুই কাপ গরম পানিতে আধাঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে ছেঁকে নিন। এটা ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর পর একটু একটু করে পান করলে ডায়রিয়া ও আমাশয় ভালো হয়ে যাবে।

* অনেক সময় শরীরের কোথাও কেটে গেলে রক্ত দ্রুত বন্ধ হয় না কিংবা পুড়লে ক্ষত সারে না। এসব ক্ষেত্রে ৬ থেকে ৭ গ্রাম ক্ষেতপাপড়া পানিতে ভিজিয়ে থেঁতো করে এক গ্লাস গরম পানিতে ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন। এরপর পানি ছেঁকে সকালে ও বিকেলে দুবার এই পানি পান করলে সেরে যাবে।

* হাত-পায়ে জ্বালাপোড়া করলে ৪ থেকে ৭ গ্রাম শুকনো ক্ষেতপাপড়া কিছুক্ষণ পানিতে ভিজিয়ে থেঁতো করে ৪ কাপ পানিতে সিদ্ধ করে দুই কাপ থাকতে নামিয়ে ছেঁকে নিন। এরপর সকালে ও বিকেলে দুবার পান করুন। কয়েক দিনের মধ্যে হাত-পা জ্বালাপোড়া দূর হয়ে যাবে।

* কাশি হচ্ছে এবং কফ কোনোভাবে বের হচ্ছে না, এমন পরিস্থিতিতে ১০ গ্রাম কাঁচা ক্ষেতপাপড়া (শুকনো হলে ৫ গ্রাম) ৩ কাপ পানিতে সিদ্ধ করে এক কাপ থাকতে নামিয়ে ছেঁকে সকাল ও বিকেলে দুবার পান করুন। কাশির সঙ্গে কফ বের হয়ে কাশি কমবে।

* ক্ষেতপাপড়ায় ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, সোডিয়াম ও পলিস্যাকারাইড আছে। ক্যালসিয়াম আমাদের হাড় ও দাঁত মজবুত করে।

* এ ছাড়া স্নায়বিক ইনফরমেশন পরিবহনে স্নায়ুতন্ত্রকে বিশেষ সহায়তা করে।

* ক্ষেতপাপড়া ব্লাডপ্রেশার নিয়ন্ত্রণ করে।

* মাংসপেশি ও হরমোনের কার্যকারিতায় সাহায্য করে।

* শরীরে ভিটামিন শোষণে সহায়তা করে।

পটাসিয়াম শরীরে পানির ভারসাম্য নিয়ন্ত্রণ করে এবং শক্তি উৎপাদন করা এনজাইমগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করে। ঘুম বাড়ায় ও স্বাস্থ্য ভালো রাখে।

* সোডিয়াম শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করে। রক্তে ক্যালসিয়াম ধরে রাখে।

* অ্যালবুমিন এবং ফিব্রিনের ভারসাম্য নিয়ন্ত্রণ করে।

সেবনবিধি

কাঁচা গাছ ১৫ গ্রাম, শুকনো ৬ গ্রাম।

সতর্কতা

অতিরিক্ত মাত্রায় পান করলে ফুসফুসের ক্ষতি হয়।