kalerkantho

শনিবার । ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৬ রবিউস সানি               

চাঁদ কারাগারে নাদিম ঘরে

রফিকুল ইসলাম, রাজশাহী   

১২ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



চাঁদ কারাগারে নাদিম ঘরে

রাজশাহী-৫ আসনে বিএনপির প্রার্থী ও সাবেক এমপি নাদিম মোস্তফা এলাকায় যেতে পারছেন না। অন্যদিকে একের পর এক গায়েবি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হচ্ছে রাজশাহী-৬ আসনে বিএনপির প্রার্থী আবু সাঈদ চাঁদকে। সবমিলিয়ে ২১টি মামলা রয়েছে তাঁর নামে। এর মধ্যে নতুন করে দুটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনের প্রার্থী নাদিম মোস্তফা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের বাধার মুখে পড়তে পারেন—এমন আশঙ্কায় এলাকায় যাওয়ার সাহস পাচ্ছেন না। গত ৯ ডিসেম্বর নানা জল্পনাকল্পনা শেষে যখন নাদিম মোস্তফার মনোনয়ন চূড়ান্ত করে বিএনপি, খবর পেয়ে ওই দিন রাতে প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করে দুর্গাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। পাশাপাশি জনপ্রিয় নেতা নাদিমকে ঠেকাতে দুর্গাপুরে আওয়ামী লীগের একটি পক্ষ এলাকায় ঢুকতে বাধা দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। এ ছাড়া বিএনপির একটি পক্ষ নাদিম মনোনয়ন পাক সেটি চাইছিল না। এ অবস্থায় বিএনপির একটি পক্ষ নাদিমবিরোধী মনোভাব পুষে রয়েছে ভেতরে ভেতরে। ফলে প্রচারণার জন্য এলাকায় গেলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা নাদিমের সমর্থকদের ওপর হামলা করতে পারে, এমন আশঙ্কা থেকে এলাকায় যাচ্ছেন না বলে দাবি করেছে তাঁর ঘনিষ্ঠরা।

গতকাল মঙ্গলবার নাদিম পুঠিয়ায় মহাসড়কের পাশে প্রচারণার জন্য গেলেও বাধার মুখে পড়েন। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

জানতে চাইলে পুঠিয়া উপজেলা বিএনপির নেতা আলম উদ্দিন বলেন, ‘নাদিম মোস্তফার দিকে তাকিয়ে আছে পুঠিয়া-দুর্গাপুরের মানুষ। কিন্তু তাঁকে ঠেকাতে মরিয়া হয়ে আছে আওয়ামী লীগের কিছু অংশের নেতাকর্মীরা। তারা গণজোয়ার ঠেকাতে প্রাণপণ চেষ্টা করবে। এ কারণে আপাতত নির্বাচনী গণসংযোগে যাচ্ছেন না তিনি। তবে তাঁর হয়ে আমরা সব নেতাকর্মী মাঠে কাজ করে যাচ্ছি।’

উল্লেখ্য, গত প্রায় ১১ বছর ধরে নাদিম নির্বাচনী এলাকায় ঢুকতে পারেননি আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের বাধা এবং পলাতক থাকার কারণে। ২০০৮ সালের নির্বাচনে তাঁর পরিবর্তে বিএনপি মনোনয়ন দেওয়া হয় নজরুল ইসলাম মণ্ডলকে। এবারও নাদিমের বিকল্প হিসেবে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল নজরুলকে। শেষ পর্যন্ত নির্বাচন কমিশন থেকে মনোনয়ন ফিরে পাওয়ার পরে পুনরায় নাদিমকে মনোনয়ন দেয় বিএনপি। কিন্তু এর দুই দিন আগে চূড়ান্ত প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল নজরুলকে। এ নিয়ে নজরুলের সমর্থকরা এখনো ক্ষুুব্ধ। তবে এ প্রসঙ্গে জানার জন্য নাদিম মোস্তফাকে কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

এদিকে রাজশাহী-৬ (বাঘা-চারঘাট) আসনে বিএনপির এমপি পদপ্রার্থী আবু সাঈদ চাঁদকে পরিকল্পিতভাবে একের পর এক গায়েবি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন তাঁর আইনজীবী।

আইনজীবী জোহরুল আলম বলেন, ২১টি মামলা দেওয়া হয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। সর্বশেষ গত ৯ ডিসেম্বর বাগমারা থানায় পুরনো মামলায় বিএনপির এ নেতাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। গত ৩ আগস্ট বাগমারায় ককটেল উদ্ধার মামলায় চাঁদকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। এই মামলায় এজাহারে নাম ছিল না চাঁদের। কিন্তু সব মামলায় জামিন পাওয়ার পরে বাগমারা থানার ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। এর আগে গত ১ সেপ্টেম্বর বিকেলে চাঁদকে চারঘাটে বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ওই সময় তাঁর বিরুদ্ধে ১৯টি মামলা ছিল। কিন্তু গত ১৯ নভেম্বর তিনি সব মামলায় জামিন পেলে বাঘা থানার একটি পুরনো মামলায় তাঁকে ফের গ্রেপ্তার দেখায় পুলিশ।

চাঁদের একান্ত সহকারী জালাল উদ্দিন বলেন, ‘আমাদের প্রার্থীর জনপ্রিয়তা দেখে তাঁকে একের পর এক মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হচ্ছে। তিনি এলাকায় এসে যেন ভোটের প্রচারণা চালাতে না পারেন, এ জন্য তাঁকে জেল থেকে বের হতে দেওয়া হচ্ছে না। তবে নেতাকর্মীরা তাঁর হয়ে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।’

রাজশাহী জেলা রিটার্নিং অফিসার এস এম আব্দুল কাদের বলেন, ‘সব প্রার্থীর জন্য আমরা সমান সুযোগ তৈরি করেছি। এখানে কোনো বৈষম্যের সুযোগ নেই। সমান সুযোগ তৈরি করার জন্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সর্বাত্মক প্রস্তুতি আছে।’

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা