kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ফটিকছড়িতে বিদ্রোহী প্রার্থীর সঙ্গে নৌকার লড়াই

নূপুর দেব, চট্টগ্রাম   

১৭ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে চট্টগ্রামের সাত উপজেলার মধ্যে ছয়টিতেই চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। শুধু ফটিকছড়ি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী রয়েছেন। তবে এ উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর সঙ্গে বিদ্রোহী প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ লড়াই হবে।

তবে এবার ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদের জন্য নির্বাচনী মাঠ সরগরম রেখেছে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা এসব পদে নির্বাচন করছেন।

আগামীকাল সোমবার দ্বিতীয় পর্যায়ের উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। এতে চট্টগ্রামের সাত উপজেলায় নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এর মধ্যে মিরসরাই ও রাউজানে নির্বাচন হবে না। প্রতিটি পদে একজন করে প্রার্থী থাকায় উত্তর চট্টগ্রামের ওই দুই উপজেলার সবাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়া চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন মিরসরাইয়ে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন, সীতাকুণ্ডে উত্তর জেলা যুবলীগের সভাপতি এস এম আল মামুন, সন্দ্বীপে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শাহজাহান, হাটহাজারীতে উত্তর জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম রাশেদুল আলম, রাউজানে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যাক্ষ এহেছানুল হায়দার চৌধুরী ও রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খলিলুর রহমান চৌধুরী।

ফটিকছড়ি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পান সংগঠনের উপজেলা সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন। এ ছাড়া চেয়ারম্যান পদে আরো নির্বাচন করছেন উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এইচ এম আবু তৈয়ব ও উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আফসার উদ্দিন। এ উপজেলায় নৌকা প্রতীকের নাজিম ও বিদ্রোহী প্রার্থী তৈয়বকে নিয়ে সংগঠনের নেতাকর্মীরা বিভক্ত হয়ে পড়েছে।

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক বেদারুল আলম চৌধুরী বেদার বলেন, ‘ফটিকছড়িতে দলের বিদ্রোহী যাঁকে বলা হচ্ছে তিনি সংগঠনের কোনো পদে নেই। সেখানে অন্য দুজন প্রার্থী থাকলেও আমাদের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জনপ্রিয়।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা