kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

রাজবাড়ীর তিন উপজেলা

কেন্দ্র নমনীয়, বিদ্রোহীরা ফুরফুরে

জাহাঙ্গীর হোসেন, রাজবাড়ী   

৯ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কেন্দ্র নমনীয়, বিদ্রোহীরা ফুরফুরে

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কেন্দ্র নমনীয় হওয়ায় রাজবাড়ীর তিন উপজেলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা বেশ ফুরফুরে। অর্থাৎ দলের প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনে অংশ নিয়ে এবার কাউকে বহিষ্কার হতে না হওয়াকে তাঁরা ইতিবাচকভাবেই দেখছেন।

বিদ্রোহী প্রার্থীরা জানিয়েছেন, দল চাচ্ছে এবারের উপজেলা পরিষদ নির্বাচন যেন উৎসবমুখর হয়। যেহেতু বিএনপি নির্বাচনে আসছে না। প্রায় প্রতিটি উপজেলায় দলের একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন।

জানা গেছে, তৃতীয় ধাপে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলা ছাড়া সদর, গোয়ালন্দ, পাংশা ও বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাচনে ইতিমধ্যে ১০ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ বলে ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। এর মধ্যে গোয়ালন্দ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের কোনো বিদ্রোহী প্রার্থী নেই। তবে সদরে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী ও রাজবাড়ী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শফির বিপরীতে বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এস এম নওয়াব আলী এবং জেলা আওয়ামী লীগের সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ইমদাদুল হক বিশ্বাস।

পাংশা উপজেলায় আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম শফিকুল মোর্শেদ আরুজের বিপরীতে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদ মণ্ডল। বালিয়াকান্দি উপজেলায় আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদের বিপরীতে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও রাজবাড়ী-২ আসনের এমপি মো. জিল্লুল হাকিমের চাচাতো ভাই মো. এহসানুল হাকিম।

গোয়ালন্দ উপজেলায় আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এ বি এম নুরুল ইসলাম। সেখানে কোনো বিদ্রোহী প্রার্থী নেই।

পাংশা উপজেলায় আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী এ কে এম শফিকুল মোর্শেদ আরুজ জানান, তাঁর এলাকায় ইতিমধ্যে নির্বাচনী আমেজের সৃষ্টি হয়েছে। তিনি ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন। বিজয়ের ব্যাপারে তিনি পুরোপুরি আশাবাদী।

বিদ্রোহী প্রার্থী ও পাংশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদ মণ্ডল জানান, দলের পক্ষ থেকে বিদ্রোহী প্রার্থীদের ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হবে না বলে জানানো হয়েছে।

সদর উপজেলার দুই বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী এস এম নওয়াব আলী এবং অ্যাডভোকেট ইমদাদুল হক বিশ্বাস জানিয়েছেন, তাঁরা নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার লক্ষ্য নিয়েই এগোচ্ছেন। সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা