kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ জানুয়ারি ২০২০। ৭ মাঘ ১৪২৬। ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

পরামর্শ

যোগাযোগ দক্ষতা ও ইংরেজি

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ইয়াছির আরাফাতের সঙ্গে কথা বলে যোগাযোগ দক্ষতা ও ইংরেজি নিয়ে লিখেছেন জুবায়ের আহম্মেদ

১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



যোগাযোগ দক্ষতা ও ইংরেজি

কমিউনিকেশন আর ইংরেজি নিয়ে অনেকের একটা ভুল ধারণা আছে। ইংরেজি একটি ভাষা আর কমিউনিকেশন হলো দক্ষতা। তার মানে ইংরেজি হচ্ছে যোগাযোগের একটি মাধ্যম। ইংরেজিতে ভালো হলেই যে যোগাযোগ দক্ষতা বেশি হবে, তা নয়। তাই প্রথমে নিজের মাতৃভাষায় কমিউনিকেশন দক্ষতা অর্জন করতে হবে। যখনই এ দক্ষতা তৈরি হবে, তখন ইংরেজিতে ভালো করতে পারবে। ইংরেজিতে সাক্ষাৎকার দেওয়া অনেক সময় অনেকের জন্য কঠিন হয়ে যায়। করপোরেট ওয়ার্ল্ডেও ইংরেজি খুব গুরুত্বপূর্ণ। ইংরেজিতে কমিউনিকেশন দক্ষতা ভালো না হলে পড়াশোনা শেষে ক্যারিয়ারে বেশি দূর আগানো সম্ভব নয়। বিদেশি প্রতিনিধি বা ক্রেতাদের কাছে তোমার পণ্য বা প্রজেক্টকে ইংরেজিতে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে হবে। স্পিকিং স্কিল বাড়াতে চর্চাটা বেশি প্রয়োজন। একেবারে শুরুতেই যে বলাটা নির্ভুল হবে, তা নয়। ভুল হোক কিংবা সঠিক—চর্চাটা চালিয়ে যাও। তাহলে ইংরেজি ভাষাটা আয়ত্তে চলে আসবে। বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির ভাইভায় ইংরেজিতে বেশির ভাগ সময় বেসিক প্রশ্নগুলোই করা হয়। দেখা হয়, প্রশ্নটি তুমি বুঝতে পারছ কি না এবং  কিভাবে উত্তর দিচ্ছ। ভালোভাবে কমিউনিকেট করতে পারছ কি না। আবার বিভিন্ন কম্পিটিশনেও তোমাকে ইংরেজিতে প্রেজেনটেশন দিতে হবে। তাই স্পিকিং স্কিল ভালো হওয়াটা জরুরি।

জেনে রাখো...

১. প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে চর্চা শুরু করতে পারলে ভালো। তবে যারা একটু বড় হয়ে গেছ, আজকে থেকেই না হয় শুরু করো। শুরুতে একেবারে প্রো-স্পিকারের সঙ্গে অনুশীলন করার দরকার নেই। বিগেইনার বা বেসিক লেভেলের পার্টনার বেছে নাও।

২. ইংরেজি পত্রিকা বা বই পড়ো। যে শব্দগুলো উচ্চারণে সমস্যা, সেগুলো দাগ দিয়ে রাখো। রাতে পড়ার ফাঁকে একটু সময় করে সেই শব্দগুলোর উচ্চারণ দেখে নাও।

৩. সময় পেলে ইংরেজি মুভি দেখো। তাদের উচ্চারণগুলো খেয়াল করো। ইউটিউবে বিভিন্ন কনফারেন্সের ভিডিও দেখতে পারো। আর ধীরে ধীরে গ্রামারের বিষয়েও খেয়াল রাখতে শুরু করো।

৪. রাতে ঘুমানোর আগে ২০ মিনিট গ্রামার চর্চা করো। কোনো শব্দ উচ্চারণে সমস্যা হলে কেমব্রিজ ডিকশনারিতে সার্চ করে উচ্চারণ শুনে নিতে পারো। আর বেশি বেশি ভোকাবুলারি আয়ত্তে আনতে থাকো। প্রতিদিন ইংরেজিতে স্পিকিং চর্চার জন্য এক ঘণ্টা সময় বরাদ্দ রাখতে পারো।

৫. সময়টা অন্যভাবেও ম্যানেজ করতে পারো। রাস্তায় বেশির ভাগ সময় জ্যামে বসে থাকতে হয়। সেখানে ছোট নোটবুক রাখতে পারো। বাক্যের গঠন, শব্দার্থ—এগুলোতে চোখ বুলিয়ে নিতে পারো।

৬. আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেই নিজের সঙ্গে ইংরেজিতে কথা বলো। কোথাও আটকে গেলে সমস্যা নেই। ধীরে ধীরে ভীতি কেটে যাবে। ভুলগুলোও ঠিক হয়ে আসবে। আবার নিজেই কোনো টপিকসের ওপর কথা বলে তা রেকর্ড করতে পারো। পরে শুনে শুনে ভুল শুধরিয়ে নিয়ো।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা