kalerkantho

মঙ্গলবার । ২২ অক্টোবর ২০১৯। ৬ কাতির্ক ১৪২৬। ২২ সফর ১৪৪১              

পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদের ওপর হামলা চলছেই

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

১৬ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজশাহীর তানোরে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর সমর্থকরা উপজেলার বিভিন্ন স্থানে পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদের বাড়িঘরে হামলাসহ মারধর করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত সংসদ নির্বাচনের পরও একইভাবে প্রতিপক্ষের লোকজনের ওপর হামলা করে ময়নার লোকজন। এ নিয়ে কালের কণ্ঠসহ একাধিক গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর প্রশাসনের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, গত ১০ মার্চ তানোর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না ও ওয়ার্কার্স পার্টি থেকে শরিফুল ইসলাম চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ছিলেন। মাত্র ৩২১ ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হন ময়না। ভোটের ফল ঘোষণার পর থেকেই বিজয়ী পদপ্রার্থী ময়নার সমর্থকরা শরিফুলের সমর্থকদের ওপর হামলা চালায়। ওই রাতেই উপজেলার পাঁচন্দরসহ বিভিন্ন এলাকায় কয়েকটি বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয়।

গত ১১ মার্চ সকালে ময়নার সমর্থকরা উপজেলার পাঁচন্দর ইউনিয়নের কোয়েল বাজারে গিয়ে তাণ্ডব চালায়। এলাকার ভোটকেন্দ্রে নৌকার প্রার্থী কম ভোট পাওয়ায় ময়না সমর্থকরা কয়েক দিন ধরে কোয়েল বাজারের সব দোকানপাট বন্ধ রাখতে বাধ্য করছে। একই দিন ময়নার সমর্থকরা বানিয়াল আদিবাসী পল্লীতেও হামলা চালায়। এ সময় কয়েকজন আদিবাসীকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা হয়। গত ১২ মার্চ রাতে ময়নার নেতৃত্বে বের করা বিজয় মিছিল থেকে বিভিন্ন বাড়িঘরে হামলা-ভাঙচুর চালানো হয়।

তানোর উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘উপজেলার বিভিন্ন স্থানে আমার সমর্থকরা বিজয়ী প্রার্থী ময়নার ক্যাডার বাহিনীর হাতে আক্রান্ত হচ্ছেন। পুলিশে অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার মিলছে না।’

এর আগে গত ১১ মার্চ রাজশাহী জেলা ও মহানগর ওয়ার্কার্স পার্টির পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করে ময়নার বিজয় নিয়ে প্রশ্ন তুলে নতুন করে নির্বাচনের দাবির পাশাপাশি শরিফুলের সমর্থকদের ওপর হামলা বন্ধের আহ্বান জানানো হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা