kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

বামনা

নৌকা ডোবাতে মরিয়া আ. লীগের একাংশ

বামনা (বরগুনা) প্রতিনিধি   

২৭ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বরগুনার বামনায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে হারাতে উপজেলা আওয়ামী লীগের বেশির ভাগ নেতা মরিয়া হয়ে উঠেছেন। তাঁরা বিভিন্ন নির্বাচনী সভায় অংশ নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে ভোট চেয়ে বক্তব্য রাখছেন।

বামনা উপজেলায় মোট ভোটার ৫৪ হাজার ৯৫৩ জন। উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে দুজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সাইতুল ইসলাম লিটু মৃধা। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে দোয়াত-কলম প্রতীকে নির্বাচন করছেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সৈয়দ মানজুরুর রব মতুর্যা আহসান। তিনি প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। অন্যদিকে নৌকা প্রার্থী সাইতুল ইসলাম লিটু একনাগাড়ে তিনবার উপজেলার ডৌয়াতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। তা ছাড়া বর্তমান তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তাই এবারের নির্বাচনে দুই প্রার্থীই শক্ত অবস্থানে রয়েছেন।

এবার স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে আওয়ামী লীগের একাংশসহ উপজেলার চারটি ইউনিয়নের তিন ইউপি চেয়ারম্যান একাট্টা হয়েছেন। তাঁরা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান নিয়ে সভা ও গণসংযোগ করছেন। ফলে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাধারণ ভোটাররা বিপাকে পড়েছে।

নৌকা প্রার্থীর সমর্থক হেলাল হাওলাদার বলেন, ‘স্বতন্ত্র প্রার্থী একসময় বিএনপি করতেন। এই প্রার্থীর পক্ষে আওয়ামী লীগের কিছু নেতা বক্তব্য দিতে মঞ্চে উঠে জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু বলে স্লোগান দিচ্ছেন। এটা মেনে নেওয়া যায় না। তিনি যদি দলীয় বিদ্রোহী প্রার্থী হতেন তাহলেও বিষয়টি মানা যেত। একজন বিএনপির আদর্শের প্রার্থীর মঞ্চে দলীয় স্লোগান দেওয়ার বিষয়টি আমি মানতে পারছি না।’

তিন ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের একাংশের নেতারা কেন নৌকা প্রার্থীকে হারাতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাইছেন—এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মোশাররফ হোসেন জমাদ্দার জানান, এ উপজেলার আওয়ামী লীগ প্রার্থী দুর্নীতিগ্রস্ত। তিনি জনগণকে নলকূপ দেওয়ার কথা বলে টাকা নিয়েছেন, কিন্তু দেননি। তাই জনগণকে ন্যায্য পাওনা দেওয়ার জন্য স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন তাঁরা।

নির্বাচনের ব্যাপারে স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দ মানজুরুর রব মতুর্যা আহসান বলেন, ‘আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বিভিন্ন সময়ে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে আসছেন। আমার সমর্থক ও ভোটারদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। প্রকাশ্যে তাঁরা আমাকে ও আমার সমর্থকদের নিয়ে বিভিন্ন সভায় অশালীন বক্তব্য দিচ্ছেন। তবে আমি এসবের পরোয়া করি না। নির্বাচনে জনগণ আমাকেই বিজয়ী করবে বলে মনে করছি।’

আওয়ামী লীগ প্রার্থী সাইতুল ইসলাম লিটু বলেন, ‘যেসব নেতারা দোয়াত-কলমের পক্ষে নেমেছেন তাঁরা কখনো আওয়ামী লীগ করতে পারেন না। তাঁরা সব সময়ই সুবিধাবাদী শ্রেণির লোক। জনগণ তাঁদের ভালো করে চেনে। তাঁদের বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আগামী ৩১ মার্চের নির্বাচনে সব ষড়যন্ত্র ভেঙে নৌকারই বিজয় হবে আশা করছি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা