kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

পেশিশক্তিমুক্ত নেতাকে প্রার্থী করার সুপারিশ

মেহেরপুর প্রতিনিধি   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এ বছর পাঁচটি ধাপে উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তৃতীয় ধাপে মেহেরপুরের তিনটি উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে। এবার পেশিশক্তি ও দুর্বৃত্তায়নমুক্ত নেতাকে চেয়ারম্যান প্রার্থী করার সুপারিশ করা হয়েছে জেলা আওয়ামী লীগ থেকে। একই সঙ্গে মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতা ও জনপ্রিয়তা আছে, দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতি করছেন এবং পরিচ্ছন্ন ইমেজ—এমন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে।

এরই মধ্যে সদরের ছয়জন, গাংনীর সাতজন ও মুজিবনগরের চারজন মনোনয়নপ্রত্যাশী আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের কাছে আবেদন জমা দিয়েছেন।

সদরে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে আছেন সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও আমঝুপি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন আহমেদ চুন্নু, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক আরিফুল এনাম বকুল, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক শহিদুল ইসলাম পেরেশান, সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) জয়নাল আবেদীনের ছেলে তানভির আহমেদ খান রানা, বুড়িপোতা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আমিরুল ইসলাম এবং পৌর মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদিকা রেহেনা খাতুন।

গাংনীতে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেক, জেলা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা নুরজাহান বেগম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শফিকুল আলম, সাবেক পৌর মেয়র আহমেদ আলী, জেলা পরিষদের সদস্য মজিরুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মোখলেসুর রহমান মুকুল, জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক ওয়াসিম সাজ্জাদ লিখন।

মুজিবনগরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিয়া উদ্দিন বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক ও মাহজনপুর ইউপি চেয়ারম্যান আমাম হোসেন মিলু, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বাগোয়ান ইউপি চেয়ারম্যান আয়ুব হোসেন, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কামরুল হাসান চাদু।

কোনো দুর্নীতিগ্রস্ত, পেশিশক্তি ব্যবহারকারীকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনোনয়ন দেবেন না বলে উল্লেখ করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মনোনয়নপ্রত্যাশী খালেক। অন্যদিকে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মেহেরপুর-১ আসনের এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘প্রতিটি উপজেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের সঙ্গে সমন্বয় করে তালিকা পাঠানো হয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা